করোনাকালীন চোখ ওঠায় করণীয়

  অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ ১৩ মে ২০২০, ২১:০১:৪০ | অনলাইন সংস্করণ

মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ লোক চোখ ওঠা রোগে আক্রান্ত হয়েছিল। চোখ ওঠা অর্থ চোখ লাল হওয়া, পানি পড়া, পিচুটি হওয়া, এমনকি চুলকানো বা ব্যথাও হতে পারে। কোনো কোনো সময় চোখ ফুলে যায়। অনেকের ভালো হতে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করতে হয়।

করোনা আক্রান্ত রোগীর লক্ষণগুলোর মধ্যে জ্বর, সর্দি, খুশখুশে কাশি, গলাব্যথা, মাথাব্যথা, শরীর ব্যথার সঙ্গে চোখ ওঠার লক্ষণ অন্যতম।

চোখ ওঠা রোগটি ছোঁয়াচে। ইতিমধ্যে অনেকেই টেলিফোনে জানতে চেয়েছেন চোখ ওঠলেই কি করোনা টেস্ট করাতে হবে?

বর্তমান করোনা দুর্যোগের সময় জ্বর, সর্দি, কাশির সঙ্গে চোখ ওঠা থাকলে করোনার টেস্ট করা জরুরি। আলাদা থাকতে হবে এবং ১৪ দিন অন্যের সংস্পর্শে না আসাই ভালো। মাস্ক ব্যবহার, ঘরে থাকা, ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব (২ হাত) বজায় রাখতে হবে।

চোখ লাল, চোখে বেশ ব্যথা ও দৃষ্টি শক্তি কমে যাওয়া- এ সব লক্ষণ আরও তিনটি রোগ গ্লুকোমা, ইউভাইটিস বা চোখের আঘাতের সঙ্গে চোখ ওঠার ভুল হতে পারে।

এ সব ক্ষেত্রে জরুরি চিকিৎসা নিতে চক্ষু বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরামর্শ গ্রহণ জরুরি। করোনাভাইরাস চোখের মাধ্যমে ছড়ায় বলে EYE Shield পরতে হয়। করোনা দীর্ঘদিন চোখে অবস্থান করে, তাই চোখে হাত দেয়া উচিত নয়। শুধু চোখ ওঠার চিকিৎসার জন্য Antibiotic eye drop ব্যবহারে উপকার পাওয়া যায়।

লেখক: অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ

সাবেক মহাসচিব, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন, ঢাকা

সাবেক উপ-উপাচার্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, শাহবাগ, ঢাকা

চেয়ারম্যান, কমিউনিটি অফথালমোলজি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, শাহবাগ, ঢাকা

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত