শিশু সন্তানসহ যুগান্তরের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত
jugantor
শিশু সন্তানসহ যুগান্তরের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত

  সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি  

২১ জুলাই ২০২০, ২১:০৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তরের সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি, স্থানীয় দৈনিক আজকের সিরাজগঞ্জের সম্পাদক এবং সিরাজগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি জেহাদুল ইসলাম ও তার নয় মাসের শিশু সন্তান জাইন আব্দুল্লাহ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। 

এর আগে সাংবাদিক জেহাদুল ইসলামের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ১৯ জুলাই রোববার দুপুরে তিনিসহ তার স্ত্রী নাসিমা খাতুন ও শিশু সন্তান মো. জাইন আব্দুল্লাহর নমুনা সংগ্রহ করে শহীদ এম. মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। 

মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ সিলিভ সার্জন অফিস থেকে ডা. সৌমিত্র বসাক ও পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে এসআই সানোয়ার মোবাইলে দু’জনের করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

সাংবাদিক জেহাদুল ইসলাম জানান, প্রায় ১৮-২০ দিন ধরে শরীরে হালকা ব্যথা ও হালকা জ্বর অনুভব করছিলাম। এ অবস্থায় গত ৯ জুলাই বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ফয়সাল আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইলে ৭ দিনের জন্য ব্যবস্থাপত্র দেন। 

তার দেয়া চিকিৎসা গ্রহণের পর রোববার অন্যান্য উপসর্গের সঙ্গে স্বল্পমাত্রায় শ্বাসকষ্ট ও খুশখুশি কাশি দেখা দেয়। ওই দিন বিকালে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম হীরার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি আরেকটি ব্যবস্থাপত্র দেন। তার দেয়া ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টিন থেকে চিকিৎসা নিচ্ছি। সাংবাদিক জেহাদুল ইসলাম তিনি ও তার সন্তানের রোগমুক্তি কামনায় সবার দোয়া কামনা করেছেন।
 

শিশু সন্তানসহ যুগান্তরের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত

 সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি 
২১ জুলাই ২০২০, ০৯:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তরের সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি, স্থানীয় দৈনিক আজকের সিরাজগঞ্জের সম্পাদক এবং সিরাজগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি জেহাদুল ইসলাম ও তার নয় মাসের শিশু সন্তান জাইন আব্দুল্লাহ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

এর আগে সাংবাদিক জেহাদুল ইসলামের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ১৯ জুলাই রোববার দুপুরে তিনিসহ তার স্ত্রী নাসিমা খাতুন ও শিশু সন্তান মো. জাইন আব্দুল্লাহর নমুনা সংগ্রহ করে শহীদ এম. মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজগঞ্জ সিলিভ সার্জন অফিস থেকে ডা. সৌমিত্র বসাক ও পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে এসআই সানোয়ার মোবাইলে দু’জনের করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সাংবাদিক জেহাদুল ইসলাম জানান, প্রায় ১৮-২০ দিন ধরে শরীরে হালকা ব্যথা ও হালকা জ্বর অনুভব করছিলাম। এ অবস্থায় গত ৯ জুলাই বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ফয়সাল আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইলে ৭ দিনের জন্য ব্যবস্থাপত্র দেন।

তার দেয়া চিকিৎসা গ্রহণের পর রোববার অন্যান্য উপসর্গের সঙ্গে স্বল্পমাত্রায় শ্বাসকষ্ট ও খুশখুশি কাশি দেখা দেয়। ওই দিন বিকালে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম হীরার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি আরেকটি ব্যবস্থাপত্র দেন। তার দেয়া ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টিন থেকে চিকিৎসা নিচ্ছি। সাংবাদিক জেহাদুল ইসলাম তিনি ও তার সন্তানের রোগমুক্তি কামনায় সবার দোয়া কামনা করেছেন।