ঈশ্বরদীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা জেলায় সর্বোচ্চ
jugantor
ঈশ্বরদীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা জেলায় সর্বোচ্চ

  ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি  

০৩ মে ২০২১, ১৮:৪০:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ঈশ্বরদীতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা জেলার মধ্যে সর্বাধিক। গত ১৫ দিনে ঈশ্বরদীতে ২১৯ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এই উপজেলায় ইতোমধ্যে এক নারীসহ করোনায় ৪ জনের মৃত্যুর খবর জানা গেছে।

২১৯ জন আক্রান্ত রোগী বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন বলে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসমা খান জানিয়েছেন।

পাবনা জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল মোমেন জানান, সারা দেশের মতো জেলায়ও করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে জেলার মধ্যে ঈশ্বরদীতে আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

ঈশ্বরদী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, গত ১৫ দিনে ঈশ্বরদী হাসপাতালের মাধ্যমে করোনা পরীক্ষায় ১৭ জনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। এছাড়া রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় বেসরকারিভাবে নমুনা পরীক্ষায় ২০২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ওই এলাকায় নমুনা পরীক্ষার জন্য ভাসমান বেসরকারি ৬টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এদের মধ্যে ফেমাস স্পেশালাইজড এবং বিএমএফআর থেকেই ২০২ জনের করোনা সনাক্তের রিপোর্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে রয়েছে।

এদিকে গত কয়েকদিনে ঈশ্বরদীতে এক নারীসহ ৪ জনের করোনায় মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। করোনায় আরও মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও পারিবারিকভাবেই প্রকাশ করা হচ্ছে না বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

রূপপুর পারমানবিক প্রকল্পের কর্মরতদের জন্য দ্রুত করোনা পরীক্ষার জন্য এখন বেসরকারিভাবে ৬টি ভ্রাম্যমাণ ল্যাব কাজ করছে। এদের রিপোর্ট ১২ ঘণ্টার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের জন্য সরকারিভাবে হাসপাতালে করোনা পরীক্ষার হার খুবই নগণ্য। কারণ হাসপাতালে নমুনা দিলে সিরাজগঞ্জ থেকে রিপোর্ট পেতে সময় লাগে ৪-৫ দিন।

ঈশ্বরদীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা জেলায় সর্বোচ্চ

 ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি 
০৩ মে ২০২১, ০৬:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ঈশ্বরদীতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা জেলার মধ্যে সর্বাধিক। গত ১৫ দিনে ঈশ্বরদীতে ২১৯ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এই উপজেলায় ইতোমধ্যে এক নারীসহ করোনায় ৪ জনের মৃত্যুর খবর জানা গেছে।

২১৯ জন আক্রান্ত রোগী বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন বলে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসমা খান জানিয়েছেন।

পাবনা জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল মোমেন জানান, সারা দেশের মতো জেলায়ও করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে জেলার মধ্যে ঈশ্বরদীতে আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

ঈশ্বরদী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, গত ১৫ দিনে ঈশ্বরদী হাসপাতালের মাধ্যমে করোনা পরীক্ষায় ১৭ জনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। এছাড়া রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় বেসরকারিভাবে নমুনা পরীক্ষায় ২০২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ওই এলাকায় নমুনা পরীক্ষার জন্য ভাসমান বেসরকারি ৬টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এদের মধ্যে ফেমাস স্পেশালাইজড এবং বিএমএফআর থেকেই ২০২ জনের করোনা সনাক্তের রিপোর্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে রয়েছে।

এদিকে গত কয়েকদিনে ঈশ্বরদীতে এক নারীসহ ৪ জনের করোনায় মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। করোনায় আরও মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও পারিবারিকভাবেই প্রকাশ করা হচ্ছে না বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

রূপপুর পারমানবিক প্রকল্পের কর্মরতদের জন্য দ্রুত করোনা পরীক্ষার জন্য এখন বেসরকারিভাবে ৬টি ভ্রাম্যমাণ ল্যাব কাজ করছে। এদের রিপোর্ট ১২ ঘণ্টার মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের জন্য সরকারিভাবে হাসপাতালে করোনা পরীক্ষার হার খুবই নগণ্য। কারণ হাসপাতালে নমুনা দিলে সিরাজগঞ্জ থেকে রিপোর্ট পেতে সময় লাগে ৪-৫ দিন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস