করোনাকে জয় করে রোগীর সেবায় ফিরছেন ডাক্তার দম্পতি
jugantor
করোনাকে জয় করে রোগীর সেবায় ফিরছেন ডাক্তার দম্পতি

  মোঃ রইছ উদ্দিন, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ)  

০৮ মে ২০২০, ০৩:৪১:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাকে জয় করলেন চিকিৎসা দিতে গিয়ে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত ময়মনসিংহের সেই ডাক্তার দম্পতি। তারা দ্রুত রোগীর সেবায় কাজে যোগ দেবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

তারা হলেন, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অবস্ এন্ড গাইনি বিভাগের ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা এবং তার স্বামী হালুয়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. খায়রুল হাসান খান।

সেবা দিতে গিয়ে এ দু’জন করোনায় আত্রান্ত হন গত ২০ এপ্রিল। নতুন করে নমুনা পরীক্ষার পর বৃহস্পতিবার রিপোর্ট আসে তাদের দেহে করোনা নেগেটিভ।

ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা জানান, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া তিনি আমাদের সুস্থ রেখেছেন। এই দুর্যোগ মুর্হূতে পরিবার ও চারপাশের মানুষের সার্পোট বড় মেডিসিন হিসাবে কাজ করে।

আক্রান্ত হলে পরিবার, সমাজ বা চারপাশের মানুষ কাউকে অবজ্ঞা করে দূরে ঠেলে দিবেন না। তিনি আরো বলেন, ওষুধ, পরিবারের সার্পোট আর চারপাশের মানুষ সহমর্মীতা পেলে করোনা জয় সম্ভব।

এবার সেই ডাক্তার দম্পত্তি সাহসীকতার বললে, আবারও আমরা দ্রুত চিকিৎসা সেবায়ও ফিরে আসবো। করোনাযুদ্ধে ডাক্তাররা ঘরে বসে থাকতে পারেন না।

কর্তৃপক্ষের আদেশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের সেবায় নিয়োজিত হবো। এ যুদ্ধে আমরা পরাজিত হবে না। যুদ্ধাটা আমাদের, আমরা সামনে থেকে লড়াই চালিয়ে যাবো, যতক্ষণ এ দেহে আছে প্রাণ।

এভাবেই ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা নিজের প্রতিক্রিয়া জানালেন।

করোনাযুদ্ধের বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি জানান, তার ৪ বছরের কন্যা নুসাইবাহকে ছাড়া থাকতে তাদের অনেক কষ্ট হয়েছে।

করোনাকে জয় করে রোগীর সেবায় ফিরছেন ডাক্তার দম্পতি

 মোঃ রইছ উদ্দিন, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) 
০৮ মে ২০২০, ০৩:৪১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাকে জয় করলেন চিকিৎসা দিতে গিয়ে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত ময়মনসিংহের সেই ডাক্তার দম্পতি। তারা দ্রুত রোগীর সেবায় কাজে যোগ দেবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

তারা হলেন, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অবস্ এন্ড গাইনি বিভাগের ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা এবং তার স্বামী হালুয়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. খায়রুল হাসান খান। 

সেবা দিতে গিয়ে এ দু’জন করোনায় আত্রান্ত হন গত ২০ এপ্রিল। নতুন করে নমুনা পরীক্ষার পর বৃহস্পতিবার রিপোর্ট আসে তাদের দেহে করোনা নেগেটিভ।

ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা জানান, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া তিনি আমাদের সুস্থ রেখেছেন। এই দুর্যোগ মুর্হূতে পরিবার ও চারপাশের মানুষের সার্পোট বড় মেডিসিন হিসাবে কাজ করে। 

আক্রান্ত হলে পরিবার, সমাজ বা চারপাশের মানুষ কাউকে অবজ্ঞা করে দূরে ঠেলে দিবেন না। তিনি আরো বলেন, ওষুধ, পরিবারের সার্পোট আর চারপাশের মানুষ সহমর্মীতা পেলে করোনা জয় সম্ভব।
 
এবার সেই ডাক্তার দম্পত্তি সাহসীকতার বললে, আবারও আমরা দ্রুত চিকিৎসা সেবায়ও ফিরে আসবো। করোনাযুদ্ধে ডাক্তাররা ঘরে বসে থাকতে পারেন না। 

কর্তৃপক্ষের আদেশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের সেবায় নিয়োজিত হবো। এ যুদ্ধে আমরা পরাজিত হবে না। যুদ্ধাটা আমাদের, আমরা সামনে থেকে লড়াই চালিয়ে যাবো, যতক্ষণ এ দেহে আছে প্রাণ। 

এভাবেই ডা. মুসফিকা সুলতানা শান্তা নিজের প্রতিক্রিয়া জানালেন।

করোনাযুদ্ধের বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি জানান, তার ৪ বছরের কন্যা নুসাইবাহকে ছাড়া থাকতে তাদের অনেক কষ্ট হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

০৪ ডিসেম্বর, ২০২১