শেরপুর জেলায় ১১ হাজার পরিবারে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
jugantor
শেরপুর জেলায় ১১ হাজার পরিবারে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

  শেরপুর প্রতিনিধি  

০১ এপ্রিল ২০২০, ২২:০৩:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শহরের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী তুলে দেন

করোনাভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা মোতাবেক সারা দেশেই কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে।

শেরপুরে মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় কর্মহীন শ্রমজীবী ও হতদরিদ্র পরিবারগুলোর মধ্যে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাবার ও অন্যান্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

ওই কার্যক্রমের আওতায় মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা ৪ দিনে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের নির্দেশনায় জেলায় ১১ হাজার ১৯৫ পরিবারের মাঝে ওই সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন পাঁচ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ।

ওই কর্মসূচি চলমান রাখতে সোমবার রাতে জেলায় আরও ১০০ মেট্রিক টন চাল ও ৩ লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ৩ দফায় জেলায় মোট বরাদ্দের পরিমাণ দাঁড়াল ৩০০ মেট্রিক টন চাল ও ১২ লাখ টাকা।

বিতরণকৃত খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ছিল ৩ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি পেঁয়াজ, ১ কেজি আলু, ১ কেজি লবণ, ১ লিটার তেল, কাঁচা মরিচ, সাবান ইত্যাদি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের আওতায় দুই দফায় বরাদ্দ পাওয়া ২০০ মেট্রিক টন চাল ও ৯ লাখ টাকার বিপরীতে উপ-বরাদ্দমূলে সোমবার শেরপুর সদর উপজেলায় ৪ হাজার ৫০টি পরিবারকে ৪০.৫ মেট্রিক টন চাল, নকলা উপজেলায় ২৯৫টি পরিবারকে ২.৯৫ মেট্রিক টন চাল, নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১ হাজার ৩০০টি পরিবারকে ১৩ মেট্রিক টন চাল, শ্রীবরদী উপজেলায় দেড় হাজার পরিবারকে ১৫ মেট্রিক টন চাল ও ঝিনাইগাতী উপজেলায় ৪ হাজার ৫০টি পরিবারকে ৪০.৫ মেট্রিক টন চাল এবং মোট ৪ লাখ ৬৩ হাজার ২৭৫ টাকা মূল্যের অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী (ডাল, আলু, লবণ,তেল, সাবান) বিতরণ করা হয়।

শনিবার থেকে ওই কার্যক্রম চলছে। প্রথম দিনে জেলার ৫ উপজেলায় ৭৫ পরিবার ও দ্বিতীয় দিনে ১৮০ পরিবারকে ওই সহায়তা দেয়া হয়।

প্রথমভাগে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শহরের কিছু এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে ওই খাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী তুলে দেন। আর একইভাবে উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ ওই সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন।

এ ব্যাপারে শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এবিএম এহসানুল মামুন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কর্মহীন, দরিদ্র-অসহায়, দিনমজুর, কর্ম-অক্ষম ও অসচ্ছল নাগরিকদের সুষ্ঠু তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে তাদের মাঝে ওই মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। এটি পরিস্থিতির আলোকে চলমান থাকবে।

শেরপুর জেলায় ১১ হাজার পরিবারে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

 শেরপুর প্রতিনিধি 
০১ এপ্রিল ২০২০, ১০:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শহরের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী তুলে দেন
জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শহরের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী তুলে দেন

করোনাভাইরাসজনিত পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা মোতাবেক সারা দেশেই কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে।

শেরপুরে মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় কর্মহীন শ্রমজীবী ও হতদরিদ্র পরিবারগুলোর মধ্যে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাবার ও অন্যান্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

ওই কার্যক্রমের আওতায় মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা ৪ দিনে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবের নির্দেশনায় জেলায় ১১ হাজার ১৯৫ পরিবারের মাঝে ওই সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন পাঁচ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ।

ওই কর্মসূচি চলমান রাখতে সোমবার রাতে জেলায় আরও ১০০ মেট্রিক টন চাল ও ৩ লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ৩ দফায় জেলায় মোট বরাদ্দের পরিমাণ দাঁড়াল ৩০০ মেট্রিক টন চাল ও ১২ লাখ টাকা।

বিতরণকৃত খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ছিল ৩ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি পেঁয়াজ, ১ কেজি আলু, ১ কেজি লবণ, ১ লিটার তেল, কাঁচা মরিচ, সাবান ইত্যাদি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের আওতায় দুই দফায় বরাদ্দ পাওয়া ২০০ মেট্রিক টন চাল ও ৯ লাখ টাকার বিপরীতে উপ-বরাদ্দমূলে সোমবার শেরপুর সদর উপজেলায় ৪ হাজার ৫০টি পরিবারকে ৪০.৫ মেট্রিক টন চাল, নকলা উপজেলায় ২৯৫টি পরিবারকে ২.৯৫ মেট্রিক টন চাল, নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১ হাজার ৩০০টি পরিবারকে ১৩ মেট্রিক টন চাল, শ্রীবরদী উপজেলায় দেড় হাজার পরিবারকে ১৫ মেট্রিক টন চাল ও ঝিনাইগাতী উপজেলায় ৪ হাজার ৫০টি পরিবারকে ৪০.৫ মেট্রিক টন চাল এবং মোট ৪ লাখ ৬৩ হাজার ২৭৫ টাকা মূল্যের অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী (ডাল, আলু, লবণ,তেল, সাবান) বিতরণ করা হয়।

শনিবার থেকে ওই কার্যক্রম চলছে। প্রথম দিনে জেলার ৫ উপজেলায় ৭৫ পরিবার ও দ্বিতীয় দিনে ১৮০ পরিবারকে ওই সহায়তা দেয়া হয়।

প্রথমভাগে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব শহরের কিছু এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে ওই খাদ্যসহ অন্যান্য সামগ্রী তুলে দেন। আর একইভাবে উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ ওই সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন।

এ ব্যাপারে শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এবিএম এহসানুল মামুন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কর্মহীন, দরিদ্র-অসহায়, দিনমজুর, কর্ম-অক্ষম ও অসচ্ছল নাগরিকদের সুষ্ঠু তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে তাদের মাঝে ওই মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। এটি পরিস্থিতির আলোকে চলমান থাকবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস