সাভারে হত্যার পর শ্রমিকের লাশ ঝুলালো ফ্যানে, যুবক নিহত

প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:১৩ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট,সাভার

ছবি- যুগান্তর

সাভারে মৌ বেগম (১৯) নামে এক গার্মেন্ট শ্রমিককে হত্যার পর তার লাশ সিলিং ফ্যানে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া উলাইল এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় এক যুবক নিহত হয়েছেন। 

শনিবার সকালে সাভারের উলাইল ও রাজফুলবাড়িয়া থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত গার্মেন্ট শ্রমিক মৌ বেগমের বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী থানার নগর শাওতা গ্রামে।  তিনি রাজফুলবাড়িয়া এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে থেকে ডেলিগেট গার্মেন্টে চাকরি করতেন।  

নিহত শাহিন মিয়া দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার সাকুয়াপাড়া গ্রামের আবদুর রবের ছেলে। তিনি সাভারের আড়াপাড়া এলাকায় এখলাছ মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার এসআই আবুল কাসেম জানান, সকালে ডেলিগেট গার্মেন্টের শ্রমিক মৌ বেগমের লাশ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দেয়। 

পুলিশ নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠায়। প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্টে দেখা যায় তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। 

পুলিশ ধারণা, পারিবারিক কলহের জের ধরে তাকে হত্যা করা হতে পারে।  এ ঘটনার পর থেকে নিহত ওই নারী শ্রমিকের স্বামী তপন মিয়া পলাতক রয়েছেন। 

অন্যদিকে সকালে সাভারের উলাইল থেকে স্থানীয় আল-মুসলিম গার্মেন্টের সহকারী স্টোরকিপার শাহিন মিয়ার (৩৩) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  রাস্তা পারাপার হওয়ার সময় পিছন থেকে আসা দ্রুতগতির হানিফ পরিবহনের একটি বাস তাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনার পর আল-মুসলিম গার্মেন্টের শ্রমিকরা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে অতিরিক্ত শিল্প পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিকদের ধাওয়া দিয়ে রাস্তা থেকে সড়িয়ে দেয়। 

এদিকে স্থানীয়রা ধাওয়া দিয়ে ঘাতক বাসটি আটক করলেও এর চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়।  

এ দুই ঘটনায় সাভার মডেল থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান এসআই।