বগুড়ায় করোনা উপসর্গে প্রবীণ চিকিৎসকের মৃত্যু
jugantor
বগুড়ায় করোনা উপসর্গে প্রবীণ চিকিৎসকের মৃত্যু

  বগুড়া ব্যুরো  

০২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৪২:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা উপসর্গে বিএমএ বগুড়া শাখার সদস্য ও প্রবীণ চিকিৎসক বিএম ফারুক (৬৭) মারা গেছেন। মঙ্গলবার রাতে তিনি বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতউল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে মারা যান।

বুধবার বাদ জোহর শহরের খান্দারে রিয়াজুল জান্নাত মসজিদ প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তার মরদেহ ভাইপাগলা কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

চিকিৎসকরা জানান, বগুড়া শহরের খান্দার এলাকার বাসিন্দা ডা. বিএম ফারুক সিলেট মেডিকেল কলেজ (ব্যাচ সি-১০) থেকে এমবিবিএস পাস করেন। তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রভাষক হিসেবে অবসরগ্রহণ করেন। এরপর বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে অনিক এক্সরে সেন্টারে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতেন। তার ছেলে ডা. শাহরিয়ার ফারুক অনিক বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক বিভাগের রেজিস্ট্রার।

ডা. শাহরিয়ার ফারুক অনিক জানান, তার বাবা ডা. বিএম ফারুক গত ৩১ জুলাই করোনা পজিটিভ হন। তাকে প্রথমে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়। এরপর ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’সপ্তাহ চিকিৎসা নেন। সেখানে সুস্থ হওয়ার পর গত ২৭ আগস্ট করোনা নেগেটিভ হন।

তিনি আরও জানান, করোনা নেগেটিভ হলেও তার শরীরে উপসর্গ ছিল। অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতউল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে মঙ্গলবার রাত ১টা ৪০ মিনিটে মারা যান। আগামী ৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বাদ জুমা স্বল্প পরিসরে পারিবারিকভাবে কুলখানি অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে বিএমএ বগুড়া শাখার প্রবীণ সদস্য ডা. বিএম ফারুকের মৃত্যুতে সংগঠনের সভাপতি ডা. মোস্তফা আলম নান্নু ও সাধারণ সম্পাদক ডা. রেজাউল আলম জুয়েল এক বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

বগুড়ায় করোনা উপসর্গে প্রবীণ চিকিৎসকের মৃত্যু

 বগুড়া ব্যুরো 
০২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা উপসর্গে বিএমএ বগুড়া শাখার সদস্য ও প্রবীণ চিকিৎসক বিএম ফারুক (৬৭) মারা গেছেন। মঙ্গলবার রাতে তিনি বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতউল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে মারা যান।

বুধবার বাদ জোহর শহরের খান্দারে রিয়াজুল জান্নাত মসজিদ প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তার মরদেহ ভাইপাগলা কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

চিকিৎসকরা জানান, বগুড়া শহরের খান্দার এলাকার বাসিন্দা ডা. বিএম ফারুক সিলেট মেডিকেল কলেজ (ব্যাচ সি-১০) থেকে এমবিবিএস পাস করেন। তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রভাষক হিসেবে অবসরগ্রহণ করেন। এরপর বগুড়া শহরের নবাববাড়ি সড়কে অনিক এক্সরে সেন্টারে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতেন। তার ছেলে ডা. শাহরিয়ার ফারুক অনিক বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক বিভাগের রেজিস্ট্রার।

ডা. শাহরিয়ার ফারুক অনিক জানান, তার বাবা ডা. বিএম ফারুক গত ৩১ জুলাই করোনা পজিটিভ হন। তাকে প্রথমে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়। এরপর ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’সপ্তাহ চিকিৎসা নেন। সেখানে সুস্থ হওয়ার পর গত ২৭ আগস্ট করোনা নেগেটিভ হন।

তিনি আরও জানান, করোনা নেগেটিভ হলেও তার শরীরে উপসর্গ ছিল। অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বগুড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতউল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে মঙ্গলবার রাত ১টা ৪০ মিনিটে মারা যান। আগামী ৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বাদ জুমা স্বল্প পরিসরে পারিবারিকভাবে কুলখানি অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে বিএমএ বগুড়া শাখার প্রবীণ সদস্য ডা. বিএম ফারুকের মৃত্যুতে সংগঠনের সভাপতি ডা. মোস্তফা আলম নান্নু ও সাধারণ সম্পাদক ডা. রেজাউল আলম জুয়েল এক বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস