ল্যাবরেটরি ছাড়াই ৯০ মিনিটে করোনার নির্ভুল ফলাফল
jugantor
ল্যাবরেটরি ছাড়াই ৯০ মিনিটে করোনার নির্ভুল ফলাফল

  অনলাইন ডেস্ক  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৫৪:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্য

ল্যাবরেটরি ছাড়াই ৯০ মিনিটের মধ্যে করোনা টেস্টের ফলাফল নির্ভুলভাবে জানা যাবে। এমন দ্রুত পদ্ধতির উদ্ভাবনের কথা জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীরা। ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষকরা বলছেন, এ র‌্যাপিড টেস্টের ফলের সঙ্গে ল্যাবরেটরিতে করা পরীক্ষার ফলের ব্যাপক মিল পাওয়া গেছে।

বিবিসি জানিয়েছে, করোনা শনাক্তের ওই যন্ত্রটি ইতোমধ্যে যুক্তরাজ্যের ৮টি এনএইচএস হাসপাতালে ব্যবহার করা হচ্ছে। এই যন্ত্রটির মাধ্যমে দ্রুত আক্রান্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে।

ডিএনএনাজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানটির এই যন্ত্রটির উন্নয়ন করেছে। নাক বা গলা থেকে লালা সংগ্রহ করতে সক্ষম এমন যে কেউ এই যন্ত্রটির ব্যবহার করতে পারবেন। যন্ত্রটির আকার জুতার বাক্সের সমান।

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের এক গবেষণায় ৩৮৬ জনের নমুনা নিয়ে একইসঙ্গে ডিএনএনাজের যন্ত্র ও প্রচলিত ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। গবেষণাটি পরে ল্যানসেট মাইক্রোব জার্নালে প্রকাশিতও হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, যে যে ব্যক্তির নমুনায় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি নেই বলে ল্যাবরেটরির পরীক্ষা থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে, সেই ব্যক্তিদের নমুনায় নতুন র‌্যাপিড টেস্টও একই ফল দিয়েছে।

আর যাদের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে, তাদের নমুনায় ল্যাবরেটরির পরীক্ষার ফল আর র‌্যাপিড টেস্টের ফলে ৯৪ শতাংশ ক্ষেত্রে মিল পাওয়া গেছে।

যুক্তরাজ্য এরই মধ্যে ৫০০০টি নাজবক্স মেশিন ও ৫৮ লাখ ডিসপোজেবল কার্টিজ কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ল্যাবরেটরি ছাড়াই ৯০ মিনিটে করোনার নির্ভুল ফলাফল

 অনলাইন ডেস্ক 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
যুক্তরাজ্য
ছবি: বিবিসি

ল্যাবরেটরি ছাড়াই ৯০ মিনিটের মধ্যে করোনা টেস্টের ফলাফল নির্ভুলভাবে জানা যাবে।  এমন দ্রুত পদ্ধতির উদ্ভাবনের কথা জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীরা।  ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষকরা বলছেন,  এ র‌্যাপিড টেস্টের ফলের সঙ্গে ল্যাবরেটরিতে করা পরীক্ষার ফলের ব্যাপক মিল পাওয়া গেছে।

বিবিসি জানিয়েছে, করোনা শনাক্তের ওই যন্ত্রটি ইতোমধ্যে যুক্তরাজ্যের ৮টি এনএইচএস হাসপাতালে ব্যবহার করা হচ্ছে।  এই যন্ত্রটির মাধ্যমে দ্রুত আক্রান্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। 

ডিএনএনাজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানটির এই যন্ত্রটির উন্নয়ন করেছে। নাক বা গলা থেকে লালা সংগ্রহ করতে সক্ষম এমন যে কেউ এই যন্ত্রটির ব্যবহার করতে পারবেন। যন্ত্রটির আকার জুতার বাক্সের সমান।

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের এক গবেষণায় ৩৮৬ জনের নমুনা নিয়ে একইসঙ্গে ডিএনএনাজের যন্ত্র ও প্রচলিত ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। গবেষণাটি পরে ল্যানসেট মাইক্রোব জার্নালে প্রকাশিতও হয়। 

গবেষণায় দেখা গেছে, যে যে ব্যক্তির নমুনায় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি নেই বলে ল্যাবরেটরির পরীক্ষা থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে, সেই ব্যক্তিদের নমুনায় নতুন র‌্যাপিড টেস্টও একই ফল দিয়েছে। 

আর যাদের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে, তাদের নমুনায় ল্যাবরেটরির পরীক্ষার ফল আর র‌্যাপিড টেস্টের ফলে ৯৪ শতাংশ ক্ষেত্রে মিল পাওয়া গেছে।

যুক্তরাজ্য এরই মধ্যে ৫০০০টি নাজবক্স মেশিন ও ৫৮ লাখ ডিসপোজেবল কার্টিজ কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস