বগুড়ায় ঢাকাফেরত পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত, উপজেলা লকডাউন
jugantor
বগুড়ায় ঢাকাফেরত পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত, উপজেলা লকডাউন

  বগুড়া ব্যুরো  

১৭ এপ্রিল ২০২০, ১০:৫৫:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার আদমদীঘিতে ঢাকায় কর্মরত এক পুলিশ কনস্টেবল (২৯) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ল্যাব থেকে তার পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। 

উপজেলা প্রশাসন রাত ১২টা থেকে আদমদীঘি উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করেছে। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আবদুল্লাহ বিন রশিদ যুগান্তরকে এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, আদমদীঘি উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নের শাওইল কাঞ্চনপাড়া গ্রামের জনৈক ব্যক্তির ছেলে ঢাকায় পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি করেন। সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে তিনি গত ১০ এপ্রিল মোটরসাইকেলে ঢাকা থেকে বাড়িতে ফেরেন। তিনি গত ১৩ এপ্রিল আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। তখন চিকিৎসকদের সন্দেহ হলে তার শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই নমুনা রামেক হাসপাতাল ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সেখান থেকে পাঠানো রিপোর্টে ওই পুলিশ কনস্টেবলকে করোনাভাইরাস পচিটিভ উল্লেখ করা হয়।

আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আবদুল্লাহ বিন রশিদ জানান, ওই যুবক গত কয়েক দিন নিজ এলাকা ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেছেন। তাই পুরো উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। পরিবারে স্ত্রী ছাড়া অন্য কোনো সদস্য নেই। তাই স্ত্রীসহ তাকে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন জানান, করোনাভাইরাস আক্রান্ত ওই যুবককে বগুড়া আইসোলেশনে আনা হয়েছে।

বগুড়ায় ঢাকাফেরত পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত, উপজেলা লকডাউন

 বগুড়া ব্যুরো 
১৭ এপ্রিল ২০২০, ১০:৫৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার আদমদীঘিতে ঢাকায় কর্মরত এক পুলিশ কনস্টেবল (২৯) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ল্যাব থেকে তার পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে।

উপজেলা প্রশাসন রাত ১২টা থেকে আদমদীঘি উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করেছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আবদুল্লাহ বিন রশিদ যুগান্তরকে এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, আদমদীঘি উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নের শাওইল কাঞ্চনপাড়া গ্রামের জনৈক ব্যক্তির ছেলে ঢাকায় পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি করেন। সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে তিনি গত ১০ এপ্রিল মোটরসাইকেলে ঢাকা থেকে বাড়িতে ফেরেন। তিনি গত ১৩ এপ্রিল আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। তখন চিকিৎসকদের সন্দেহ হলে তার শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই নমুনা রামেক হাসপাতাল ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সেখান থেকে পাঠানো রিপোর্টে ওই পুলিশ কনস্টেবলকে করোনাভাইরাস পচিটিভ উল্লেখ করা হয়।

আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আবদুল্লাহ বিন রশিদ জানান, ওই যুবক গত কয়েক দিন নিজ এলাকা ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেছেন। তাই পুরো উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। পরিবারে স্ত্রী ছাড়া অন্য কোনো সদস্য নেই। তাই স্ত্রীসহ তাকে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল আইসোলেশন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন জানান, করোনাভাইরাস আক্রান্ত ওই যুবককে বগুড়া আইসোলেশনে আনা হয়েছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০