ঝিনাইদহে করোনা সন্দেহে এইচএসসি পরীক্ষার্থী আইসোলেশনে
jugantor
ঝিনাইদহে করোনা সন্দেহে এইচএসসি পরীক্ষার্থী আইসোলেশনে

  ঝিনাইদহ প্রতিনিধি  

২৩ মার্চ ২০২০, ২৩:০৯:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের শৈলকূপায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে জেলা শহরের ২৫ শয্যার শিশু হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে তাকে সেখানে ভর্তি করা হয়।

ওই পরীক্ষার্থীর বাড়ি ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার বড়গ্রামে। শৈলকুপায় কাজীপাড়া গ্রামে নানা বাড়ি এবং সেখানে স্থানীয় ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সে।

শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেদ আল মামুন জানান, গত ১৪ মার্চ ঢাকা থেকে নানা বাড়ি আসে সে। ১৮ মার্চ ঠাণ্ডা-জ্বরে আক্রান্ত হয়। সোমবার দুপুরে প্রচণ্ড জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসে। এ সময় তাকে ঢাকাতে পাঠানো সম্ভব না হওয়ায় ঝিনাইদহ জেলা শহরের ২৫ শয্যার শিশু হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও  জানান, ছেলেটা ঢাকাতে অবস্থান করার সময় একজন চীনা নাগরিকের সংস্পর্শে ছিল বলে জানা গেছে।

ঝিনাইদহ শিশু হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিট পরিদর্শন শেষে সিভিল সার্জন ডাক্তার সেলিনা বেগম বিকাল ৪টার দিকে যুগান্তরকে জানান, ভর্তি করা শিক্ষার্থীর শরীরে করোনাভাইরাস আছে কী না তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত তার শারীরিক অবস্থা অপরির্বতিত রয়েছে বলে জানান তিনি।

এ দিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যে বলা হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায় এ জেলায় আরও ৫৮ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৯ জন বিদেশ ফেরত। এ পর্যন্ত ৬১১ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে ৩৮০ জনের মেয়াদ শেষ হয়েছে।

অন্য একটি সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত মাঠকর্মীদের সুরক্ষার কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক স্বাস্থ্য পরিদর্শক বলেন, স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে গ্রামে গ্রামে ছুটে চলেছেন তারা।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, দ্রুতই স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঝিনাইদহে করোনা সন্দেহে এইচএসসি পরীক্ষার্থী আইসোলেশনে

 ঝিনাইদহ প্রতিনিধি 
২৩ মার্চ ২০২০, ১১:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের শৈলকূপায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে জেলা শহরের ২৫ শয্যার শিশু হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে তাকে সেখানে ভর্তি করা হয়।

ওই পরীক্ষার্থীর বাড়ি ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার বড়গ্রামে। শৈলকুপায় কাজীপাড়া গ্রামে নানা বাড়ি এবং সেখানে স্থানীয় ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সে।

শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেদ আল মামুন জানান, গত ১৪ মার্চ ঢাকা থেকে নানা বাড়ি আসে সে। ১৮ মার্চ ঠাণ্ডা-জ্বরে আক্রান্ত হয়। সোমবার দুপুরে প্রচণ্ড জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসে। এ সময় তাকে ঢাকাতে পাঠানো সম্ভব না হওয়ায় ঝিনাইদহ জেলা শহরের ২৫ শয্যার শিশু হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

তিনি আরও জানান, ছেলেটা ঢাকাতে অবস্থান করার সময় একজন চীনা নাগরিকের সংস্পর্শে ছিল বলে জানা গেছে।

ঝিনাইদহ শিশু হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিট পরিদর্শন শেষে সিভিল সার্জন ডাক্তার সেলিনা বেগম বিকাল ৪টার দিকে যুগান্তরকে জানান, ভর্তি করা শিক্ষার্থীর শরীরে করোনাভাইরাস আছে কী না তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত তার শারীরিক অবস্থা অপরির্বতিত রয়েছে বলে জানান তিনি।

এ দিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যে বলা হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায় এ জেলায় আরও ৫৮ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৯ জন বিদেশ ফেরত। এ পর্যন্ত ৬১১ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে ৩৮০ জনের মেয়াদ শেষ হয়েছে।

অন্য একটি সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত মাঠকর্মীদের সুরক্ষার কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক স্বাস্থ্য পরিদর্শক বলেন, স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে গ্রামে গ্রামে ছুটে চলেছেন তারা।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, দ্রুতই স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০