করোনা আক্রান্ত হয়ে ভারতের সাবেক মন্ত্রীর মৃত্যু
jugantor
করোনা আক্রান্ত হয়ে ভারতের সাবেক মন্ত্রীর মৃত্যু

  অনলাইন ডেস্ক  

০৬ মে ২০২১, ১১:০৬:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভারতের সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা রাষ্ট্রীয় লোকদলের (আরএলডি) প্রতিষ্ঠাতা অজিত সিংহ মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর।

গত ২০ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ১৫ দিন পর আজ বৃহস্পতিবার সকালে মারা যান তিনি।

অজিতের ছেলে সাবেক এমপি জয়ন্ত চৌধুরী টুইটারে বাবার মৃত্যুসংবাদ জানিয়ে লেখেন, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করে আজ সকালে তিনি মারা গেছেন।

আনন্দবাজার জানিয়েছে, অজিতের বাবা প্রয়াত সাবেক প্রধানমন্ত্রী চৌধুরী চরণ সিংহ ছিলেন পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের জাঠ বলয়ের অবিসংবাদিত নেতা। কিন্তু অজিত রাজনীতি দিয়ে তার কর্মজীবন শুরু করেননি।

ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করার পর আইবিএম এর মতো বহুজাতিক সংস্থায় চাকরি শুরু করেন। আশির দশকের গোড়ায় তার রাজনীতিতে প্রবেশ। প্রথমে বাবার হাতে গড়া লোকদল এবং পরবর্তী পর্যায়ে জনতা দলে।

১৯৮৯ সালে প্রধানমন্ত্রী ভি পি সিংহের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ফ্রন্ট সরকারে প্রথম মন্ত্রিত্ব পেয়েছিলেন অজিত। নব্বইয়ের দশকে কংগ্রেসে যোগ দিয়ে পি ভি নরসিংহ রাও সরকারের মন্ত্রীও হন।

এর পর নিজের দল আরএলডি গড়ে অটলবিহারী বাজপেয়ীর নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহে ইউপিএ জোটের মন্ত্রিসভাতেও ঠাঁই পেয়েছিলেন অজিত।

চরণের শক্ত ঘাঁটি বাগপত লোকসভা কেন্দ্র থেকে নিজে ৬ বার জেতার পাশাপাশি মথুরা থেকে ২০০৯ সালে জিতিয়ে এনেছিলেন নিজের ছেলে জয়ন্তকেও।

২০১৩ সালে মুজাফফরনগর হিংসার জেরে পশ্চিম উত্তর গোষ্ঠীহিংসার জেরে ভোটের মেরুকরণের সুফল পায় বিজেপি। অজিত এবং তার ছেলে হেরে যান।

করোনা আক্রান্ত হয়ে ভারতের সাবেক মন্ত্রীর মৃত্যু

 অনলাইন ডেস্ক 
০৬ মে ২০২১, ১১:০৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভারতের সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা রাষ্ট্রীয় লোকদলের (আরএলডি) প্রতিষ্ঠাতা অজিত সিংহ মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। 

গত ২০ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। ১৫ দিন পর আজ বৃহস্পতিবার সকালে মারা যান তিনি।  

অজিতের ছেলে সাবেক এমপি জয়ন্ত চৌধুরী টুইটারে বাবার মৃত্যুসংবাদ জানিয়ে লেখেন, শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করে আজ সকালে তিনি মারা গেছেন। 

আনন্দবাজার জানিয়েছে, অজিতের বাবা প্রয়াত সাবেক প্রধানমন্ত্রী চৌধুরী চরণ সিংহ ছিলেন পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের জাঠ বলয়ের অবিসংবাদিত নেতা। কিন্তু অজিত রাজনীতি দিয়ে তার কর্মজীবন শুরু করেননি। 

ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করার পর আইবিএম এর মতো বহুজাতিক সংস্থায় চাকরি শুরু করেন। আশির দশকের গোড়ায় তার রাজনীতিতে প্রবেশ। প্রথমে বাবার হাতে গড়া লোকদল এবং পরবর্তী পর্যায়ে জনতা দলে।

১৯৮৯ সালে প্রধানমন্ত্রী ভি পি সিংহের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ফ্রন্ট সরকারে প্রথম মন্ত্রিত্ব পেয়েছিলেন অজিত। নব্বইয়ের দশকে কংগ্রেসে যোগ দিয়ে পি ভি নরসিংহ রাও সরকারের মন্ত্রীও হন। 

এর পর নিজের দল আরএলডি গড়ে অটলবিহারী বাজপেয়ীর নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহে ইউপিএ জোটের মন্ত্রিসভাতেও ঠাঁই পেয়েছিলেন অজিত। 

চরণের শক্ত ঘাঁটি বাগপত লোকসভা কেন্দ্র থেকে নিজে ৬ বার জেতার পাশাপাশি মথুরা থেকে ২০০৯ সালে জিতিয়ে এনেছিলেন নিজের ছেলে জয়ন্তকেও।

২০১৩ সালে মুজাফফরনগর হিংসার জেরে পশ্চিম উত্তর গোষ্ঠীহিংসার জেরে ভোটের মেরুকরণের সুফল পায় বিজেপি। অজিত এবং তার ছেলে হেরে যান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস