করোনাভাইরাস নিয়ে কানাডায় প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তার সতর্কতা
jugantor
করোনাভাইরাস নিয়ে কানাডায় প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তার সতর্কতা

  রাজীব আহসান, কানাডা থেকে  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩:৫২:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

সম্প্রতি কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

কানাডার প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. থেরেসা ট্যাম মঙ্গলবার বলেছেন, ২০ থেকে ৩৯ বছর বয়সীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভাইরাসের সংক্রমণ হচ্ছে।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসটিকে হালকাভাবে নিলে আগামী কয়েক মাসে ব্যাপক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে এবং ভাইরাসটির এ বিস্তার রোধ করা আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সক্ষমতাকে ছাপিয়ে যেতে পারে।

সামাজিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থাগুলোকেও উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করতে পারে।


অন্যদিকে কানাডার বিভিন্ন প্রভিন্সে আবারও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। কানাডার বৃহৎ প্রদেশ অন্টারিওর সর্বত্র ঘরে ১০ বাইরে ২৫ জনের বেশি সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বিভিন্ন শহরের মেয়রদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এখন পুরো শহরে এই বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। রেস্টুরেন্ট, সিনেমা হল, বার, উপাসনালয়কে এই সিদ্ধান্তের বাইরে রাখা হয়েছে।

এই বিধিনিষেধ অমান্য করে জমায়েত আয়োজনকারীদের ১০ হাজার ডলার এবং জমায়েতে অংশগ্রহণকারীদের ৭৫০ ডলার জরিমানা করা হবে।

অন্যদিকে অন্টারিওর প্রভিন্সিয়াল সরকার ৫ মিলিয়ন ডোজের বেশি ফ্লু ভ্যাকসিনের ক্রয়াদেশ দিয়েছে। এই শীতে কোভিড সংক্রান্ত অসুস্থতায় হাসপাতালে রোগী ভর্তি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এই পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে করোনা মোকাবেলায় এবং নাগরিকদের সাহস জোগাতে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বিভিন্ন খাতে জরুরি সহায়তা দিয়ে আসছেন। তার পরও কানাডার চারটি প্রাদেশিক সরকার স্বাস্থ্য খাতে আরও সহায়তার দাবি জানিয়েছে ফেডারেল সরকারের কাছে।

করোনাভাইরাস নিয়ে কানাডায় প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তার সতর্কতা

 রাজীব আহসান, কানাডা থেকে 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সম্প্রতি কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

কানাডার প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. থেরেসা ট্যাম মঙ্গলবার বলেছেন, ২০ থেকে ৩৯ বছর বয়সীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভাইরাসের সংক্রমণ হচ্ছে।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসটিকে হালকাভাবে নিলে আগামী কয়েক মাসে ব্যাপক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে এবং ভাইরাসটির এ বিস্তার রোধ করা আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সক্ষমতাকে ছাপিয়ে যেতে পারে।

সামাজিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থাগুলোকেও উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করতে পারে।


অন্যদিকে কানাডার বিভিন্ন প্রভিন্সে আবারও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। কানাডার বৃহৎ প্রদেশ অন্টারিওর সর্বত্র ঘরে ১০ বাইরে ২৫ জনের বেশি সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বিভিন্ন শহরের মেয়রদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এখন পুরো শহরে এই বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। রেস্টুরেন্ট, সিনেমা হল, বার, উপাসনালয়কে এই সিদ্ধান্তের বাইরে রাখা হয়েছে।

 এই বিধিনিষেধ অমান্য করে জমায়েত আয়োজনকারীদের ১০ হাজার ডলার এবং জমায়েতে অংশগ্রহণকারীদের ৭৫০ ডলার জরিমানা করা হবে।

অন্যদিকে অন্টারিওর প্রভিন্সিয়াল সরকার ৫ মিলিয়ন ডোজের বেশি ফ্লু ভ্যাকসিনের ক্রয়াদেশ দিয়েছে। এই শীতে কোভিড সংক্রান্ত অসুস্থতায় হাসপাতালে রোগী ভর্তি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এই পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে করোনা মোকাবেলায় এবং নাগরিকদের সাহস জোগাতে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বিভিন্ন খাতে জরুরি সহায়তা দিয়ে আসছেন। তার পরও কানাডার চারটি প্রাদেশিক সরকার স্বাস্থ্য খাতে আরও সহায়তার দাবি জানিয়েছে ফেডারেল সরকারের কাছে।