বাগেরহাটে করোনা উপসর্গে দুইজনের মৃত্যু
jugantor
বাগেরহাটে করোনা উপসর্গে দুইজনের মৃত্যু

  বাগেরহাট প্রতিনিধি  

১২ জুলাই ২০২০, ২৩:০০:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বাগেরহাটে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- বাগেরহাট জেলা আনসার ভিডিপির সহকারী কমান্ডেন্ট মো. মিজানুর রহমান (৪৫)। এই কর্মকর্তার বাড়ি বরিশালে।

অন্যজন ফকিরহাট উপজেলার সদর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের সদস্য আবদুস সালাম (৫৫)। তাদের দু'জনেরই নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

গ্রাম পুলিশের সদস্যকে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে। বাগেরহাট সহকারী জেলা কমান্ডেন্টের লাশ তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বাগেরহাটে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বাগেরহাট জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩১১ জনে। এর মধ্যে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ১৯০ জন সুস্থ হয়েছেন। অন্যরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বাগেরহাট জেলা আনসার ভিডিপির কমান্ডেন্ট নাহিদ হাসান জানান, সহকারী জেলা কমান্ডেন্ট মো. মিজানুর রহমান আনসার ভিডিপি কার্যালয়ের ব্যারাকে একাই থাকতেন। গত কয়েক দিন ধরে তিনি জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও এ্যাজমা রোগে ভুগছিলেন। তিনি হাসপাতালে না গিয়ে ব্যারাকে বসেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। দুপুরে হঠাৎ তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে আমরা তাকে চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। তার মৃত্যুর কারণ জানতে নমুনা সংগ্রহ করেছে হাসপাতালের চিকিৎসকরা। এই কর্মকর্তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে লাশ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার জানান, ফকিরহাট সদর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশের সদস্য আবদুস সালাম নামে এক ব্যক্তি করোনা উপসর্গ নিয়ে খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তাকে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে।

বাগেরহাটে করোনা উপসর্গে দুইজনের মৃত্যু

 বাগেরহাট প্রতিনিধি 
১২ জুলাই ২০২০, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাগেরহাটে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- বাগেরহাট জেলা আনসার ভিডিপির সহকারী কমান্ডেন্ট মো. মিজানুর রহমান (৪৫)। এই কর্মকর্তার বাড়ি বরিশালে।

অন্যজন ফকিরহাট উপজেলার সদর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের সদস্য আবদুস সালাম (৫৫)। তাদের দু'জনেরই নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

গ্রাম পুলিশের সদস্যকে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে। বাগেরহাট সহকারী জেলা কমান্ডেন্টের লাশ তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বাগেরহাটে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বাগেরহাট জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩১১ জনে। এর মধ্যে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ১৯০ জন সুস্থ হয়েছেন। অন্যরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বাগেরহাট জেলা আনসার ভিডিপির কমান্ডেন্ট নাহিদ হাসান জানান, সহকারী জেলা কমান্ডেন্ট মো. মিজানুর রহমান আনসার ভিডিপি কার্যালয়ের ব্যারাকে একাই থাকতেন। গত কয়েক দিন ধরে তিনি জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও এ্যাজমা রোগে ভুগছিলেন। তিনি হাসপাতালে না গিয়ে ব্যারাকে বসেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। দুপুরে হঠাৎ তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে আমরা তাকে চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। তার মৃত্যুর কারণ জানতে নমুনা সংগ্রহ করেছে হাসপাতালের চিকিৎসকরা। এই কর্মকর্তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে লাশ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।
 
ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অসীম কুমার সমাদ্দার জানান, ফকিরহাট সদর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশের সদস্য আবদুস সালাম নামে এক ব্যক্তি করোনা উপসর্গ নিয়ে খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তাকে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করা হয়েছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস