রেফার্ডের ২ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গায় করোনার উপসর্গ রোগীর মৃত্যু
jugantor
রেফার্ডের ২ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গায় করোনার উপসর্গ রোগীর মৃত্যু

  দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি  

০১ মে ২০২০, ২০:০৭:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বলদিয়া গ্রামে করোনার উপসর্গ নিয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে রাজশাহীতে রেফার্ড করে ছাড়পত্র দেয়। পরে বাড়িতে যাওয়ার দুই ঘণ্টা পর ওই যুবকের মৃত্যু হয়।
 
ওই যুবকের নাম জাহিদুল ইসলাম (৩০)। সে ওই গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে।

জাহিদুলের বাবা আবদুর রাজ্জাক জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই শ্বাসকষ্টজনিত রোগে আক্রান্ত ছিল জাহিদুল। গত সোমবার রাতে শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি শরীরে জ্বর আসে। মঙ্গলবার সকালে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আবদুর রাজ্জাকের অভিযোগ, করোনার উপসর্গ থাকায় আমার ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তির পর কোনো চিকিৎসকই ঠিকমত তার চিকিৎসা দেয়নি। এতে সে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে বুধবার সকালে তাকে রাজশাহীতে রেফার্ড করে আমাদের হাতে ছাড়পত্র ধরিয়ে দেয়া হয়। এরপর জাহিদুলকে বাড়িতে নিয়ে আসার দুই ঘণ্টার মাথায় সে মারা যায়।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার জানান, বিষয়টি অবহিত হওয়ার পরই আমি জাহিদুলের শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। একইসঙ্গে ওই এলাকা লকডাউন করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসকদের কোনো গাফিলতির অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন জেলা প্রশাসক।

রেফার্ডের ২ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গায় করোনার উপসর্গ রোগীর মৃত্যু

 দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি 
০১ মে ২০২০, ০৮:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বলদিয়া গ্রামে করোনার উপসর্গ নিয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে রাজশাহীতে রেফার্ড করে ছাড়পত্র দেয়। পরে বাড়িতে যাওয়ার দুই ঘণ্টা পর ওই যুবকের মৃত্যু হয়।

ওই যুবকের নাম জাহিদুল ইসলাম (৩০)। সে ওই গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে।

জাহিদুলের বাবা আবদুর রাজ্জাক জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই শ্বাসকষ্টজনিত রোগে আক্রান্ত ছিল জাহিদুল। গত সোমবার রাতে শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি শরীরে জ্বর আসে। মঙ্গলবার সকালে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আবদুর রাজ্জাকের অভিযোগ, করোনার উপসর্গ থাকায় আমার ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তির পর কোনো চিকিৎসকই ঠিকমত তার চিকিৎসা দেয়নি। এতে সে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে বুধবার সকালে তাকে রাজশাহীতে রেফার্ড করে আমাদের হাতে ছাড়পত্র ধরিয়ে দেয়া হয়। এরপর জাহিদুলকে বাড়িতে নিয়ে আসার দুই ঘণ্টার মাথায় সে মারা যায়।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার জানান, বিষয়টি অবহিত হওয়ার পরই আমি জাহিদুলের শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। একইসঙ্গে ওই এলাকা লকডাউন করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসকদের কোনো গাফিলতির অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন জেলা প্রশাসক।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস