বছরখানেকের মধ্যে করোনার টিকা উদ্ভাবনের আশা দেখছে ইউরোপ

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ মে ২০২০, ১৭:২০:৫৫ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আগামী এক বছরের মধ্যে নতুন একটি টিকার অনুমোদন হতে পারে বলে আশা করা যাচ্ছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ওষুধের অনুমোদন দেয়া একটি সংস্থা বৃহস্পতিবার এমন তথ্য দিয়েছে।

অতি সংক্রামক কোভিড-১৯ রোগের নিরাময়ে একটি টিকা উদ্ভাবনে কাজ করে যাচ্ছে গোটা বিশ্ব। আর করোনায় সবচেয়ে বেশি আঘাত হেনেছে ইউরোপে। ইইউর আশঙ্কা, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা চীনে যদি ভাইরাসটি প্রথম আবিষ্কার করা হয়, তবে পর্যাপ্ত সরবরাহ নাও থাকতে পারে।- খবর রয়্টার্স ও দ্য সানের

ইউরোপীয় ওষুধ সংস্থার(ইএমএ) টিকা বিভাগের প্রধান মার্কো কাভাারেরি বলেন, টিকা উদ্ভাবনের প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে তারা ৩৩টি ওষুধ উৎপাদন সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। কিন্তু সেপ্টেম্বর নাগাদ কোনো টিকার প্রস্তুতি নিয়ে তিনি সন্দিহান।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, টিকা উদ্ভাবনে একেবারে শূন্য থেকে শুরু করার পর তা অনুমোদনে এখন থেকে বছরখানেকের মধ্যে আমরা আশার আলো দেখতে পারবো। যা ২০২১ সাল থেকে শুরু হবে।

টিকা পরীক্ষা-নিরীক্ষার তৃতীয় পর্যায়টি এড়িয়ে যাওয়ার বিষয়টিতে তিনি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, টিকা ফলপ্রসূ ও কার্যকর হওয়ার জন্য এটার খুবই দরকার পড়বে।

করোনাভাইরাসের জন্য ১১৫টি ভিন্ন চিকিৎসার কথাও ভেবে দেখছে ইএমএ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুসারে ভাইরাসটিতে বিশ্বজুড়ে তিন লাখের মতো লোকের মৃত্যু হয়েছে।

এসবের মধ্যে কয়েকটি চিকিৎসা চলতি গ্রীষ্মের শুরুতে অনুমোদন হতে পারে বলে জানিয়েছেন মার্কো। কিন্তু কোন কোন ওষুধগুলো অনুমোদন হতে পারে, তা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেননি ইএমএ প্রধান।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক আইনপ্রণেতা বলেন, যদি এই ব্লকের বাইরে কোনো টিকা উদ্ভাবন করা হয়, তবে ইইউ’র উচিত ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলোর মেধাস্বত্বের অধিকার হরণ করে নেয়া।

বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের পিছিয়ের পড়ার আশঙ্কা থেকেই তিনি এমনটি বলছেন।

জার্মানির ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নের (সিডিইউ) এমপি পিটার লুইস বলেন, যদি ইউরোপের বাইরে প্রথম কোনো টিকা উদ্ভাবন করা হয়, তবে সব দেশেই যাতে সেটির পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকে, তা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে।

এই এমপির শঙ্কা, আমরা সংলাপ ও সহযোগিতার কথা বলি ও তাতে আস্থা রাখি। কিন্তু অন্যরা তা প্রত্যাখ্যান করতে পারে বলেও আমাদের মাথায় রাখতে হবে। যে কারণে আমাদের একটি বিকল্প পরিকল্পনা থাকতে হবে।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত