হাওরে প্রায় ৩ লাখ ২৫ হাজার শ্রমিক ধান কাটছেন: কৃষিমন্ত্রী
jugantor
হাওরে প্রায় ৩ লাখ ২৫ হাজার শ্রমিক ধান কাটছেন: কৃষিমন্ত্রী

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

২৯ এপ্রিল ২০২০, ২২:৪২:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, হাওরাঞ্চলে ৬৫ ভাগ ধান কাটা শেষ হয়ে গেছে। সুনামগঞ্জসহ অতি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ৭৫ ভাগ ধানকাটা হয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে হাওরে প্রায় ৩ লাখ ২৫ হাজার শ্রমিক ধান কাটছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও করোনা পরিস্থিতিকে সামনে রেখে সরকারি তৎপরতায় কৃষকরা দ্রুত সময়ে ধানকাটতে পেরেছেন।

বুধবার সকালে সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সাংহাই হাওরে কৃষকদের মাঝে হারভেস্টার মেশিন প্রদানকালে কৃষিমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সরকার সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করছে। কৃষকের খোলা থেকে পাইকাররা ধান নিচ্ছে। ভালো দামও পাচ্ছেন কৃষকরা। সরকারি ধান ক্রয় কার্যক্রমে কোনো অনিয়ম হবে না।

তিনি বলেন, আমি হাওরে কৃষকের মুখে হাসি দেখেছি। বোরো ধানের ভালো ফলন হয়েছে, কৃষকরা সুন্দরভাবে ঘরে ধান তুলতে পারলে করোনার দুর্ভিক্ষ কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, হাওরে ধানকাটতে গিয়ে বজ্রপাতে যে কৃষক মৃত্যুবরণ করবেন তার পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী পক্ষ থেকে ১ লাখ টাকা প্রদান করা হবে। বজ্রপাতে মৃত্যু হার কমাতে হাওরে ইলেক্ট্রনিক যন্ত্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বিরোধীদলীয় হুইপ ও সুনামগঞ্জ সদর আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সুনামগঞ্জ-৫ আসনের এমপি মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি শামিমা  আক্তার খানম, সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক আবদুল আহাদ, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেবুন্নাহার শাম্মী প্রমুখ।

হাওরে প্রায় ৩ লাখ ২৫ হাজার শ্রমিক ধান কাটছেন: কৃষিমন্ত্রী

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
২৯ এপ্রিল ২০২০, ১০:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, হাওরাঞ্চলে ৬৫ ভাগ ধান কাটা শেষ হয়ে গেছে। সুনামগঞ্জসহ অতি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ৭৫ ভাগ ধানকাটা হয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে হাওরে প্রায় ৩ লাখ ২৫ হাজার শ্রমিক ধান কাটছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও করোনা পরিস্থিতিকে সামনে রেখে সরকারি তৎপরতায় কৃষকরা দ্রুত সময়ে ধানকাটতে পেরেছেন।

বুধবার সকালে সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সাংহাই হাওরে কৃষকদের মাঝে হারভেস্টার মেশিন প্রদানকালে কৃষিমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সরকার সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করছে। কৃষকের খোলা থেকে পাইকাররা ধান নিচ্ছে। ভালো দামও পাচ্ছেন কৃষকরা। সরকারি ধান ক্রয় কার্যক্রমে কোনো অনিয়ম হবে না।

তিনি বলেন, আমি হাওরে কৃষকের মুখে হাসি দেখেছি। বোরো ধানের ভালো ফলন হয়েছে, কৃষকরা সুন্দরভাবে ঘরে ধান তুলতে পারলে করোনার দুর্ভিক্ষ কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, হাওরে ধানকাটতে গিয়ে বজ্রপাতে যে কৃষক মৃত্যুবরণ করবেন তার পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী পক্ষ থেকে ১ লাখ টাকা প্রদান করা হবে। বজ্রপাতে মৃত্যু হার কমাতে হাওরে ইলেক্ট্রনিক যন্ত্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বিরোধীদলীয় হুইপ ও সুনামগঞ্জ সদর আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সুনামগঞ্জ-৫ আসনের এমপি মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি শামিমা আক্তার খানম, সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক আবদুল আহাদ, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেবুন্নাহার শাম্মী প্রমুখ।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০