ওএমএস'র তালিকায় আত্মীয়-স্বজন, পৌর কাউন্সিলর বরখাস্ত
jugantor
ওএমএস'র তালিকায় আত্মীয়-স্বজন, পৌর কাউন্সিলর বরখাস্ত

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি  

১৭ মে ২০২০, ২৩:৫৯:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

হতদরিদ্রদের জন্য বিশেষ ওএমএস কার্ডের তালিকায় অনিয়মের ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মকবুল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা করা হয়েছে।

রোববার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ ফারুক হোসেন স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কাউন্সিলর মাকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়ম করে একটি স্বচ্ছল পরিবারের সব সদস্য ও আত্মীয়-স্বজনসহ ১৫ জনের নাম ওএমএসের ভোক্তা তালিকায় অন্তর্ভুক্তকরণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। পাশাপাশি কেন চূড়ান্তভাবে অপসারণ করা হবে না এই বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে মাকবুল হোসেনকে ১০ কার্যদিবসের সময় দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয় সরকার বিভাগের এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের ই-মেইল পেয়েছি। এটি কাউন্সিলর মকবুল হোসেনের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাউতলি এলাকার ওএমএস ডিলার এবং জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শাহ আলমের স্ত্রী ও মেয়ে এবং তিন ভাই-বোনসহ আত্মীয়-স্বজনদের নাম ওএমএস কার্ডের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এ নিয়ে কাউন্সিলর মাকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠে। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে জেলা ওএমএস কমিটি শাহ আলমের ডিলারশিপ বাতিল করেন। পাশাপাশি ওএমএস কার্ডের তালিকা থেকে শাহ আলমের পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের নাম বাতিল করা হয়।

ওএমএস'র তালিকায় আত্মীয়-স্বজন, পৌর কাউন্সিলর বরখাস্ত

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 
১৭ মে ২০২০, ১১:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হতদরিদ্রদের জন্য বিশেষ ওএমএস কার্ডের তালিকায় অনিয়মের ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মকবুল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা করা হয়েছে।

রোববার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ ফারুক হোসেন স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কাউন্সিলর মাকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়ম করে একটি স্বচ্ছল পরিবারের সব সদস্য ও আত্মীয়-স্বজনসহ ১৫ জনের নাম ওএমএসের ভোক্তা তালিকায় অন্তর্ভুক্তকরণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। পাশাপাশি কেন চূড়ান্তভাবে অপসারণ করা হবে না এই বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে মাকবুল হোসেনকে ১০ কার্যদিবসের সময় দেয়া হয়েছে।
 
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয় সরকার বিভাগের এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের ই-মেইল পেয়েছি। এটি কাউন্সিলর মকবুল হোসেনের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাউতলি এলাকার ওএমএস ডিলার এবং জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শাহ আলমের স্ত্রী ও মেয়ে এবং তিন ভাই-বোনসহ আত্মীয়-স্বজনদের নাম ওএমএস কার্ডের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এ নিয়ে কাউন্সিলর মাকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠে। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে জেলা ওএমএস কমিটি শাহ আলমের ডিলারশিপ বাতিল করেন। পাশাপাশি ওএমএস কার্ডের তালিকা থেকে শাহ আলমের পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের নাম বাতিল করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন