লাখের নিচে নামছেই না সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় ৭৮০ মৃত্যু 
jugantor
লাখের নিচে নামছেই না সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় ৭৮০ মৃত্যু 

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:১৭:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের লাখের নিচে নামছেই না শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। গত ৫ দিনের মধ্যে চারদিনই এক লাখের বেশি করে মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন দেশটিতে। আগের দিনের রেকর্ড ভেঙে রোজ সৃষ্টি হচ্ছে নতুন নতুন রেকর্ড। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ১ লাখ ৩১ হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। আর এই সময়ে মারা গেছেন ৭৮০ জন।

শুক্রবার সকালে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে দেশটির প্রভাবশালী গণমাধ্যম এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে— গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে এক লাখ ৩১ হাজার ৯৬৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে মারা গেছেন ৭৮০ জন। এ নিয়ে ভারতে করোনার মোট সংক্রমণ প্রায় এক কোটি ৩০ লাখ ৫৮ হাজারে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন এক কোটি ৬৭ লাখ ৬৪২ জন।

গত পাঁচ দিনের মধ্যে চার দিনই দৈনিক সংক্রমণ এক লাখের বেশি ছিল দেশটিতে। বিশ্বে সংক্রমণ ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরই ভারত।

করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির এই চিত্র উৎকণ্ঠা সৃষ্টি করেছে। কোনো কোনো রাজ্যে ভ্যাকসিনের সংকটও দেখা দিয়েছে। মুম্বাইর বেশ কয়েকটি টিকাদান কেন্দ্র আজ ভ্যাকসিন সংকটের কারণে বন্ধ থাকছে।

করোনা থেকে বাঁচতে দিল্লি, মহারাষ্ট্র ও তামিলনাডুর বেশ কয়েকটি এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে।

এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউকে রুখতে টিকাদানের ওপর জোর দেওয়ার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি বলেন, ‘করোনার টিকাদানের লক্ষ্যে আগামী ১১ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত টিকা উৎসব করা হবে।’

এ সময় নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘আমাদের আর লকডাউনের প্রয়োজন নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাইক্রো কনটেইনমেন্ট জোনে নজর দিতে হবে। করোনা কারফিউ বজায় রাখা হোক। রাত ৯টা বা ১০টা থেকে ভোর ৫টা বা ৬টা পর্যন্ত করোনা কারফিউ করা হোক।’

লাখের নিচে নামছেই না সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় ৭৮০ মৃত্যু 

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের লাখের নিচে নামছেই না শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। গত ৫ দিনের মধ্যে চারদিনই এক লাখের বেশি করে মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন দেশটিতে।  আগের দিনের রেকর্ড ভেঙে রোজ সৃষ্টি হচ্ছে নতুন নতুন রেকর্ড।  সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ১ লাখ ৩১ হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।  আর এই সময়ে মারা গেছেন ৭৮০ জন।

শুক্রবার সকালে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে দেশটির প্রভাবশালী গণমাধ্যম এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে— গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে এক লাখ ৩১ হাজার ৯৬৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে মারা গেছেন ৭৮০ জন। এ নিয়ে ভারতে করোনার মোট সংক্রমণ প্রায় এক কোটি ৩০ লাখ ৫৮ হাজারে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন এক কোটি ৬৭ লাখ ৬৪২ জন।

গত পাঁচ দিনের মধ্যে চার দিনই দৈনিক সংক্রমণ এক লাখের বেশি ছিল দেশটিতে।  বিশ্বে সংক্রমণ ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পরই ভারত। 

করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির এই চিত্র উৎকণ্ঠা সৃষ্টি করেছে।  কোনো কোনো রাজ্যে ভ্যাকসিনের সংকটও দেখা দিয়েছে। মুম্বাইর বেশ কয়েকটি টিকাদান কেন্দ্র আজ ভ্যাকসিন সংকটের কারণে বন্ধ থাকছে। 

করোনা থেকে বাঁচতে দিল্লি, মহারাষ্ট্র ও তামিলনাডুর বেশ কয়েকটি এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে।

এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউকে রুখতে টিকাদানের ওপর জোর দেওয়ার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি বলেন, ‘করোনার টিকাদানের লক্ষ্যে আগামী ১১ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত টিকা উৎসব করা হবে।’

এ সময় নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘আমাদের আর লকডাউনের প্রয়োজন নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাইক্রো কনটেইনমেন্ট জোনে নজর দিতে হবে। করোনা কারফিউ বজায় রাখা হোক। রাত ৯টা বা ১০টা থেকে ভোর ৫টা বা ৬টা পর্যন্ত করোনা কারফিউ করা হোক।’
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস