টিকা নিলেন ডা. জাফরুল্লাহ, বললেন ভয় নেই
jugantor
টিকা নিলেন ডা. জাফরুল্লাহ, বললেন ভয় নেই

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:২৮:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

টিকা

সারা দেশে করোনাভাইরাসের গণটিকাদান শুরুর দিন টিকা নিয়েছেন গণস্বাস্থ্য সংস্থার ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

রোববার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) টিকাদান কেন্দ্রে তিনি এ টিকা নেন।

এ সময় ডা. জাফরুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, আমি বলব– টিকা নিন সবাই, কোনো ভয় নেই। এটি (টিকা) আপনার অধিকার। যার যেদিন সময় হবে, টিকা নিয়ে নেবেন।

তিনি বলেন, অনেকেই টিকা নিয়েছেন, নিচ্ছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী যদি আজকে টিকা নিতেন, তা হলে দেশের মানুষ আরও বেশি সাহস পেত।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আমি মনে করি, আমাদের রিকশাওয়ালা, বাড়িতে যারা কাজ করেন তারা, সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা টিকা যেন পায় সেই ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা যারা অবস্থাবান না, যাদের অর্থনৈতিক সামর্থ্য নেই, তাদের টিকা পাওয়া নিশ্চিত করতে হবে।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস রোধে সারা দেশে আজ একযোগে টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। ১০০৫ কেন্দ্রে এ প্রতিষেধক দেওয়া হচ্ছে।

রাজধানী ঢাকায় ৫০টি হাসপাতালে ২০৪ টিম এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ৯৫৫টি হাসপাতালে ২১৯৬টি টিম টিকা প্রয়োগে যুক্ত রয়েছে।

আজ সকাল ১০টার পর মহাখালী স্বাস্থ্য ভবন থেকে ভার্চুয়ালি টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এর পর পরই বিভিন্ন জেলায় টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়।

এর আগে ২৭ জানুয়ারি একজন নার্স টিকা গ্রহণের মধ্য দিয়ে প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হয়। ওই দিন আরও ২৫ জন টিকা নেন। পর দিন রাজধানীর ৫টি হাসপাতালে আরও ৫৪১ জনকে দেওয়া হয়।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বোঝার জন্য এদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। খুব একটা সমস্যা না হওয়ায় ৭ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে একযোগে টিকা প্রয়োগ শুরুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

টিকা নিলেন ডা. জাফরুল্লাহ, বললেন ভয় নেই

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৩:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
টিকা
ছবি-সংগৃহীত

সারা দেশে করোনাভাইরাসের গণটিকাদান শুরুর দিন টিকা নিয়েছেন গণস্বাস্থ্য সংস্থার ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

রোববার দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) টিকাদান কেন্দ্রে তিনি এ টিকা নেন। 

এ সময় ডা. জাফরুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, আমি বলব– টিকা নিন সবাই, কোনো ভয় নেই। এটি (টিকা) আপনার অধিকার। যার যেদিন সময় হবে, টিকা নিয়ে নেবেন।

তিনি বলেন, অনেকেই টিকা নিয়েছেন, নিচ্ছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী যদি আজকে টিকা নিতেন, তা হলে দেশের মানুষ আরও বেশি সাহস পেত।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আমি মনে করি, আমাদের রিকশাওয়ালা, বাড়িতে যারা কাজ করেন তারা, সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা টিকা যেন পায় সেই ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা যারা অবস্থাবান না, যাদের অর্থনৈতিক সামর্থ্য নেই, তাদের টিকা পাওয়া নিশ্চিত করতে হবে।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস রোধে সারা দেশে আজ একযোগে টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। ১০০৫ কেন্দ্রে এ প্রতিষেধক দেওয়া হচ্ছে। 

রাজধানী ঢাকায় ৫০টি হাসপাতালে ২০৪ টিম এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ৯৫৫টি হাসপাতালে ২১৯৬টি টিম টিকা প্রয়োগে যুক্ত রয়েছে।

আজ সকাল ১০টার পর মহাখালী স্বাস্থ্য ভবন থেকে ভার্চুয়ালি টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এর পর পরই বিভিন্ন জেলায় টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়।

এর আগে ২৭ জানুয়ারি একজন নার্স টিকা গ্রহণের মধ্য দিয়ে প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হয়। ওই দিন আরও ২৫ জন টিকা নেন। পর দিন রাজধানীর ৫টি হাসপাতালে আরও ৫৪১ জনকে দেওয়া হয়। 

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বোঝার জন্য এদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। খুব একটা সমস্যা না হওয়ায় ৭ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে একযোগে টিকা প্রয়োগ শুরুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১