গোপালগঞ্জে করোনা সন্দেহে হোমিও চিকিৎসকের বাড়ির প্রবেশ পথে বেড়া

  কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি ২৮ জুন ২০২০, ২১:৫৬:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে এক হোমিও চিকিৎসকের বাড়ির প্রবেশ পথে বেড়া দিয়ে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিবেশী। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে গ্রাম পুলিশ সেই বেড়া খুলে দিতে গেলে ওই প্রতিবেশী গ্রাম পুলিশকে মারধর করেন।

রোববার সকালে উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের কালিকাবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে ওই গ্রাম পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

জানা গেছে, কালিকাবাড়ি গ্রামের শশিভূষণ মণ্ডলের ছেলে সূর্যকান্ত মণ্ডল গত ১ সপ্তাহ আগে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন। এ খবর জানতে পেরে তার প্রতিবেশী মহানন্দ হালদারের ছেলে তারক হালদার বাড়ির প্রবেশ পথে বেড়া দিয়ে হোমিও চিকিৎসক সূর্যকান্ত মণ্ডলের যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দেন।

বিষয়টি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সূর্যকান্ত মণ্ডল স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদারকে জানান। চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদারের নির্দেশে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ অমল পাণ্ডে বেড়া খুলে দিতে গেলে তারক হালদার লোকজন নিয়ে অমল পাণ্ডেকে মারধর করেন।

এ বিষয়ে তারক হালদারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি অমল পাণ্ডেকে মারধরের কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি আমার জায়গায় বেড়া দিয়েছি। সূর্যকান্ত মণ্ডলের বাড়িতে প্রবেশের অন্য পথ রয়েছে।

হোমিও চিকিৎসক সূর্যকান্ত মণ্ডল বলেন, তারক হালদার বেড়া দিয়ে আমার যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দিয়েছেন। বিষয়টি আমি চেয়ারম্যান সাহেবকে জানালে তিনি স্থানীয় গ্রাম পুলিশ অমর পাণ্ডেকে বেড়া খুলে দিতে বলেন। অমল পাণ্ডে বেড়া খুলে দিতে আসলে তারক হালদার তাকে মারধর করেন।

চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদার বলেন, করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে তারক হালদার বেড়া দিয়ে সূর্যকান্ত মণ্ডলের বাড়ির পথ বন্ধ করে দেন। বিষয়টি আমি জানার পর গ্রাম পুলিশ অমল পাণ্ডেকে বেড়া খুলে দিতে বলি। গ্রাম পুলিশ অমল বেড়া খুলতে গেলে তাকে মারধর করেন। পরবর্তীকালে আমি লোক পাঠিয়ে বেড়া খুলে দেই।

গ্রাম পুলিশ অমল পাণ্ডে বলেন, এ ঘটনায় আমি বাদী হয়ে কোটালীপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।

কোটালীপাড়া থানার ওসি শেখ লুৎফর রহমান বলেন, এ ব্যাপারে অভিযোগ পেয়েছি। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। মামলা দায়েরের পর পুলিশ তদন্ত শুরু করবে।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত