এরদোগানকে প্রশংসায় ভাসালেন নোবেলজয়ী আবি আহমেদ
jugantor
এরদোগানকে প্রশংসায় ভাসালেন নোবেলজয়ী আবি আহমেদ

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৫ এপ্রিল ২০২০, ১৫:৩৩:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

এরদোগানকে প্রশংসায় ভাসালেন নোবেলজয়ী আবি আহমেদ

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আফ্রিকান দেশগুলোকে সহায়তা করায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী ও শান্তিতে নোবেলজয়ী আবি আহমেদ আলী।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনালাপের কথা জানিয়ে এক টুইটারপোস্টে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ জয়ে ইথিওপিয়াকে সহায়তায় এরদোগানের আগ্রহের বিষয়টি আমি বুঝতে পেরেছি।

‘চমৎকার ফোনালাপের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। করোনাপ্রতিরোধে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করা হবে বলে প্রত্যাশা করছি।’

আফ্রিকান দেশটিতে বিভিন্ন খাতে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগকারী দেশগুলোর মধ্যে তুরস্ক একটি। যেগুলোর মধ্যে বস্ত্র, বিভিন্ন উৎপাদন সংস্থা ও নির্মাণ খাতও রয়েছে।

২০১৫ সালে ইথিওপিয়া সফরে যান এরদোগান। তখন দেশটির সঙ্গে তুরস্কের কৌশলগত সহযোগিতা বাড়ানো হয়েছিল।

পূর্বাঞ্চলীয় শহর হারারে ১৯১২ সালে প্রথম কনস্যুলেট খোলে তুরস্ক। আর আদ্দিস আবাবায় দূতাবাস খোলে ১৯২৬ সালে।

আর তুরস্কে ১৯৩৩ সালে দূতাবাস খোলে ইথিওপিয়া।

এরদোগানকে প্রশংসায় ভাসালেন নোবেলজয়ী আবি আহমেদ

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৫ এপ্রিল ২০২০, ০৩:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
এরদোগানকে প্রশংসায় ভাসালেন নোবেলজয়ী আবি আহমেদ
ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আফ্রিকান দেশগুলোকে সহায়তা করায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী ও শান্তিতে নোবেলজয়ী আবি আহমেদ আলী।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনালাপের কথা জানিয়ে এক টুইটারপোস্টে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ জয়ে ইথিওপিয়াকে সহায়তায় এরদোগানের আগ্রহের বিষয়টি আমি বুঝতে পেরেছি।

‘চমৎকার ফোনালাপের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। করোনাপ্রতিরোধে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করা হবে বলে প্রত্যাশা করছি।’

আফ্রিকান দেশটিতে বিভিন্ন খাতে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগকারী দেশগুলোর মধ্যে তুরস্ক একটি। যেগুলোর মধ্যে বস্ত্র, বিভিন্ন উৎপাদন সংস্থা ও নির্মাণ খাতও রয়েছে।

২০১৫ সালে ইথিওপিয়া সফরে যান এরদোগান। তখন দেশটির সঙ্গে তুরস্কের কৌশলগত সহযোগিতা বাড়ানো হয়েছিল। 

পূর্বাঞ্চলীয় শহর হারারে ১৯১২ সালে প্রথম কনস্যুলেট খোলে তুরস্ক। আর আদ্দিস আবাবায় দূতাবাস খোলে ১৯২৬ সালে।

আর তুরস্কে ১৯৩৩ সালে দূতাবাস খোলে ইথিওপিয়া।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস