স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা

ফতুল্লার সেই আবু সাঈদকে দুবাই থেকে ইন্টারপোলের গ্রেফতার, অতঃপর...

  ফতুল্লা প্রতিনিধি ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৪৬ | অনলাইন সংস্করণ

ফতুল্লার সেই আবু সাঈদকে দুবাই থেকে ইন্টারপোলের গ্রেফতার, অতঃপর...
ইন্টারপোলের মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে আনা আসামি আবু সাঈদ। ছবি: যুগান্তর

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রী মোনালিসা আক্তারকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ইন্টারপোলের মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে মূল আসামিকে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করলে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গ্রেফতারকৃত আবু সাঈদ (২২) ফতুল্লার পশ্চিম দেওভোগ বড় আমবাগান এলাকার ইকবাল হোসেনের ছেলে। নিহত মোনালিসা আক্তার একই এলাকার ব্যবসায়ী শাহীন বেপারীর মেয়ে। সে হাজী উজির আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

সোমবার বিকালে তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অশোক কুমার দত্তের আদালতে হাজির করা হলে শুনানি শেষে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের এসআই হানিফ মিয়া জানান, আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের মাধ্যমে ওয়ারেন্ট ইস্যু করে সাঈদকে ২৩ সেপ্টেম্বর রোববার দুপুরে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের জানান, গত ১৭ সেপ্টেম্বর ইন্টারপোলের মাধ্যমে আসামি আবু সাঈদকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী দুবাইয়ে গ্রেফতার করা হয়। পরে সব প্রক্রিয়া শেষে তাকে দেশে নিয়ে আসা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, গত ২ ফেব্রুয়ারি একা বাড়ি পেয়ে মোনালিসাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে সাঈদ। এরপর হত্যার ঘটনা আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দিতে লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে দেয়। তারপর আবু সাঈদ দ্রুত দুবাই পালিয়ে যায়।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×