পঞ্চগড়ের হতদরিদ্র মানুষের পাশে ডুসাপ
jugantor
পঞ্চগড়ের হতদরিদ্র মানুষের পাশে ডুসাপ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ মার্চ ২০২০, ০১:০৩:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে নিজেদের তৈরিকৃত হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং খাবার নিয়ে হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া পঞ্চগড়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন ঢাকা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব পঞ্চগড় (ডুসাপ)। সংগঠনটির পক্ষ থেকে মোট ৬০ লিটার হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও ১৫০ অসহায় পরিবারের মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহ করা হয়।

পঞ্চগড়ের ছেলেদের তৈরি করা এই স্যানিটাইজার জেলা সদর হাসপাতাল, ৫টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার, নার্স, স্টাফ এবং ৫ উপজেলার পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের হাতে তুলে দেয়া হয়। সংগঠনটির সদস্যদের উপস্থিতিতে স্যানিটাইজার পঞ্চগড়ের জেলার জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন, পুলিশ সুপার ইউসুফ আলী এবং সিভিল সার্জন ডা. ফজলুর রহমানের কাছে প্রদান করা হয়।

স্যানিটাইজারের পাশাপাশি, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের (৩ কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, ১ কেজি আটা, ১ কেজি আলু, সাবান) ১৫০টি খাবার প্যাকেট প্রস্তুত করে জেলার দুস্থ, হতদরিদ্র এবং শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

এছাড়াও করোনাভাইরাস সংক্রামক প্রতিরোধ ও সর্ব-সাধারণের মধ্যে সচেতনতা তৈরির উদ্দেশ্যে জেলা সদরসহ মোট ৫টি উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকা, অফিস-আদালতে, হাট-বাজারে, অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সচেতনতামূলক পোস্টার এবং নিজেদের তৈরি ৩০০ বোতল হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করে সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবকরা।

‘আলোকিত পঞ্চগড় গড়ার প্রত্যয়ে’ গড়ে ওঠা ঢাকা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব পঞ্চগড় (ডুসাপ)-এর সভাপতি শাকিল আনোয়ার বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ছাত্র হিসেবে জাতির এই ক্রান্তিকালে মানুষের পাশে দাঁড়ানোকে নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করি। সেই দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা জেলার মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমাদের অনেকে ব্যক্তিগতভাবে সাহায্য করেছে, পাশে দাঁড়িয়েছে ঘুড্ডি ফাউন্ডেশন।

তিনি বলেন, আমরা খেটে খাওয়া মানুষদের জন্য দুবেলা খাবারের ব্যবস্থা করেছি, ডাক্তার, নার্স, পুলিশদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েছি। আমি বিশ্বাস করি সবার নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসলে এই দুর্যোগ সহজেই মোকাবিলা করা সম্ভব।

ডুসাপের সাধারণ সম্পাদক সারজিস আলম বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় শুধু সরকার বা প্রশাসন নয় বরং পুরোদেশকে প্রতিটি মানুষকে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে ৷ সে বিশ্বাস থেকে আমরা পঞ্চগড়ের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজেদের সাধ্যের মধ্যে মানুষের জন্য যতটুকু করা সম্ভব সেটা চেষ্টা করেছি ৷ আমাদের এ প্রচেষ্টায় অনেকেই পাশে দাঁড়িয়েছে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা।

পঞ্চগড়ের হতদরিদ্র মানুষের পাশে ডুসাপ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ মার্চ ২০২০, ০১:০৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে নিজেদের তৈরিকৃত হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং খাবার নিয়ে হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া পঞ্চগড়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন ঢাকা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব পঞ্চগড় (ডুসাপ)। সংগঠনটির পক্ষ থেকে মোট ৬০ লিটার হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও ১৫০ অসহায় পরিবারের মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহ করা হয়।

পঞ্চগড়ের ছেলেদের তৈরি করা এই স্যানিটাইজার জেলা সদর হাসপাতাল, ৫টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার, নার্স, স্টাফ এবং ৫ উপজেলার পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের হাতে তুলে দেয়া হয়। সংগঠনটির সদস্যদের উপস্থিতিতে স্যানিটাইজার পঞ্চগড়ের জেলার জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন, পুলিশ সুপার ইউসুফ আলী এবং সিভিল সার্জন ডা. ফজলুর রহমানের কাছে প্রদান করা হয়।

স্যানিটাইজারের পাশাপাশি, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের (৩ কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, ১ কেজি আটা, ১ কেজি আলু, সাবান) ১৫০টি খাবার প্যাকেট প্রস্তুত করে জেলার দুস্থ, হতদরিদ্র এবং শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

এছাড়াও করোনাভাইরাস সংক্রামক প্রতিরোধ ও সর্ব-সাধারণের মধ্যে সচেতনতা তৈরির উদ্দেশ্যে জেলা সদরসহ মোট ৫টি উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকা, অফিস-আদালতে, হাট-বাজারে, অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সচেতনতামূলক পোস্টার এবং নিজেদের তৈরি ৩০০ বোতল হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করে সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবকরা।

‘আলোকিত পঞ্চগড় গড়ার প্রত্যয়ে’ গড়ে ওঠা ঢাকা ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব পঞ্চগড় (ডুসাপ)-এর সভাপতি শাকিল আনোয়ার বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ছাত্র হিসেবে জাতির এই ক্রান্তিকালে মানুষের পাশে দাঁড়ানোকে নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করি। সেই দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা জেলার মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমাদের অনেকে ব্যক্তিগতভাবে সাহায্য করেছে, পাশে দাঁড়িয়েছে ঘুড্ডি ফাউন্ডেশন।

তিনি বলেন, আমরা খেটে খাওয়া মানুষদের জন্য দুবেলা খাবারের ব্যবস্থা করেছি, ডাক্তার, নার্স, পুলিশদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েছি। আমি বিশ্বাস করি সবার নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসলে এই দুর্যোগ সহজেই মোকাবিলা করা সম্ভব।

ডুসাপের সাধারণ সম্পাদক সারজিস আলম বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় শুধু সরকার বা প্রশাসন নয় বরং পুরোদেশকে প্রতিটি মানুষকে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে ৷ সে বিশ্বাস থেকে আমরা পঞ্চগড়ের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজেদের সাধ্যের মধ্যে মানুষের জন্য যতটুকু করা সম্ভব সেটা চেষ্টা করেছি ৷ আমাদের এ প্রচেষ্টায় অনেকেই পাশে দাঁড়িয়েছে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০