করোনায় মারা গেলেন কক্সবাজারের সাংবাদিক আবদুল মোনায়েম খান

  কক্সবাজার প্রতিনিধি ০৭ জুন ২০২০, ২০:৩৮:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারে এবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সিনিয়র সাংবাদিক আবদুল মোনায়েম খান (৫৪)। রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

তিনিসহ জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মারা গেছেন ২২ জন।

সিনিয়র সাংবাদিক মোনায়েম খান কক্সবাজার শহরের তারাবনিয়ার ছড়া কবরস্থান রোডের কানুনগো বদিউল আলমের জ্যেষ্ঠ ছেলে। সর্বশেষ তিনি ইংরেজি দৈনিক ডেইলি ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আবদুল মোনায়েম খানের সঙ্গে থাকা তার সহধর্মিণীর ভাই জয়নাল আবেদীন জানান, কিছুদিন জ্বরে ভোগার পর গত ৩১ মে সাংবাদিক মোনায়েম ও তার সন্তান কক্সবাজার সিটি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র মোহাইমেন করোনাভাইরাস পজিটিভ হওয়ার রিপোর্ট আসে। শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়ায় ১ জুন রাতে মোনায়েমকে উখিয়া সারি আইসোলেসন অ্যান্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে গত ৩ জুন তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে করোনা ওয়ার্ডেও রেড জোনে চিকিৎসাধীন ছিলেন সাংবাদিক মোনায়েম।

রোববার ভোরে তার অবস্থার অবনতি হলে কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আজম নাসিরের সহযোগিতায় দুপুর ২টার দিকে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়। আইসিইউতে নেয়ার পরপরই মোনায়েম খানের মৃত্যু হয়।

এ দিকে কক্সবাজারের সিনিয়র সাংবাদিক মোনায়েম খানের মৃত্যুতে সাংবাদিক সমাজের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পাশাপাশি মরহুম মোনায়েমের আত্মার মাগফিরাত ও শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে বিবৃতি দিয়েছে কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের চৌধুরী।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত