‘দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের সিদ্ধান্ত দেবেন প্রধানমন্ত্রী’
jugantor
‘দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের সিদ্ধান্ত দেবেন প্রধানমন্ত্রী’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৭ মে ২০২১, ১৬:১১:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশে ভ্যাকসিন (টিকা) উৎপাদনের অনুমোদনের বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি বলেছেন, ‘দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের অনুমোদন দেওয়া অনেক বড় সিদ্ধান্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিন উৎপাদনের সিদ্ধান্ত দেবেন।’

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে এক ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ভ্যাকসিন ক্রয় করব। আবার সঠিক প্রস্তাব আসলে দেশে উৎপাদন করব বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেক্ষেত্রে উৎপাদন করতে হলে ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোর সক্ষমতা যাদের আছে তাদের এগিয়ে আসতে হবে। বিষয়টি আলোচনার পর অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। তাদের বিষয়গুলো ওষুধ প্রশাসন দেখছে। দেখে আমাদের কাছে প্রস্তাবনা পাঠাবে এবং তারপর সিদ্ধান্ত হবে। এখনও তেমন কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।’

মন্ত্রী স্পষ্টভাষায় বলেন, যেকোনও ভ্যাকসিন ব্যবহার বা তৈরি করতে হলে আমাদের ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের অনুমোদন লাগে এবং সরকারেরও অনুমোদন লাগে। ওষুধ প্রশাসনে আবেদন করলে তারা যাচাই বাছাই করে। সব মিলিয়ে এটা অনেক বড় একটা সিদ্ধান্ত। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেই ফাইনাল সিদ্ধান্ত আসবে।’

এর আগে রোববার করোনার টিকা উৎপাদনের অনুমতি এখন পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়নি বলে জানায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

রোববার ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে এই মর্মে সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে যে, সিনোফার্ম কর্তৃক উৎপাদিত ভ্যাকসিন (টিকা) ইনসেপ্টা ফার্মাসিটিক্যাল লি. এর কারখানায় উৎপাদনের নিমিত্তে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে, যা সঠিক নয়। মূলত: দেশে কোভিড-১৯ টিকা উৎপাদনের অনুমতি এখন পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়নি।

‘দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের সিদ্ধান্ত দেবেন প্রধানমন্ত্রী’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৭ মে ২০২১, ০৪:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশে ভ্যাকসিন (টিকা) উৎপাদনের অনুমোদনের বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি বলেছেন, ‘দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনের অনুমোদন দেওয়া অনেক বড় সিদ্ধান্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী ভ্যাকসিন উৎপাদনের সিদ্ধান্ত দেবেন।’

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে এক ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, ভ্যাকসিন ক্রয় করব। আবার সঠিক প্রস্তাব আসলে দেশে উৎপাদন করব বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেক্ষেত্রে উৎপাদন করতে হলে ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোর সক্ষমতা যাদের আছে তাদের এগিয়ে আসতে হবে। বিষয়টি আলোচনার পর অনেকেই এগিয়ে এসেছেন। তাদের বিষয়গুলো ওষুধ প্রশাসন দেখছে। দেখে আমাদের কাছে প্রস্তাবনা পাঠাবে এবং তারপর সিদ্ধান্ত হবে। এখনও তেমন কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।’ 

মন্ত্রী স্পষ্টভাষায় বলেন, যেকোনও ভ্যাকসিন ব্যবহার বা তৈরি করতে হলে আমাদের ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের অনুমোদন লাগে এবং সরকারেরও অনুমোদন লাগে। ওষুধ প্রশাসনে আবেদন করলে তারা যাচাই বাছাই করে। সব মিলিয়ে এটা অনেক বড় একটা সিদ্ধান্ত। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করেই ফাইনাল সিদ্ধান্ত আসবে।’

এর আগে রোববার করোনার টিকা উৎপাদনের অনুমতি এখন পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়নি বলে জানায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

রোববার ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে এই মর্মে সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে যে, সিনোফার্ম কর্তৃক উৎপাদিত ভ্যাকসিন (টিকা) ইনসেপ্টা ফার্মাসিটিক্যাল লি. এর কারখানায় উৎপাদনের নিমিত্তে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদন প্রদান করা হয়েছে, যা সঠিক নয়। মূলত: দেশে কোভিড-১৯ টিকা উৎপাদনের অনুমতি এখন পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস