মাস্ক না পরা নিয়ে ভারতে তুমুল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল তরুণীর
jugantor
মাস্ক না পরা নিয়ে ভারতে তুমুল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল তরুণীর

  অনলাইন ডেস্ক  

১৩ জুলাই ২০২০, ১০:৩৭:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

মাস্ক না পরা নিয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে দুপক্ষে তুমুল মারামারি হয়েছে হয়েছে। সংঘর্ষের সময় বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে লাঠির আঘাতে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে।

গত ৩ জুলাই রাজ্যের গুন্টুর জেলায় এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে। তবে রোববারের আগে বিষয়টি সেভাবে প্রকাশ্যে আসেনি। কারণ শনিবার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে মেয়েটি।

পুলিশ সূত্রের বরাতে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময় জানায়, ঘটনার সূত্রপাত ৩ জুলাইয়ের কয়েকদিন আগে। ব্যক্তিগত কাজে ক্রান্তি ইয়ালামান্ডালা পাশের গ্রামে গিয়েছিলেন। তখন তার মুখে মাস্ক ছিল না। ওই সময় একদল যুবক এই নিয়ে প্রশ্ন করতেই দুপক্ষের তর্ক হয়। পরে পরিস্থিতি শান্ত হলেও, ক্ষোভ জিইয়ে ছিল।

এরপর ৩ জুলাই সেই যুবকদেরই মাস্ক ছাড়া দেখতে পান ক্রান্তির এক আত্মীয়। এবার ক্রান্তি তাদের ওপর চড়াও হন। মুখে কেন মাস্ক নেই, এই প্রশ্ন তুলে তাদের জেরা শুরু করেন। কথা কাটাকাটির থেকেই মুহূর্তে হাতাহাতি শুরু হয়। প্রকাশ্যেই মারামারিতে জড়ায় দুপক্ষ।

বাবাকে বাঁচাতে তখনই ছুটে আসেন ক্রান্তির মেয়ে, ফাতিমা। ক্রান্তিকে লাঠি দিয়ে মারতে এলে রুখে দাঁড়ান তার মেয়ে। ওই যুবকরা লাঠি দিয়ে ফাতিমার মাথার আঘাত করেন।

পরে তাকে গুন্টুরের জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। টানা এক সপ্তাহ চিকিৎসাধীন থাকার পর শনিবার ভোরে মৃত্যু হয় ফাতিমার।এরপরেই ক্রান্তির অভিযোগের ভিত্তিতে ৪ যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

মাস্ক না পরা নিয়ে ভারতে তুমুল সংঘর্ষ, প্রাণ গেল তরুণীর

 অনলাইন ডেস্ক 
১৩ জুলাই ২০২০, ১০:৩৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাস্ক না পরা নিয়ে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে দুপক্ষে তুমুল মারামারি হয়েছে হয়েছে। সংঘর্ষের সময় বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে লাঠির আঘাতে এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে। 

গত ৩ জুলাই রাজ্যের গুন্টুর জেলায় এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে। তবে রোববারের আগে বিষয়টি সেভাবে প্রকাশ্যে আসেনি। কারণ শনিবার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে মেয়েটি।

পুলিশ সূত্রের বরাতে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময় জানায়, ঘটনার সূত্রপাত ৩ জুলাইয়ের কয়েকদিন আগে। ব্যক্তিগত কাজে ক্রান্তি ইয়ালামান্ডালা পাশের গ্রামে গিয়েছিলেন। তখন তার মুখে মাস্ক ছিল না। ওই সময় একদল যুবক এই নিয়ে প্রশ্ন করতেই দুপক্ষের তর্ক হয়। পরে পরিস্থিতি শান্ত হলেও, ক্ষোভ জিইয়ে ছিল। 

এরপর ৩ জুলাই সেই যুবকদেরই মাস্ক ছাড়া দেখতে পান ক্রান্তির এক আত্মীয়। এবার ক্রান্তি তাদের ওপর চড়াও হন। মুখে কেন মাস্ক নেই, এই প্রশ্ন তুলে তাদের জেরা শুরু করেন। কথা কাটাকাটির থেকেই মুহূর্তে হাতাহাতি শুরু হয়। প্রকাশ্যেই মারামারিতে জড়ায় দুপক্ষ।

বাবাকে বাঁচাতে তখনই ছুটে আসেন ক্রান্তির মেয়ে, ফাতিমা। ক্রান্তিকে লাঠি দিয়ে মারতে এলে রুখে দাঁড়ান তার মেয়ে। ওই যুবকরা লাঠি দিয়ে ফাতিমার মাথার আঘাত করেন। 

পরে তাকে গুন্টুরের জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। টানা এক সপ্তাহ চিকিৎসাধীন থাকার পর  শনিবার ভোরে মৃত্যু হয় ফাতিমার। এরপরেই ক্রান্তির অভিযোগের ভিত্তিতে ৪ যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস