চড়া দামে ভারতে জাল টিকা বিক্রির অভিযোগ
jugantor
চড়া দামে ভারতে জাল টিকা বিক্রির অভিযোগ

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ জুন ২০২১, ১৯:০৭:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের কলকাতা পৌরসভার হাতে আসা এক নথিতে দেখা যাচ্ছে, একটি আর্থিক সংস্থাকে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন দেবাঞ্জন দেব নামের এক ব্যক্তি। সরলা ডেভেলপমেন্ট মাইক্রো ফিনান্স প্রাইভেট লিমিটেড নামের এক প্রতিষ্ঠানের কাছে তিনি ওই টিকা বিক্রি করেন। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

খবরে বলা হয়, কলকাতার কসবায় ভুয়া টিকাকরণ কেন্দ্র চালানোয় অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবের বিরুদ্ধে ভুয়ো টিকা বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। একটি আর্থিক সংস্থাকে চড়া মূল্যে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন তিনি। সেই টিকা আসল না নকল, তা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা।

কলকাতা পৌরসভার হাতে আসা এক নথিতে দেখা যাচ্ছে সরলা ডেভেলপমেন্ট মাইক্রোফিনান্স প্রাইভেট লিমিটেড নামে একটি আর্থিক সংস্থাকে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন দেবাঞ্জন। যার দাম বাবদ ১.১১ লক্ষ টাকা দেবাঞ্জনকে দিয়েছিল সংস্থাটি। সেই টিকা জাল বলেই অনুমান তদন্তকারীদের। সঙ্গে আর কোনও সংস্থাকে সে এভাবে টিকা বিক্রি করেছিল কি না তা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। এই চক্রে রাজ্য সরকার বা কলকাতা পুরসভার কোনও আধিকারিক যুক্ত কি না তাও খতিয়ে দেখছেন তারা।

সপ্তহকয়েক আগে কসবায় নিজের অফিসের কর্মীদের টিকা দেয় দেবাঞ্জন। তাদের স্পুটনিক ভি টিকা দেওয়া হয় বলে দাবি। কিন্তু গোয়েন্দাদের প্রশ্ন, স্পুটনিক ভি টিকা সে পেল কোথা থেকে? কারণ গত কয়েক সপ্তাহে কলকাতায় পরীক্ষামূলকভাবে স্পুটনিক ভি দেওয়া হচ্ছে। শহরে পৌঁছেছে অল্প কিছু টিকা। সেই টিকাও জাল বলেই মনে করছেন তদন্তকারীরা। টিকা নেওয়ার পর কর্মীদের কাছেও কোনও এসএমএস পৌঁছায়নি বলে দাবি করেছেন তারা।

চড়া দামে ভারতে জাল টিকা বিক্রির অভিযোগ

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ জুন ২০২১, ০৭:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের কলকাতা পৌরসভার হাতে আসা এক নথিতে দেখা যাচ্ছে, একটি আর্থিক সংস্থাকে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন দেবাঞ্জন দেব নামের এক ব্যক্তি। সরলা ডেভেলপমেন্ট মাইক্রো ফিনান্স প্রাইভেট লিমিটেড নামের এক প্রতিষ্ঠানের কাছে তিনি ওই টিকা বিক্রি করেন। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের। 
 
খবরে বলা হয়, কলকাতার কসবায় ভুয়া টিকাকরণ কেন্দ্র চালানোয় অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবের বিরুদ্ধে ভুয়ো টিকা বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। একটি আর্থিক সংস্থাকে চড়া মূল্যে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন তিনি। সেই টিকা আসল না নকল, তা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা।

কলকাতা পৌরসভার হাতে আসা এক নথিতে দেখা যাচ্ছে সরলা ডেভেলপমেন্ট মাইক্রোফিনান্স প্রাইভেট লিমিটেড নামে একটি আর্থিক সংস্থাকে ১৭১টি করোনার টিকা বিক্রি করেছিলেন দেবাঞ্জন। যার দাম বাবদ ১.১১ লক্ষ টাকা দেবাঞ্জনকে দিয়েছিল সংস্থাটি। সেই টিকা জাল বলেই অনুমান তদন্তকারীদের। সঙ্গে আর কোনও সংস্থাকে সে এভাবে টিকা বিক্রি করেছিল কি না তা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। এই চক্রে রাজ্য সরকার বা কলকাতা পুরসভার কোনও আধিকারিক যুক্ত কি না তাও খতিয়ে দেখছেন তারা।

সপ্তহকয়েক আগে কসবায় নিজের অফিসের কর্মীদের টিকা দেয় দেবাঞ্জন। তাদের স্পুটনিক ভি টিকা দেওয়া হয় বলে দাবি। কিন্তু গোয়েন্দাদের প্রশ্ন, স্পুটনিক ভি টিকা সে পেল কোথা থেকে? কারণ গত কয়েক সপ্তাহে কলকাতায় পরীক্ষামূলকভাবে স্পুটনিক ভি দেওয়া হচ্ছে। শহরে পৌঁছেছে অল্প কিছু টিকা। সেই টিকাও জাল বলেই মনে করছেন তদন্তকারীরা। টিকা নেওয়ার পর কর্মীদের কাছেও কোনও এসএমএস পৌঁছায়নি বলে দাবি করেছেন তারা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস