করোনার উৎস তদন্তে উহানে ডব্লিউএইচওর বিজ্ঞানীরা
jugantor
করোনার উৎস তদন্তে উহানে ডব্লিউএইচওর বিজ্ঞানীরা

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:২১:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনার উৎস তদন্তে উহানে ডব্লিউএইচওর বিজ্ঞানীরা

করোনাভাইরাসের উৎস সন্ধানে চীনের উহান শহরে গেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বিশেষজ্ঞ একটি দল।

বিবিসি জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের স্বনামধন্য ১০ বিজ্ঞানীর এ দলটি চীনে পৌঁছায়। সেখানে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তাদের।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং বেইজিংয়ের মধ্যে কয়েক মাস আলোচনার পর করোনার উৎস সন্ধানে তদন্ত দলটি আসার অনুমতি পায়।

জানুয়ারির শুরুর দিকেই বিশেষজ্ঞ দলটির চীনে ঢোকার কথা থাকলেও চীন দলটিকে সে দেশে প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় তাদের যাত্রায় দেরি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছিল।

উহানে ডব্লিউএইচওর পাঠানো ১০ বিজ্ঞানী মূলত ঠিক কী ঘটেছিল এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের প্রাদুর্ভাব ঠেকানোর উপায় খুঁজবেন বলে জানিয়েছেন দলটির সদস্য একজন জীববিজ্ঞানী।

বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান পিটার বেন এমবারেক বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য হলো– কী হয়েছিল তা বুঝতে কয়েক মাস আগে যে গবেষণাগুলোর পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত আমরা ইতিমধ্যে নিয়েছি, সেগুলো এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।

ভাইরাসটি কখন ছড়ানো শুরু হয়েছিল এবং উহান থেকেই এর উৎপত্তি কিনা তা খুঁজে বের করাও তদন্তের উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছেন তিনি।

এখন পর্যন্ত ধারণা করা হচ্ছে, করোনার উৎপত্তিস্থল চীনের উহান শহর। মনে করা হয়, সেখানকার একটি বন্যপ্রাণী বিক্রির একটি বাজার থেকে এ ভাইরাসটি সারা বিশ্বে ছড়িয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ ভাইরাসকে চীনাভাইরাস হিসেবেও অভিহিত করেছেন। এ ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমালোচনা নিয়ে অস্বস্তি রয়েছে বেইজিংয়ের।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে উহান থেকে উৎপত্তি হলেও এটি বর্তমানে বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।

কোভিড ১৯-এ বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত দুই কোটি ৩৬ লাখ ১৬ হাজার ৩৪৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন তিন লাখ ৯৩ হাজার ৯২৮ জন। আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক কোটি ৩৯ লাখ ৭৫ হাজার ৩৬ জন।

করোনার উৎস তদন্তে উহানে ডব্লিউএইচওর বিজ্ঞানীরা

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
করোনার উৎস তদন্তে উহানে ডব্লিউএইচওর বিজ্ঞানীরা
ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের উৎস সন্ধানে চীনের উহান শহরে গেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বিশেষজ্ঞ একটি দল। 
 
বিবিসি জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের স্বনামধন্য ১০ বিজ্ঞানীর এ দলটি চীনে পৌঁছায়। সেখানে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তাদের।  

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং বেইজিংয়ের মধ্যে কয়েক মাস আলোচনার পর করোনার উৎস সন্ধানে তদন্ত দলটি আসার অনুমতি পায়।

জানুয়ারির শুরুর দিকেই বিশেষজ্ঞ দলটির চীনে ঢোকার কথা থাকলেও চীন দলটিকে সে দেশে প্রবেশের অনুমতি না দেওয়ায় তাদের যাত্রায় দেরি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছিল।  

উহানে ডব্লিউএইচওর পাঠানো ১০ বিজ্ঞানী মূলত ঠিক কী ঘটেছিল এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের প্রাদুর্ভাব ঠেকানোর উপায় খুঁজবেন বলে জানিয়েছেন দলটির সদস্য একজন জীববিজ্ঞানী।

বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান পিটার বেন এমবারেক বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য হলো– কী হয়েছিল তা বুঝতে কয়েক মাস আগে যে গবেষণাগুলোর পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত আমরা ইতিমধ্যে নিয়েছি, সেগুলো এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। 

ভাইরাসটি কখন ছড়ানো শুরু হয়েছিল এবং উহান থেকেই এর উৎপত্তি কিনা তা খুঁজে বের করাও তদন্তের উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছেন তিনি।

এখন পর্যন্ত ধারণা করা হচ্ছে, করোনার উৎপত্তিস্থল চীনের উহান শহর।  মনে করা হয়, সেখানকার একটি বন্যপ্রাণী বিক্রির একটি বাজার থেকে এ ভাইরাসটি সারা বিশ্বে ছড়িয়েছে। 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ ভাইরাসকে চীনাভাইরাস হিসেবেও অভিহিত করেছেন। এ ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমালোচনা নিয়ে অস্বস্তি রয়েছে বেইজিংয়ের।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে উহান থেকে উৎপত্তি হলেও এটি বর্তমানে বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। 

কোভিড ১৯-এ বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত দুই কোটি ৩৬ লাখ ১৬ হাজার ৩৪৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন তিন লাখ ৯৩ হাজার ৯২৮ জন।  আর সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক কোটি ৩৯ লাখ ৭৫ হাজার ৩৬ জন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস