নাগরপুরে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলায় যুবলীগ নেতাকে মারধর
jugantor
নাগরপুরে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলায় যুবলীগ নেতাকে মারধর

  নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২২ এপ্রিল ২০২০, ২১:৩০:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলায় উপজেলার ভারড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি হাসান খানকে মারধর করেছে প্রতিবেশীরা।

উপজেলার পঁচপসারুটিয়া বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতিসহ ৪ জন গুরুতর আহত হন।

হামলায় আহত যুবলীগ নেতা হাসান বলেন, গত ১৬ এপ্রিল আমার চাচাত ভাই মনির খানের স্ত্রী ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক আমরা স্বেচ্ছা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে শুরু করি। এ সময় একই গ্রামের আবুল কাশেম সেকান্দারের ছেলে এমদাদুল ও লাদেন আমাদের বাড়ির আশপাশে অপ্রয়োজনে ঘোরাফেরা করলে তাদেরকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলি।

তিনি বলেন, একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। পরে সোমবার সকালে চাঁন মিয়া মাস্টারের নেতৃত্বে পরিকল্পিতভাবে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ১০-১২ জনের সংঘবদ্ধ দল আমার ওপর হামলা করে। আমাকে বাঁচাতে রুহুল আমিন, রিপন খান, মোস্তাক খানসহ আরও অনেকে এগিয়ে আসলে তাদের ওপরও হামলা করা হয়। পরে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে আমাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে নাগরপুর থানার এসআই শাহজাহান জানান, এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাগরপুরে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলায় যুবলীগ নেতাকে মারধর

 নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২২ এপ্রিল ২০২০, ০৯:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলায় উপজেলার ভারড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি হাসান খানকে মারধর করেছে প্রতিবেশীরা।

উপজেলার পঁচপসারুটিয়া বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতিসহ ৪ জন গুরুতর আহত হন।

হামলায় আহত যুবলীগ নেতা হাসান বলেন, গত ১৬ এপ্রিল আমার চাচাত ভাই মনির খানের স্ত্রী ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক আমরা স্বেচ্ছা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে শুরু করি। এ সময় একই গ্রামের আবুল কাশেম সেকান্দারের ছেলে এমদাদুল ও লাদেন আমাদের বাড়ির আশপাশে অপ্রয়োজনে ঘোরাফেরা করলে তাদেরকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলি।

তিনি বলেন, একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। পরে সোমবার সকালে চাঁন মিয়া মাস্টারের নেতৃত্বে পরিকল্পিতভাবে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ১০-১২ জনের সংঘবদ্ধ দল আমার ওপর হামলা করে। আমাকে বাঁচাতে রুহুল আমিন, রিপন খান, মোস্তাক খানসহ আরও অনেকে এগিয়ে আসলে তাদের ওপরও হামলা করা হয়। পরে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে আমাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে নাগরপুর থানার এসআই শাহজাহান জানান, এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস