চাচী শ্বাশুড়ি থেকে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন স্বাস্থ্য সচিবের স্ত্রী

  এ টি এম নিজাম, কিশোরগঞ্জ ব্যুরো ১৪ জুন ২০২০, ১৬:৫৯:৫৯ | অনলাইন সংস্করণ

স্বাস্থ্য সচিব আব্দুল মান্নানের স্ত্রী সহধর্মিণী কামরুন্নাহারের কফিন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীর মানিকখালী গ্রামের বাড়িতে পৌঁছালে এক শোকাবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়। ছবি: যুগান্তর

মাত্র ১৪ দিন আগে পরিবারের মুরুব্বি-স্বজনদের সান্নিধ্য লাভ করতে এবং ছেলেমেয়েদের নিয়ে মুক্ত হাওয়ায় ঘুরে বেড়াতে বাড়িতে এসেছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিবের প্রিয় সহধর্মিণী কামরুন্নাহার জেবু। আর সেখান থেকেই করোনা উপসর্গের চাচী শ্বাশুড়ির দ্বারা করোনাক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়লেন তিনি।

নমুনা পরীক্ষায় কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হলে আইসোলেশনে চলে গিয়ে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শেষ পর্যন্ত দ্রুত শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে( সিএমটইচে) ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায়ই ১৩ জুন শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ১৪ জুন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কফিনে চড়ে আবার স্বামী বাড়িতে আসলেন। চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন পারিবারিক গোরস্থানে।

কামরুন্নাহার জেবু স্বামী স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নানের মামাতো বোন। তিনি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী গ্রামের মেয়ে।

পরিবারসহ ঘনিষ্ঠ একাধিক সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় হোম কোয়ারেন্টিনে দুই ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে খাঁচাবন্দি জীবন কাটানো ভাল লাগছিল না স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নানের সহধর্মিণী কামরুন্নাহার জেবুর।

ছেলে-মেয়েরাও এ পরিস্থিতিতে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে ওঠেছিল। তা-ই ছেলেমেয়েদের নিয়ে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস এবং মুক্ত হাওয়ায় ঘুরে বেড়াতে এবং পরিবারের মুরুব্বি- প্রিয় স্বজনদের মুখ দেখতে স্বামীর কাছে বাড়িতে আসার বায়না ধরেন। স্ত্রী ও সন্তানদের এমন আকুতিতে শেষ পর্যন্ত রাজি হন স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান।

আগে থেকেই নিজ জেলা কিশোরগঞ্জের করোনা প্রতিরোধ ও ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রমের সমন্বয়কের দায়িত্ব প্রাপ্ত সচিব হিসেবে তিনি ৩১ মে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবরেটরি উদ্বোধন করার কথা ছিল তার। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে তিনি আগের দিন ৩০ মে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার চান্দপুর ইউনিয়নের মানিকখালীর গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান।

স্ত্রী কামরুন্নাহার জেবু প্রিয় সন্তানদের নিয়ে মুক্ত হাওয়ায় ঘুরে বেড়িয়ে,পরিবারের মুরুব্বি-স্বজনদের সান্নিধ্যে এসে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন। প্রাণ খোলে নানা বিষয় নিয়ে আলাপচারিতায় মেতে উঠে কুশল বিনিময় করেন।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান যুগান্তরকে জানান, এ সময় তিনি করোনা উপসর্গের চাচী শ্বাশুড়িরও সংস্পর্শে যান। নমুনা পরীক্ষায় তার চাচী শ্বাশুড়ির কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। এদিকে ঢাকায় ফেরার পর স্বাস্থ্য সচিব পত্নী কামরুন্নাহার জেবুর মধ্যেও করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। নমুনা পরীক্ষায় তার ও কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়েশা আক্তার জানান, করোনাভাইরাস আক্রান্ত স্বাস্থ্য সচিবের সহধর্মিণী কামরুন্নাহার জেবু ১০ জুন বুধবার সিএমএইচে ভর্তি হন।

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী মডেল থানার ওসি মো. এম এ জলিল যুগান্তরকে জানান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল মান্নানের স্ত্রী কামরুন্নাহার জেবুর মরদেহ ভোর রাতেই বাড়িয়ে এসে পৌঁছে। আজ রোববার সকাল সাড়ে আটটার দিকে প্রশাসন, পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্তব্যরত লোকজনের উপস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জানাজা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নানের স্ত্রী কামরুন্নাহার জেবুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এবং মরহুমার শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত