করোনার সংক্রমণ বাড়ায় ফ্রান্সে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা
jugantor
করোনার সংক্রমণ বাড়ায় ফ্রান্সে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা

  অনলাইন ডেস্ক  

২৯ অক্টোবর ২০২০, ১২:২৯:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় ফ্রান্সে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

শুক্রবার থেকে এ লকডাউন কার্যকর হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এ লকডাউন অন্তত নভেম্বরের শেষ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে বলেও জানান তিনি। খবর বিবিসির।

লকডাউনের মধ্যে মানুষ জরুরি প্রয়োজন এবং চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজ ছাড়া বাড়ির বাইরে যেতে পারবে না। রেস্তোরাঁ ও পানশালার মতো ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া স্কুল ও বিভিন্ন কারখানা খোলা থাকবে।

ফ্রান্সের নতুন বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে– কর্মক্ষেত্র, স্কুল, চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজ ও এক ঘণ্টা শরীরচর্চা করার জন্য বাইরে বের হওয়া যাবে, বাইরে বের হলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে হবে, এক অঞ্চলের মানুষ আরেক অঞ্চলে যেতে পারবে না, পানশালা, রেস্তোরাঁসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, সুযোগ থাকলে অবশ্যই ঘরে বসে কাজ করতে হবে, বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন উচ্চশিক্ষাসংক্রান্ত ক্লাস অনলাইনে করতে হবে এবং আন্তর্জাতিক সীমানা বন্ধ থাকবে।

এ ছাড়া বলা হয়েছে– স্কুল ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে, বেশিরভাগ সরকারি পরিষেবাসংক্রান্ত কাজ চলবে, খামার কারখানা ও নির্মাণকাজ চলমান থাকবে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সীমানাগুলো খোলা থাকবে, বাইরের দেশে ভ্রমণে থাকা ফ্রান্সের নাগরিকরা ফিরতে পারবেন এবং অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার কার্যক্রম চলবে।

ম্যাক্রোঁ বলেন, করোনা সংক্রমণ যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তা দেখে আমরা অবাক হয়েছি। এটি একটি কঠিন সময়। আমাদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এই অগ্নিপরীক্ষা কাটিয়ে ওঠার জন্য নিজেদের প্রতি, আপনাদের প্রতি এবং সামর্থ্যের প্রতি আমার ভরসা রয়েছে।

এরই মধ্যে ফ্রান্সে করোনাভাইরাস শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ লাখ ৩৫ হাজার ১৩২ জনে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৮৫ জনের। সর্বশেষ একদিনে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩৬ হাজার ৪৩৭ জনের এবং মৃত্যু হয়েছে ২৪৪ জনের।

করোনার সংক্রমণ বাড়ায় ফ্রান্সে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা

 অনলাইন ডেস্ক 
২৯ অক্টোবর ২০২০, ১২:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় ফ্রান্সে দ্বিতীয় দফায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

শুক্রবার থেকে এ লকডাউন কার্যকর হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এ লকডাউন অন্তত নভেম্বরের শেষ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে বলেও জানান তিনি। খবর বিবিসির।

লকডাউনের মধ্যে মানুষ জরুরি প্রয়োজন এবং চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজ ছাড়া বাড়ির বাইরে যেতে পারবে না। রেস্তোরাঁ ও পানশালার মতো ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া স্কুল ও বিভিন্ন কারখানা খোলা থাকবে।

ফ্রান্সের নতুন বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে– কর্মক্ষেত্র, স্কুল, চিকিৎসাসংক্রান্ত কাজ ও এক ঘণ্টা শরীরচর্চা করার জন্য বাইরে বের হওয়া যাবে, বাইরে বের হলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে হবে, এক অঞ্চলের মানুষ আরেক অঞ্চলে যেতে পারবে না, পানশালা, রেস্তোরাঁসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, সুযোগ থাকলে অবশ্যই ঘরে বসে কাজ করতে হবে, বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন উচ্চশিক্ষাসংক্রান্ত ক্লাস অনলাইনে করতে হবে এবং আন্তর্জাতিক সীমানা বন্ধ থাকবে।

এ ছাড়া বলা হয়েছে– স্কুল ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে, বেশিরভাগ সরকারি পরিষেবাসংক্রান্ত কাজ চলবে, খামার কারখানা ও নির্মাণকাজ চলমান থাকবে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সীমানাগুলো খোলা থাকবে, বাইরের দেশে ভ্রমণে থাকা ফ্রান্সের নাগরিকরা ফিরতে পারবেন এবং অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার কার্যক্রম চলবে।

ম্যাক্রোঁ বলেন, করোনা সংক্রমণ যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তা দেখে আমরা অবাক হয়েছি। এটি একটি কঠিন সময়। আমাদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এই অগ্নিপরীক্ষা কাটিয়ে ওঠার জন্য নিজেদের প্রতি, আপনাদের প্রতি এবং সামর্থ্যের প্রতি আমার ভরসা রয়েছে।

এরই মধ্যে ফ্রান্সে করোনাভাইরাস শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ লাখ ৩৫ হাজার ১৩২ জনে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৮৫ জনের। সর্বশেষ একদিনে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩৬ হাজার ৪৩৭ জনের এবং মৃত্যু হয়েছে ২৪৪ জনের।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস