করোনায় লন্ডনের পরিস্থিতি গুরুতর: সাদিক খান
jugantor
করোনায় লন্ডনের পরিস্থিতি গুরুতর: সাদিক খান
যুক্তরাজ্যে একদিনে মৃত্যুর রেকর্ড

  অনলাইন ডেস্ক  

০৯ জানুয়ারি ২০২১, ১২:৪১:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে বৈশ্বিক মহামারী করোনা। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে।

লন্ডনের হাসপাতালগুলোতে রোগী ধারণের ঠাঁই নেই। এ পরিস্থিতিতে লন্ডনের পরিস্থিতিকে গুরুতর বলে অভিহিত করে সবাই ঘরে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়েছেন মেয়র সাদিক খান। খবর রয়টার্স ও বিবিসির।

যুক্তরাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৩২৫ জনের, যা এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার মৃতের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ১৬২ জন এবং বুধবার ছিল ১০৪১ জন।

এ পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৭৯ হাজার ৮৩৩ জন।

এদিকে, শুক্রবার সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যুর পাশাপাশি একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তও শনাক্ত হয়েছে। এদিন যুক্তরাজ্যে ৬৮ হাজার ৫৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে।

বৃহস্পতিবার এ সংখ্যা ছিল ৫২ হাজার ৮১৮ জন এবং বুধবার ছিল ৬২ হাজার ৩২২জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ লাখ ৫৭ হাজার ৪৭২ জনে।

দেশটিতে করোনা ভাইরাসের অতি সংক্রামক নতুন ধরনের সংক্রমণ ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে’ চলে যাওয়ায় হাসপাতালগুলোতে রোগী উপচে পড়ার ঝুঁকির মুখে লন্ডনে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবার লন্ডনের মেয়র সাদিক খান ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করেন। এই সময়ে তিনি জনগণকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান।

সাদিক খান বলেন, ভাইরাসের বিস্তার ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে’ চলে যাওয়ায় লন্ডনের হাসপাতালগুলোর শয্যা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। আমরা গুরুতর পরিস্থিতির ঘোষণা দিচ্ছি। কারণ আমাদের শহরে হুমকি হয়ে ওঠা করোনাভাইরাসের প্রকোপ সংকটময় মুহূর্তে পৌঁছে গেছে।

যুক্তরাজ্য এরই মধ্যেই ফাইজার/বায়োএনটেক এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা অনুমোদন করেছে। শুরু হয়েছে টিকাদান কর্মসূচি। তৃতীয় টিকা হিসেবে দেশটিতে শুক্রবার মডার্নার টিকাও অনুমোদন পেয়েছে। তারপরও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে।

করোনায় লন্ডনের পরিস্থিতি গুরুতর: সাদিক খান

যুক্তরাজ্যে একদিনে মৃত্যুর রেকর্ড
 অনলাইন ডেস্ক 
০৯ জানুয়ারি ২০২১, ১২:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে বৈশ্বিক মহামারী করোনা।  প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে।

লন্ডনের হাসপাতালগুলোতে রোগী ধারণের ঠাঁই নেই। এ পরিস্থিতিতে লন্ডনের পরিস্থিতিকে গুরুতর বলে অভিহিত করে সবাই ঘরে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়েছেন মেয়র সাদিক খান। খবর রয়টার্স ও বিবিসির।
 
যুক্তরাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৩২৫ জনের, যা এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ। এর  আগের দিন বৃহস্পতিবার মৃতের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ১৬২ জন এবং বুধবার ছিল ১০৪১ জন।

এ পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৭৯ হাজার ৮৩৩ জন।

এদিকে, শুক্রবার সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যুর পাশাপাশি একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তও শনাক্ত হয়েছে। এদিন যুক্তরাজ্যে ৬৮ হাজার ৫৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে।

বৃহস্পতিবার এ সংখ্যা ছিল ৫২ হাজার ৮১৮ জন এবং বুধবার ছিল ৬২ হাজার ৩২২জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ লাখ ৫৭ হাজার ৪৭২ জনে।

দেশটিতে করোনা ভাইরাসের অতি সংক্রামক নতুন ধরনের সংক্রমণ ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে’ চলে যাওয়ায় হাসপাতালগুলোতে রোগী উপচে পড়ার ঝুঁকির মুখে লন্ডনে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবার লন্ডনের মেয়র সাদিক খান ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করেন। এই সময়ে তিনি জনগণকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান।

সাদিক খান বলেন, ভাইরাসের বিস্তার ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে’ চলে যাওয়ায় লন্ডনের হাসপাতালগুলোর শয্যা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। আমরা গুরুতর পরিস্থিতির ঘোষণা দিচ্ছি। কারণ আমাদের শহরে হুমকি হয়ে ওঠা করোনাভাইরাসের প্রকোপ সংকটময় মুহূর্তে পৌঁছে গেছে।

যুক্তরাজ্য এরই মধ্যেই ফাইজার/বায়োএনটেক এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা অনুমোদন করেছে। শুরু হয়েছে টিকাদান কর্মসূচি। তৃতীয় টিকা হিসেবে দেশটিতে শুক্রবার মডার্নার টিকাও অনুমোদন পেয়েছে। তারপরও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে।

 

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস