ফের বাড়াছে সংক্রমণ, কারিগরি কমিটির ৬ পরামর্শ
jugantor
ফের বাড়াছে সংক্রমণ, কারিগরি কমিটির ৬ পরামর্শ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৫ জুন ২০২২, ২২:১১:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সম্প্রতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বেড়ে যাওয়ায় পুনরায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করাসহ ছয়টি পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

পুনরায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করা এবং কোভিড টিকা গ্রহনে সবাইকে পুনরায় উদ্বুদ্ধ করা সহ ছয়টি পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

বুধবার কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় , মঙ্গলবার (১৪ জুন) রাতে অনলাইন যোগাযোগ মাধ্যম জুমে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি কমিটির সভার পর ছয়টি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো হলো-
১) স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জনসাধারণকে পূণরায় উদ্বুদ্ধ করতে সকল প্রকার গণমাধ্যমে অনুরোধ জানাতে হবে। সকল ক্ষেত্রে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা, ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি প্রয়োগ করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম বর্জন করা প্রয়োজন। ধর্মীয় প্রার্থনার স্থানগুলোতে (যেমন- মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি) মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা দরকার।

২) যাদের জ্বর, সর্দি, কাশি হচ্ছে তারাও অনেকে কোভিড টেস্ট করেছেন না এতে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না এবং এ কারণে সংক্রমণ বাড়ছে। এ জন্য যাদের উপসর্গ দেখা দিচ্ছে এবং যারা কেভিড-১৯ আক্রান্ত মানুষের সংস্পর্শে আসছেন তাদের টেস্ট করার জন্য অনুরোধ করতে হবে।

৩) যেসব দেশে কোভিড-১৯ জীবানুর ভ্যারিয়েন্ট ও সাব ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমণের হার বেশি সেসব দেশ থেকে আমাদের দেশে আগত আক্রান্ত মানুষের মাধ্যমে প্রবেশ করছে বলে মনে করা হয়। এ জন্য বিমান, স্থল ও নৌবন্দরগুলোতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এ জন্য প্রয়োজনে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ, টিকা সনদ আবশ্যক করতে হবে। বিশেষত, অধিক আক্রান্ত দেশগুলো হতে আগত যাত্রীদের জন্য। সন্দেহজনক ব্যক্তিদের rapid antigen test করার ব্যবস্থা করতে হবে। সংক্রমন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

৪) কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন এর দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডোজ যারা এখনও নিতে পারেননি তাদের এটা নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী করতে হবে। ৫ থেকে ১২ বৎসরের শিশুদের ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যাপারে নিটাগ (nitag) এর পরামর্শ অনুসরণ করা দরকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চতুর্থ ডোজ অনুমোদন করলে তা নিবেচনা করতে হবে। কোভিড-১৯ এর ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করার জন্য সম্ভাব্যতা বিবেচনা করা দরকার। ভ্যাকসিন পরবর্তী প্রতিরোধ ক্ষমতা কতদিন বজায় থাকছে যে সম্পর্কে গবেষণা করা প্রয়োজন।

৫) কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য যে বিশেষ শয্যা, আইসিইউ ব্যবস্থা ও জনবল ছিল, তা বর্ধিত হারে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য যথাযথভাবে প্রস্তুত রাখা প্রয়োজন।

৬) সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করা যেতে পারে।

ফের বাড়াছে সংক্রমণ, কারিগরি কমিটির ৬ পরামর্শ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৫ জুন ২০২২, ১০:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সম্প্রতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বেড়ে যাওয়ায় পুনরায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করাসহ ছয়টি পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

পুনরায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করা এবং কোভিড টিকা গ্রহনে সবাইকে পুনরায় উদ্বুদ্ধ করা সহ ছয়টি পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

বুধবার কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় , মঙ্গলবার (১৪ জুন) রাতে অনলাইন যোগাযোগ মাধ্যম জুমে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি কমিটির সভার পর ছয়টি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো হলো-
১) স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জনসাধারণকে পূণরায় উদ্বুদ্ধ করতে সকল প্রকার গণমাধ্যমে অনুরোধ জানাতে হবে। সকল ক্ষেত্রে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা, ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি প্রয়োগ করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম বর্জন করা প্রয়োজন। ধর্মীয় প্রার্থনার স্থানগুলোতে (যেমন- মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি) মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা দরকার।

২) যাদের জ্বর, সর্দি, কাশি হচ্ছে তারাও অনেকে কোভিড টেস্ট করেছেন না এতে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না এবং এ কারণে সংক্রমণ বাড়ছে। এ জন্য যাদের উপসর্গ দেখা দিচ্ছে এবং যারা কেভিড-১৯ আক্রান্ত মানুষের সংস্পর্শে আসছেন তাদের টেস্ট করার জন্য অনুরোধ করতে হবে।

৩) যেসব দেশে কোভিড-১৯ জীবানুর ভ্যারিয়েন্ট ও সাব ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমণের হার বেশি সেসব দেশ থেকে আমাদের দেশে আগত আক্রান্ত মানুষের মাধ্যমে প্রবেশ করছে বলে মনে করা হয়। এ জন্য বিমান, স্থল ও নৌবন্দরগুলোতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এ জন্য প্রয়োজনে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ, টিকা সনদ আবশ্যক করতে হবে। বিশেষত, অধিক আক্রান্ত দেশগুলো হতে আগত যাত্রীদের জন্য। সন্দেহজনক ব্যক্তিদের rapid antigen test করার ব্যবস্থা করতে হবে। সংক্রমন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

৪) কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন এর দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডোজ যারা এখনও নিতে পারেননি তাদের এটা নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহী করতে হবে। ৫ থেকে ১২ বৎসরের শিশুদের ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যাপারে নিটাগ (nitag) এর পরামর্শ অনুসরণ করা দরকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চতুর্থ ডোজ অনুমোদন করলে তা নিবেচনা করতে হবে।  কোভিড-১৯ এর ভ্যারিয়েন্ট  শনাক্ত করার জন্য সম্ভাব্যতা বিবেচনা করা দরকার। ভ্যাকসিন পরবর্তী প্রতিরোধ ক্ষমতা কতদিন বজায় থাকছে যে সম্পর্কে গবেষণা করা প্রয়োজন।

৫) কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য যে বিশেষ শয্যা, আইসিইউ ব্যবস্থা ও জনবল ছিল, তা বর্ধিত হারে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য যথাযথভাবে প্রস্তুত রাখা প্রয়োজন।

৬) সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করা যেতে পারে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

১৮ জুন, ২০২২