গোপালপুরে ঈদ উপহার নিয়ে রোগীর বাড়িতে ডাক্তার
jugantor
গোপালপুরে ঈদ উপহার নিয়ে রোগীর বাড়িতে ডাক্তার

  গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২৩ মে ২০২০, ২৩:৩৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

ডা. আলীম আল রাজী লিটন
ডা. আলীম আল রাজী লিটন

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে টাঙ্গাইলের গোপালপুরে উপহার নিয়ে রোগীর বাড়ীতে হাজির হলেন গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলীম আল রাজী লিটন।

শনিবার দুপুরে উপজেলার আলমনগর ইউনিয়নের নবগ্রাম উত্তরপাড়া রোগীর নিজ বাড়িতে গিয়ে ঈদ উপহার পৌঁছে দেন তিনি।

উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল লুঙ্গি, সেমাই, চিনি ও সাবান। এ সময় তিনি ওই রোগীর পাশে দীর্ঘক্ষণ বসে তার বর্তমান শারীরিক ও মানুষিক অবস্থার কথা গভীর মনোযোগ সহকারে শুনে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেন।

এ সব উপহার সামগ্রী ও তাকে কাছে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে সেই রোগী বলেন, একজন রোগীর বাড়িতে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার এভাবে এসে খোঁজ খবর নেয়া আমার কাছে একটি বিরল ঘটনা। তার আন্তরিকতা ও রোগীর প্রতি ভালোবাসা দেখে সত্যিই মুগ্ধ হলাম। তিনি শুধু আমার নয়, পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজন মোতাবেক ব্যবস্থাপত্র দিয়ে যান।

এ বিষয়ে ডা. আলীম আল রাজী জানান, সারাক্ষণ হাসপাতাল ও রোগীদের নিয়ে এমনভাবে ব্যস্ত থাকতে হয় যে, নিজের পরিবারকেই সময় দিতে পারি না। তারমধ্যে কিছু সময় বের করে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে ফিরে যাওয়া রোগীদের বাড়িতে গিয়ে খোঁজ নেয়া আমার দায়িত্ব বলেই মনে করি। এতে রোগীদের মনোবল বৃদ্ধি পায়। মূলত ডাক্তার-রোগীর সম্পর্ক আমার কাছে পরিবারের সদস্যদের মতই।

গোপালপুরে ঈদ উপহার নিয়ে রোগীর বাড়িতে ডাক্তার

 গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২৩ মে ২০২০, ১১:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ডা. আলীম আল রাজী লিটন
ডা. আলীম আল রাজী লিটন

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে টাঙ্গাইলের গোপালপুরে উপহার নিয়ে রোগীর বাড়ীতে হাজির হলেন গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলীম আল রাজী লিটন।

শনিবার দুপুরে উপজেলার আলমনগর ইউনিয়নের নবগ্রাম উত্তরপাড়া রোগীর নিজ বাড়িতে গিয়ে ঈদ উপহার পৌঁছে দেন তিনি।

উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল লুঙ্গি, সেমাই, চিনি ও সাবান। এ সময় তিনি ওই রোগীর পাশে দীর্ঘক্ষণ বসে তার বর্তমান শারীরিক ও মানুষিক অবস্থার কথা গভীর মনোযোগ সহকারে শুনে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেন।

এ সব উপহার সামগ্রী ও তাকে কাছে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে সেই রোগী বলেন, একজন রোগীর বাড়িতে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার এভাবে এসে খোঁজ খবর নেয়া আমার কাছে একটি বিরল ঘটনা। তার আন্তরিকতা ও রোগীর প্রতি ভালোবাসা দেখে সত্যিই মুগ্ধ হলাম। তিনি শুধু আমার নয়, পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজন মোতাবেক ব্যবস্থাপত্র দিয়ে যান।

এ বিষয়ে ডা. আলীম আল রাজী জানান, সারাক্ষণ হাসপাতাল ও রোগীদের নিয়ে এমনভাবে ব্যস্ত থাকতে হয় যে, নিজের পরিবারকেই সময় দিতে পারি না। তারমধ্যে কিছু সময় বের করে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে ফিরে যাওয়া রোগীদের বাড়িতে গিয়ে খোঁজ নেয়া আমার দায়িত্ব বলেই মনে করি। এতে রোগীদের মনোবল বৃদ্ধি পায়। মূলত ডাক্তার-রোগীর সম্পর্ক আমার কাছে পরিবারের সদস্যদের মতই।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস