শিক্ষার্থীরা সেই রিকশাওয়ালার হাত থেকে পুরস্কার নিল, দিল সংবর্ধনা

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৩৩ | অনলাইন সংস্করণ

  পাবনা প্রতিনিধি

আন্তঃস্কুল ফুটবল খেলায় বিজয়ী শিক্ষার্থীরা পুরস্কার নিল রিকশাওয়ালা ময়ছের সেখের হাত থেকে। ছবি: যুগান্তর

রিকশাওয়ালা ময়ছের সেখের হাত থেকে আন্তঃস্কুল ফুটবল খেলায় বিজয়ী শিক্ষার্থীরা তাদের পুরস্কার নিল। একই সঙ্গে তাকেও দেয়া হলো সংবর্ধনা।

বুধবার পাবনার বেড়া উপজেলার পাবনার কাশীনাথপুর হাইস্কুল মাঠে এ ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানের অয়োজন করে কাশীনাথপুর বিজ্ঞান স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

শনিবার পাবনার বেড়া উপজেলার নয়াবাড়ি এলাকায় ব্যাগভর্তি ডলার ও আমেরিকার ভিসা তার মালিককে ফিরিয়ে দিয়ে ময়ছের সেখ (৩৮) সততার একটি দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেন। 

কাশীনাথপুরের বিজ্ঞান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আলাউল হোসেন জানান, বুধবার প্রতিষ্ঠানে ছুটি ছিল। এদিন সকালে কাশীনাথপুরে আন্তঃস্কুল ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এ আয়োজন করার কথা শুনে তার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ময়ছের সেখকে প্রধান অতিথি করার আগ্রহ দেখায়। একই সঙ্গে ওই ময়ছের সেখকেও তারা সংবর্ধনা দেয়ার কথা জানায়। স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একমত হয়ে তাকে প্রধান অতিথি করেন। 

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ময়ছের বলেন, আমি কোনো কিছু পাওয়ার জন্য ডলারের ব্যাগ মালিককে পৌঁছে দেইনি। পরের জিনিস আত্মসাৎ বা পরের জিনিসের প্রতি লোভ নেই আমার। ২০ বছর ধরে রিকশা-ভ্যান চালাই। জীবনে এ রকম আরও দুয়েকবার টাকা-পয়সা পেয়েছি। মালিককে খুঁজে খুঁজে তা ফেরত দিয়েছি। আমার ছেলেমেয়েকেও পরের জিনিস না নেয়ার শিক্ষা দিয়েছি। আমার হাত থেকে ছাত্ররা পুরস্কার নিল। আমি ধন্য।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, আমি আশা করি তোমরা বড় হয়ে দুর্নীতি করবে না।   

ফুটবল খেলা দেখতে আসা স্কাইলার্ক স্কুলের ১০ শ্রেণির ছাত্র সিয়াম মাসুম বলে, আগামী সৃজনশীল প্রশ্নে ময়ছের সেখের ওপর উদ্দীপক দেয়া হোক।

কাশীনাথপুর বিজ্ঞান স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র রাফসানুল হক সাদি বলে, আজ ময়ছের চাচার মতো অতিসাধারণ একজন মানুষের হাত থেকে পুরস্কার গ্রহণ করায় আমরা নতুন এক শিক্ষাগ্রহণ করলাম।

কাশীনাথপুরের নাগরিক কমিটির সভাপতি ডা. শানু জানান, এই রিকশাওয়ালা একজন সত্যিকারের গুণী মানুষ। তথাকথিত হোমরা-চোমরা, অসৎ ব্যক্তির হাত থেকে পুরস্কার নেয়ার বদলে একজন সৎ রিকশাওয়ালার হাতে থেকে শিক্ষার্থীদের পুরস্কার নেয়ার মানসিকতা অবশ্যই প্রশংসাযোগ্য। 

পাবনার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ (অব.) মাহাতাব বিশ্বাস বলেন, এই কাজটি করায় ছাত্রছাত্রীদের ক্লাসে নৈতিক শিক্ষা দেয়ার চেয়ে সুফল বয়ে আনবে। তাদের সারা জীবনের জন্য মনে একটি ইতিবাচক দাগ কাটবে। 

অভিভাবকদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাফরুন্নার শেলী, শেখ শামীম। শিক্ষকদের মধ্য থেকে প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম খান অঞ্জন।

উল্লেখ্য, সকাল সাড়ে ৭টায় খেলা শুরু হয় এবং কাশিনাথপুর বিজ্ঞান স্কুল ২-০ গোলে বিজয়ী হয়।