শেরপুরে ২৮০ জন গর্ভবতী মাকে সেবা ও শাড়ি উপহার
jugantor
শেরপুরে ২৮০ জন গর্ভবতী মাকে সেবা ও শাড়ি উপহার

  শেরপুর প্রতিনিধি  

২২ মে ২০২০, ২১:৪৫:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুর জেলার সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের আয়োজনে গর্ভবতী মা সমাবেশ ও মাঠ দিবস শেষ হয়েছে। সেবার পাশাপাশি প্রত্যেক মাকে শেরপুর সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. শারমিন রহমান অমির পক্ষ থেকে একটি করে শাড়ি দেয়া হয়।

ডা. অমি জাতীয় সংসদের হুইপ আতিউর রহমান আতিক এমপির মেয়ে।

করোনার কারণে গর্ভবতী মায়েরা শহরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে না পারায় শেরপুর সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে প্রতিদিন দুটি করে ইউনিয়নে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি ইউনিয়নের প্রতিদিন ২০ জন করে গর্ভবতী মাকে চিকিৎসা প্রদান করায় এই কর্মসূচির আওতায় ২৮০ জন মা সেবা পেয়েছেন। কামারিয়া ও ভাতশালা ইউনিয়নে গর্ভবতী মায়েদের সেবা দানের মাধ্যমে সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির সমাপ্তি ঘটে।

ডা. শারমিন রহমান অমির নেতৃত্বে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ও পাড়া-মহল্লায় মাঠ দিবসে গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে ওষুধপত্র দেয়া হয়। এ ছাড়া প্রত্যেক গর্ভবতী মাকে তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ঈদ উপহার হিসেবে ১টি করে শাড়ি বিতরণ করা হয়। এতে গর্ভবতী মায়েরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে ইন্টার্নি ডা. মো. মজনু মিয়া, ডা. আবু সায়েম, ডা. মুহাইমিনুল ইসলাম শান্ত, ডা. রকিবুল হাসান রোকন, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মো. সাজ্জাদুর রহমান, শফিকুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন আহম্মেদ, নার্স মিথিলা আক্তার উপস্থিত ছিলেন।

শেরপুরে ২৮০ জন গর্ভবতী মাকে সেবা ও শাড়ি উপহার

 শেরপুর প্রতিনিধি 
২২ মে ২০২০, ০৯:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুর জেলার সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের আয়োজনে গর্ভবতী মা সমাবেশ ও মাঠ দিবস শেষ হয়েছে। সেবার পাশাপাশি প্রত্যেক মাকে শেরপুর সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. শারমিন রহমান অমির পক্ষ থেকে একটি করে শাড়ি দেয়া হয়।

ডা. অমি জাতীয় সংসদের হুইপ আতিউর রহমান আতিক এমপির মেয়ে।

করোনার কারণে গর্ভবতী মায়েরা শহরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে না পারায় শেরপুর সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে প্রতিদিন দুটি করে ইউনিয়নে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি ইউনিয়নের প্রতিদিন ২০ জন করে গর্ভবতী মাকে চিকিৎসা প্রদান করায় এই কর্মসূচির আওতায় ২৮০ জন মা সেবা পেয়েছেন। কামারিয়া ও ভাতশালা ইউনিয়নে গর্ভবতী মায়েদের সেবা দানের মাধ্যমে সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির সমাপ্তি ঘটে।

ডা. শারমিন রহমান অমির নেতৃত্বে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ও পাড়া-মহল্লায় মাঠ দিবসে গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে ওষুধপত্র দেয়া হয়। এ ছাড়া প্রত্যেক গর্ভবতী মাকে তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ঈদ উপহার হিসেবে ১টি করে শাড়ি বিতরণ করা হয়। এতে গর্ভবতী মায়েরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে ইন্টার্নি ডা. মো. মজনু মিয়া, ডা. আবু সায়েম, ডা. মুহাইমিনুল ইসলাম শান্ত, ডা. রকিবুল হাসান রোকন, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মো. সাজ্জাদুর রহমান, শফিকুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন আহম্মেদ, নার্স মিথিলা আক্তার উপস্থিত ছিলেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস