শ্রীমঙ্গলে করোনার উপসর্গ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু

লাশ সৎকারে পুলিশ ও ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন  

  সৈয়দ সালাউদ্দিন, শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি ২৮ মে ২০২০, ১৭:৫৫:১২ | অনলাইন সংস্করণ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে করোনার উপসর্গ নিয়ে বিকাশ দত্ত (৬৫) নামে এক মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি উপজেলার সবুজবাগ এলাকার বাসিন্দা।

গত এক সপ্তাহ ধরে করোনার উপসর্গ নিয়ে ভুগছিলেন তিনি, বুধবার রাত ৯টার দিকে নিজ বাসায় মারা যান এ মুক্তিযোদ্ধা।

খবর পেয়ে তার বাসায় ছুটে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম এবং লাশ সৎকার পর্যন্ত তিনি সব কিছু তদারকি করেন।

তিনি ডেকে পাঠান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতদের সৎকারে উপজেলা প্রশাসনের গঠিত কমিটি 'ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন' এর কর্মীদের।

এরমধ্যে খবর পেয়ে উপস্থিত হোন শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা।

এরই মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে পাঠানো টিম মরদেহ থেকে করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ করে। রাত তখন প্রায় ১টা, পিপিই পরিহিত এএসপি আশরাফুজ্জামান ও অন্য পুলিশ সদস্যরা ঘর থেকে লাশ বাইরে রেব করে গাড়িতে তুলে পৌর শ্মশান ঘাটে দাহ করতে নিয়ে যান।

সেখানে ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন উপজেলা কমিটির টিম প্রধান মাওলানা এমএ রহিম নোমানীর নেতৃত্বে জেলা টিম প্রধান এহসানুল হক জাকারিয়া ও ওই সংগঠনের হিন্দু লাশ সৎকারের সদস্য মঞ্জু দাসসহ অন্য সদস্যরা অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে উপস্থিত হন।

ট্রাকে লাশ তোলা থেকে শুরু করে শ্মশান ঘাটে লাশ নামানো পর্যন্ত পুলিশের পাশাপাশি সহযোগিতা করেন ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যরা। পৌর শ্মশানঘাটে বাবার মুখাগ্নি করেন বিকাশ দত্তের ছেলে বাপ্পা দত্ত। লাশ সৎকারের এ কার্যক্রম ভোর ৫টা পর্যন্ত চলে। ততক্ষণ পর্যন্ত ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নজরুল ইসলাম জানান, যথাযথ সংক্রমণবিধি অনুসরণ করে বুধবার দিবাগত রাত থেকে বৃহস্পতিবার ভোররাত পর্যন্ত প্রশাসনের তালিকাভুক্ত ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যরা বীর মুক্তিযোদ্ধা যথোপযুক্ত সম্মানের সঙ্গে বিকাশ দত্তের সৎকার কাজ সম্পন্ন করেন।

একরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের উপজেলা টিম প্রধান মাওলানা এমএ রহিম নোমানী বলেন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলামের নির্দেশনায় ফাউন্ডেশনের সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের সৎকার কাজ সম্পাদন করেন।

পাশাপাশি সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা আমাদের সহযোগিতা করেন। তিনি আরও বলেন,করোনাকালীন এই মহামারী সময়ে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে আমরা মানুষের পাশে আছি, থাকব ইনশাআল্লাহ।

এ ব্যাপারে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান জানান, পুলিশ ও ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যরা মিলেমিশে একজন মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের মরদেহ সৎকার কাজ করতে পেরে আমরা গর্ব বোধ করছি। তিনি আরও জানান, লাশ সৎকারের সময় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের চার সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

আরও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমুদুর রহমান মামুন, ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব জসিম উদ্দিন।

জসিম উদ্দিন লাশ বহনের জন্য ট্রাক ভাড়া করে দেন বলে জানান মাওলানা এম এ রহিম নোমানী।

এ দিকে মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের অন্তীম মহুর্তে ও লাশ সৎকারে ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন ও পুলিশের মানবিক অবদানে ফেসবুকে ও সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে।

অনেকেই লিখেছেন, সম্প্রদায়িক সম্প্রতির অন্যন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন হলো মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের সৎকার কার্যক্রমে মুসলিমদের সহযোগিতার মাধ্যমে।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সাংবাদিক ইসমাইল মাহমুদ তার ফেসবুক আইডিতে লিখেন, পুলিশ ও কওমী মাদ্রাসায় ছাত্রদের নিয়ে যাদের এলার্জি ছিলো, তাদের গালে এটা একটা চপেটাঘাত। মানুষ মানুষের জন্য, এ সত্য আরেকবার প্রতিষ্ঠিত করলেন মানবিক পুলিশ বাহিনী ও ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যরা।

শুধু বীর মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্তের সৎকারই নয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করা শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর মো. আব্দুল আহাদের লাশও দাফন করেছেন করেছেন পুলিশ বাহিনীর গর্বিত সদস্যরা এবং কওমী মাদ্রাসায় পড়ুয়াদের নিয়ে গঠিত ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন। শতবার স্যালুট পুলিশ ও ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশনের সদস্যদের প্রতি।

অপর দিকে, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, শ্রীমঙ্গলে হিন্দু সংগঠনগুলোর কাজ কী?

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত