‘করোনার টিকার বড় চালান পাচ্ছে বাংলাদেশ’
jugantor
‘করোনার টিকার বড় চালান পাচ্ছে বাংলাদেশ’

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:১৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

‘করোনার টিকার বড় চালান পাচ্ছে বাংলাদেশ’

বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের টিকার বড় একটি চালান পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

দেশে যে পরিমাণ টিকা এসেছে এবং আরও যা আসার অপেক্ষায় রয়েছে সব মিলিয়ে ২৪ কোটি টিকা লাইনে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার ডাচ-বাংলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিবিসিসিআই) আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দরকার ২৬ কোটি টিকা। আমরা ২৪ কোটি পাচ্ছি, আপাতত আমরা এটাতেই খুশি। এটা আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে আসবে। যেহেতু আমরা টিকা লোকালি প্রডিউস করব আপাতত আমরা ২৪ কোটিতেই খুশি। আমরা আশা করি, এর মধ্যে আমাদের অধিকাংশ লোককে টিকার আওতায় আনতে পারব।

ড. মোমেন বলেন, আমরা কোভাক্সের মাধ্যমে বড় একটা লট পাব। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যখন বলবে তখনই ওরা দেবে। এটা কোভ্যাক্সের আওতায় আর সিনোফার্ম বিক্রি করেছে সেটা থেকে পাওয়া যাবে।

করোনাভাইরাসের টিকার এক ডোজ না নেওয়া সত্ত্বেও ব্রিটেন অন্য দেশের নাগরিকদের দেশটিতে আশ্রয় দিচ্ছে, অথচ বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য দেশটিতে প্রবেশে রেড লিস্ট রাখার বিষয়টি নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।


‘করোনার টিকার বড় চালান পাচ্ছে বাংলাদেশ’

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘করোনার টিকার বড় চালান পাচ্ছে বাংলাদেশ’
ফাইল ছবি

বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের টিকার বড় একটি চালান পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। 
 
দেশে যে পরিমাণ টিকা এসেছে এবং আরও যা আসার অপেক্ষায় রয়েছে সব মিলিয়ে ২৪ কোটি টিকা লাইনে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। 

বুধবার ডাচ-বাংলা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিবিসিসিআই) আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দরকার ২৬ কোটি টিকা। আমরা ২৪ কোটি পাচ্ছি, আপাতত আমরা এটাতেই খুশি। এটা আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে আসবে। যেহেতু আমরা টিকা লোকালি প্রডিউস করব আপাতত আমরা ২৪ কোটিতেই খুশি। আমরা আশা করি, এর মধ্যে আমাদের অধিকাংশ লোককে টিকার আওতায় আনতে পারব।

ড. মোমেন বলেন, আমরা কোভাক্সের মাধ্যমে বড় একটা লট পাব। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যখন বলবে তখনই ওরা দেবে। এটা কোভ্যাক্সের আওতায় আর সিনোফার্ম বিক্রি করেছে সেটা থেকে পাওয়া যাবে।

করোনাভাইরাসের টিকার এক ডোজ না নেওয়া সত্ত্বেও ব্রিটেন অন্য দেশের নাগরিকদের দেশটিতে আশ্রয় দিচ্ছে, অথচ বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য দেশটিতে প্রবেশে রেড লিস্ট রাখার বিষয়টি নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২০ অক্টোবর, ২০২১
১৭ অক্টোবর, ২০২১