অক্সফোর্ডের টিকা বয়স্কদের না দেওয়ার সুপারিশ জার্মানিতে
jugantor
অক্সফোর্ডের টিকা বয়স্কদের না দেওয়ার সুপারিশ জার্মানিতে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৪:৩৪:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা না দিতে জার্মান সরকারকে অনুরোধ করেছে দেশটির টিকা কমিটি। তাদের দাবি, ৬৫ বছরের বেশি বয়স্কদের ভ্যাকসিন প্রয়োগের কার্যকারিতার বিষয়ে তাদের কাছে তথ্য নেই। খবর ডয়েচে ভেলের।

প্রতিবেদন বলা হয়, কয়েক দিন আগে জার্মানির দুটি সংবাদপত্রের রিপোর্ট নিয়ে হইচই হয়। সরকারি সূত্র উদ্ধৃত করে রিপোর্টে বলা হয়েছে– অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ওপর কাজ করে না। সেখানে সাফল্যের হার মাত্র ৮ শতাংশ।

অবশ্য সেই দাবি উড়িয়ে দিয়েছিল অ্যাস্ট্রাজেনেকা। তারা জানায়, ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রেও টিকা সমান কার্যকর। দুটি ডোজ নেওয়ার পর ১০০ শতাংশ ক্ষেত্রে বয়স্কদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। তার পরও জার্মানির ভ্যাকসিন কমিটি বলছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা ৬৪ বা তার কম বয়সীকে দেওয়া উচিত।

কমিটির দাবি, এই টিকা ৬৫-র কম বয়সীদের দেওয়া উচিত। তাদের বক্তব্য– ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের জন্য এই ভ্যাকসিন কতটা কার্যকর, সে সম্পর্কে পর্যাপ্ত তথ্য নেই। তাই এখন ১৮ থেকে ৬৪ বছর বয়সীদের এ টিকা দেওয়া হোক।


তবে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছেন, জার্মান কমিটির সুপারিশ একেবারেই মানতে রাজি নন। তার দাবি, আমাদের কমিটি ও বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, অক্সফোর্ডের টিকা খুবই ভালো ও কার্যকর।


অ্যাস্ট্রাজেনেকার মুখপাত্রও বলেছেন, সর্বশেষ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তথ্যপ্রমাণ করেছে– এই ভ্যাকসিন বয়স্কদের ক্ষেত্রেও সমান কার্যকর।


অক্সফোর্ডের টিকা বয়স্কদের না দেওয়ার সুপারিশ জার্মানিতে

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৯ জানুয়ারি ২০২১, ০২:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা না দিতে জার্মান সরকারকে অনুরোধ করেছে দেশটির টিকা কমিটি।  তাদের দাবি, ৬৫ বছরের বেশি বয়স্কদের ভ্যাকসিন প্রয়োগের কার্যকারিতার বিষয়ে তাদের কাছে তথ্য নেই। খবর ডয়েচে ভেলের।

প্রতিবেদন বলা হয়, কয়েক দিন আগে জার্মানির দুটি সংবাদপত্রের রিপোর্ট নিয়ে হইচই হয়। সরকারি সূত্র উদ্ধৃত করে রিপোর্টে বলা হয়েছে–  অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ওপর কাজ করে না। সেখানে সাফল্যের হার মাত্র ৮ শতাংশ।

অবশ্য সেই দাবি উড়িয়ে দিয়েছিল অ্যাস্ট্রাজেনেকা। তারা জানায়, ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রেও টিকা সমান কার্যকর। দুটি ডোজ নেওয়ার পর ১০০ শতাংশ ক্ষেত্রে বয়স্কদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। তার পরও জার্মানির ভ্যাকসিন কমিটি বলছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা ৬৪ বা তার কম বয়সীকে দেওয়া উচিত।

কমিটির দাবি, এই টিকা ৬৫-র কম বয়সীদের দেওয়া উচিত। তাদের বক্তব্য– ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের জন্য এই ভ্যাকসিন কতটা কার্যকর, সে সম্পর্কে পর্যাপ্ত তথ্য নেই। তাই এখন ১৮ থেকে ৬৪ বছর বয়সীদের এ টিকা দেওয়া হোক।


তবে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছেন, জার্মান কমিটির সুপারিশ একেবারেই মানতে রাজি নন। তার দাবি, আমাদের কমিটি ও বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, অক্সফোর্ডের টিকা খুবই ভালো ও কার্যকর।


অ্যাস্ট্রাজেনেকার মুখপাত্রও বলেছেন, সর্বশেষ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তথ্যপ্রমাণ করেছে– এই ভ্যাকসিন বয়স্কদের ক্ষেত্রেও সমান কার্যকর।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন