দ্বিতীয় ডোজ টিকার পর ৯৯ শতাংশের বেশি অ্যান্টিবডি
jugantor
সিভাসুর গবেষণা
দ্বিতীয় ডোজ টিকার পর ৯৯ শতাংশের বেশি অ্যান্টিবডি

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:২৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

দ্বিতীয় ডোজ টিকার পর ৯৯ শতাংশের বেশি অ্যান্টিবডি

কোভিড-১৯ টিকার প্রথম ডোজ নেওয়ার পর মানবদেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হয় ৬২ দশমিক ৩৩ শতাংশ। আর দ্বিতীয় ডোজের পর তৈরি হয় ৯৯ দশমিক ১৩ শতাংশ। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) এক গবেষণায় এ তথ্য ওঠে এসেছে।

সিভাসু উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশের নেতৃত্বে এক দল গবেষক কোভিড-১৯ এর অ্যান্টিবডির ব্যাপকতা (প্রিভেলেন্স) ও পরিমাণ নির্ণয়ে এ গবেষণা পরিচালনা করেন। মঙ্গলবার সিভাসু থেকে পাঠানো গবেষণাপত্রে এসব তথ্য জানানো হয়।

৭৪৬ স্বাস্থ্য ও পোশাক কর্মীর ওপর চলতি বছরের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ গবেষণা চালানো হয়। যাদের ওপর গবেষণা চালানো হয়েছে, এরমধ্যে প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন। এছাড়া দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন প্রায় ৩১ শতাংশ মানুষ। বাকিরা টিকা গ্রহণ করেননি।

সূত্র জানায়, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় দেশে চলমান টিকা প্রদান কর্মসূচির প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরতে এ গবেষণা চালানো হয়। চট্টগ্রামের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স, রোগীর এটেনডেন্ট, আউটডোর ও ইনডোর রোগী (কোভিড-১৯ আক্রান্ত নয় এমন), পরিচ্ছন্নতা কর্মী এবং পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের সার্স-কোভ-২ এর উপসর্গযুক্ত, উপসর্গহীন ব্যক্তিদের ওপর পরিচালনা করা হয়েছে।

গবেষণায় দেখা যায়, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ছয় মাস পরেও কোভিড-১৯ থেকে সুরক্ষা দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত পরিমাণ এন্টিবডি শরীরে উপস্থিত থাকে।

সিভাসুর গবেষণা

দ্বিতীয় ডোজ টিকার পর ৯৯ শতাংশের বেশি অ্যান্টিবডি

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দ্বিতীয় ডোজ টিকার পর ৯৯ শতাংশের বেশি অ্যান্টিবডি
ফাইল ছবি

কোভিড-১৯ টিকার প্রথম ডোজ নেওয়ার পর মানবদেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হয় ৬২ দশমিক ৩৩ শতাংশ। আর দ্বিতীয় ডোজের পর তৈরি হয় ৯৯ দশমিক ১৩ শতাংশ। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) এক গবেষণায় এ তথ্য ওঠে এসেছে। 

সিভাসু উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশের নেতৃত্বে এক দল গবেষক কোভিড-১৯ এর অ্যান্টিবডির ব্যাপকতা (প্রিভেলেন্স) ও পরিমাণ নির্ণয়ে এ গবেষণা পরিচালনা করেন। মঙ্গলবার সিভাসু থেকে পাঠানো গবেষণাপত্রে এসব তথ্য জানানো হয়।

৭৪৬ স্বাস্থ্য ও পোশাক কর্মীর ওপর চলতি বছরের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ গবেষণা চালানো হয়। যাদের ওপর গবেষণা চালানো হয়েছে, এরমধ্যে প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন। এছাড়া দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন প্রায় ৩১ শতাংশ মানুষ। বাকিরা টিকা গ্রহণ করেননি। 

সূত্র জানায়, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় দেশে চলমান টিকা প্রদান কর্মসূচির প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরতে এ গবেষণা চালানো হয়। চট্টগ্রামের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স, রোগীর এটেনডেন্ট, আউটডোর ও ইনডোর রোগী (কোভিড-১৯ আক্রান্ত নয় এমন), পরিচ্ছন্নতা কর্মী এবং পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের সার্স-কোভ-২ এর উপসর্গযুক্ত, উপসর্গহীন ব্যক্তিদের ওপর পরিচালনা করা হয়েছে।

গবেষণায় দেখা যায়, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ছয় মাস পরেও কোভিড-১৯ থেকে সুরক্ষা দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত পরিমাণ এন্টিবডি শরীরে উপস্থিত থাকে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২০ অক্টোবর, ২০২১
১৭ অক্টোবর, ২০২১