বগুড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর রিকশাচালকের মৃত্যু
jugantor
বগুড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর রিকশাচালকের মৃত্যু

  বগুড়া ব্যুরো  

১৭ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৩০:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিটে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া এনামুল হক (৪২) নামে এক রিকশাচালক মারা গেছেন। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ভর্তি হওয়ার পর চিকিৎসাধীন রাত ৯টার দিকে তিনি মারা যান। 

বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শফিক আমিন কাজল যুগান্তরকে এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ডা. কাজল জানান, এনামুল হক বগুড়া শহরের সাবগ্রাম চাঁন্দুপাড়ার বাসিন্দা। তিনি পেশায় রিকশাচালক। তিনি কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে 
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে বগুড়া আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি হন। চিকিৎসাধীন রাত ৯টার দিকে এনামুল মারা যান। 

তিনি জানান, তার লাশ ব্যাগে তুলে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আইইডিসিআরের নির্দেশনা অনুসারে তার লাশ দাফন করতে বলা হয়েছে। 

মৃত এনামুলের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই নমুনা শুক্রবার রামেক হাসপাতাল ল্যাবে পাঠানো হবে বলে জানান ডা. কাজল।

বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন যুগান্তরকে জানান, নমুনার রিপোর্টের ওপর নির্ভর করবে ওই ব্যক্তির বাড়ি লকডাউন বা সদস্যরা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকবেন কিনা। 

কয়েক দিন আগে গাবতলীর সিয়াম (১৩) নামে এক শিশু আইসোলেশন ইউনিটে মারা গিয়েছিল। তার বাড়িসহ কয়েকটি বাড়ি লকডাউন করা হয়। তবে তার শরীর থেকে সংগ্রহ করা নমুনায় করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি।

বগুড়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর রিকশাচালকের মৃত্যু

 বগুড়া ব্যুরো 
১৭ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৩০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিটে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া এনামুল হক (৪২) নামে এক রিকশাচালক মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ভর্তি হওয়ার পর চিকিৎসাধীন রাত ৯টার দিকে তিনি মারা যান।

বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শফিক আমিন কাজল যুগান্তরকে এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ডা. কাজল জানান, এনামুল হক বগুড়া শহরের সাবগ্রাম চাঁন্দুপাড়ার বাসিন্দা। তিনি পেশায় রিকশাচালক। তিনি কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে বগুড়া আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি হন। চিকিৎসাধীন রাত ৯টার দিকে এনামুল মারা যান।

তিনি জানান, তার লাশ ব্যাগে তুলে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আইইডিসিআরের নির্দেশনা অনুসারে তার লাশ দাফন করতে বলা হয়েছে।

মৃত এনামুলের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই নমুনা শুক্রবার রামেক হাসপাতাল ল্যাবে পাঠানো হবে বলে জানান ডা. কাজল।

বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন যুগান্তরকে জানান, নমুনার রিপোর্টের ওপর নির্ভর করবে ওই ব্যক্তির বাড়ি লকডাউন বা সদস্যরা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকবেন কিনা।

কয়েক দিন আগে গাবতলীর সিয়াম (১৩) নামে এক শিশু আইসোলেশন ইউনিটে মারা গিয়েছিল। তার বাড়িসহ কয়েকটি বাড়ি লকডাউন করা হয়। তবে তার শরীর থেকে সংগ্রহ করা নমুনায় করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০