করোনার গুজবে নেত্রকোনায় এক বাড়ি অবরুদ্ধ
jugantor
করোনার গুজবে নেত্রকোনায় এক বাড়ি অবরুদ্ধ

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০২ এপ্রিল ২০২০, ১৮:৪৬:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার খলিশাউর ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে করোনাভাইরাস সন্দেহে একটি বাড়ি অবরুদ্ধ করে রেখেছে এলাকাবাসী।

ওই বাড়িতে কিশোরীর ছোট এক প্রতিবন্ধী ভাই ও এক বোন রয়েছে।

কিশোরীর চাচা জানান, তার ভাইজি ময়মনসিংহের নান্দাইলে এক বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে। বুধবার সেখান থেকে গায়ে হালকা জ্বর নিয়ে সে বাড়িতে আসে। এটা প্রচার হওয়ার পর থেকেই মঙ্গলবার থেকে তাকে ঘিরে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

এই ঘটনায় খবর পেয়ে পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজনের নেতৃত্বে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. হাবিবুর রহমান, ডা. কনক প্রভা নন্দী ও টেকনিশিয়ান মাহবুব আলম নাদিম ওই কিশোরীর বাড়িতে যান।

এ সময় খলিশাউর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী ও সংশ্লিষ্ট ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার মনজুরুল হক বাবুল উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরীকে বাড়ির উঠানে নিয়ে বসিয়ে তার লক্ষণগুলো পর্যবেক্ষণ করা হয়। পরে ডা. হাবিবুর রহমান জানান, তার শরীরে হালকা জ্বর রয়েছে। করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ যেমন গলাব্যাথা, শ্বাসকষ্ট, সর্দি-কাশি পরিলক্ষিত হয়নি। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে এটাকে সিজনাল জ্বর বলে মনে হচ্ছে।

এরপর কিশোরীকে প্রেসক্রিপশন লিখে নিয়মিত ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয় এবং যদি আরও কোনো লক্ষণ পরিলক্ষিত হয় তবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। এ ছাড়া বাড়ির লোকজনদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান করা হয়।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে কোনো গুজব, বিভ্রান্তিকর ও অসত্য তথ্য ছড়ালে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

করোনার গুজবে নেত্রকোনায় এক বাড়ি অবরুদ্ধ

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০২ এপ্রিল ২০২০, ০৬:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার খলিশাউর ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে করোনাভাইরাস সন্দেহে একটি বাড়ি অবরুদ্ধ করে রেখেছে এলাকাবাসী।

ওই বাড়িতে কিশোরীর ছোট এক প্রতিবন্ধী ভাই ও এক বোন রয়েছে।

কিশোরীর চাচা জানান, তার ভাইজি ময়মনসিংহের নান্দাইলে এক বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে। বুধবার সেখান থেকে গায়ে হালকা জ্বর নিয়ে সে বাড়িতে আসে। এটা প্রচার হওয়ার পর থেকেই মঙ্গলবার থেকে তাকে ঘিরে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

এই ঘটনায় খবর পেয়ে পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজনের নেতৃত্বে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. হাবিবুর রহমান, ডা. কনক প্রভা নন্দী ও টেকনিশিয়ান মাহবুব আলম নাদিম ওই কিশোরীর বাড়িতে যান।

এ সময় খলিশাউর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী ও সংশ্লিষ্ট ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার মনজুরুল হক বাবুল উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরীকে বাড়ির উঠানে নিয়ে বসিয়ে তার লক্ষণগুলো পর্যবেক্ষণ করা হয়। পরে ডা. হাবিবুর রহমান জানান, তার শরীরে হালকা জ্বর রয়েছে। করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ যেমন গলাব্যাথা, শ্বাসকষ্ট, সর্দি-কাশি পরিলক্ষিত হয়নি। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে এটাকে সিজনাল জ্বর বলে মনে হচ্ছে।

এরপর কিশোরীকে প্রেসক্রিপশন লিখে নিয়মিত ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয় এবং যদি আরও কোনো লক্ষণ পরিলক্ষিত হয় তবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। এ ছাড়া বাড়ির লোকজনদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান করা হয়।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে কোনো গুজব, বিভ্রান্তিকর ও অসত্য তথ্য ছড়ালে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস