বি.বাড়িয়ায় জানাজায় অংশ নেয়া মাধবপুরের মাদ্রাসা শিক্ষকরা কোয়ারেন্টিনে
jugantor
বি.বাড়িয়ায় জানাজায় অংশ নেয়া মাধবপুরের মাদ্রাসা শিক্ষকরা কোয়ারেন্টিনে

  মাধবপুর (হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি  

১৯ এপ্রিল ২০২০, ২৩:১২:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বেডতলায় জুবায়ের আহমেদ আনসারীর জানাজায় অংশগ্রহণকারীদের কোয়ারেন্টিনে রাখতে প্রশাসন মাঠে নেমেছে।

রোববার বিকালে পৌরশহরের শ্যামলীপাড়া জামিয়া ফারুকিয়া রাহাতুল জান্নাত মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষকদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করেছে প্রশাসন।

ওই মাদ্রাসার ৪ জন শিক্ষক লাখো মানুষের জানাজায় অংশ নিয়েছিলেন।

বিকাল ৪টার দিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা আক্তার তাদের ১৪ দিন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন মেনে চলতে নির্দেশ দেন।

করোনা বিস্তারের পরিপ্রেক্ষিতে ১৬ এপ্রিল গোটা দেশকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়। এর পরও জুবায়ের আহমেদ আনসারীর জানাজায় হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন।

সরাইলের পার্শ্ববর্তী উপজেলা মাধবপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েকশ' মুসল্লি জানাজায় শরিক হয়। এতে করে মাধবপুর উপজেলায় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

মাধবপুর থানার ওসি মো. ইকবাল হোসেন জানান, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মাধবপুর সীমান্ত আগে থেকেই একটি চেকপোস্ট বসানো ছিল। পুলিশ সুপারের নির্দেশে চেকপোস্টে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা কোনো যাত্রীবাহী গাড়ি প্রবেশ ও বাহির হতে দেয়নি। আনসারী হুজুরের জানাজার দিন চেকপোস্টে কঠোর অবস্থান নেয় পুলিশ।

মাধবপুর সার্কেলের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ফারুক আল মামুন ভুঁইঞা বলেন, ওই দিন মহাসড়কে কঠোর নজরদারী ছিল। বিকল্প পথে আনসারীর জানাজায় মাধবপুর উপজেলা সদরসহ অনেক এলাকা থেকে কয়েকশ' ভক্ত, অনুসারী অংশ নেন।

মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়েশা আক্তার জানান, মাধবপুরে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে কারা এ জানাজায় অংশ নিয়েছিলেন, তা খোঁজ-খবর নিয়ে প্রশাসন কাজ করছে। তাদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করবে। শ্যামলীপাড়ার মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষকরা অংশ নিয়েছিলেন।

বি.বাড়িয়ায় জানাজায় অংশ নেয়া মাধবপুরের মাদ্রাসা শিক্ষকরা কোয়ারেন্টিনে

 মাধবপুর (হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি 
১৯ এপ্রিল ২০২০, ১১:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বেডতলায় জুবায়ের আহমেদ আনসারীর জানাজায় অংশগ্রহণকারীদের কোয়ারেন্টিনে রাখতে প্রশাসন মাঠে নেমেছে।

রোববার বিকালে পৌরশহরের শ্যামলীপাড়া জামিয়া ফারুকিয়া রাহাতুল জান্নাত মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষকদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করেছে প্রশাসন।

ওই মাদ্রাসার ৪ জন শিক্ষক লাখো মানুষের জানাজায় অংশ নিয়েছিলেন।

বিকাল ৪টার দিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী  ম্যাজিস্ট্রেট  আয়েশা আক্তার তাদের ১৪ দিন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন মেনে চলতে নির্দেশ দেন।

করোনা বিস্তারের পরিপ্রেক্ষিতে ১৬ এপ্রিল গোটা দেশকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়। এর পরও জুবায়ের আহমেদ আনসারীর জানাজায় হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন।

সরাইলের পার্শ্ববর্তী উপজেলা মাধবপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েকশ' মুসল্লি জানাজায় শরিক হয়। এতে করে মাধবপুর উপজেলায় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

মাধবপুর থানার ওসি মো. ইকবাল হোসেন জানান, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মাধবপুর সীমান্ত আগে থেকেই একটি চেকপোস্ট বসানো ছিল। পুলিশ সুপারের নির্দেশে চেকপোস্টে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা কোনো যাত্রীবাহী গাড়ি প্রবেশ ও বাহির হতে দেয়নি। আনসারী হুজুরের জানাজার দিন চেকপোস্টে কঠোর অবস্থান নেয় পুলিশ।

মাধবপুর সার্কেলের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ফারুক আল মামুন ভুঁইঞা বলেন, ওই দিন মহাসড়কে কঠোর নজরদারী ছিল। বিকল্প পথে  আনসারীর জানাজায় মাধবপুর উপজেলা সদরসহ অনেক এলাকা থেকে কয়েকশ' ভক্ত, অনুসারী অংশ নেন।

মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়েশা আক্তার জানান,  মাধবপুরে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে কারা এ জানাজায় অংশ নিয়েছিলেন, তা খোঁজ-খবর নিয়ে প্রশাসন কাজ করছে। তাদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করবে। শ্যামলীপাড়ার মহিলা মাদ্রাসার শিক্ষকরা  অংশ নিয়েছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস