টিকার প্রথম-দ্বিতীয় ডোজ বন্ধের সময় জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
jugantor
টিকার প্রথম-দ্বিতীয় ডোজ বন্ধের সময় জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:০৭:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

আগামী ৩ অক্টোবরের পর আর করোনার ১ম ও ২য় ডোজ টিকা দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালক অধ্যা্পক ডা. আবুল বাশার খুরশীদ আলম। কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, ওই সময়ের পর মজুদ টিকার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্যা অধিদপ্তরের নতুন ভবন সভাকক্ষে টিকা ক্যাম্পেইন বিষয়ে এক জরুরি প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালক।

এ সময় তিনি বলেন, চতুর্থ ডোজ দেওয়ার বিষয়ে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন এখনো পাওয়া যায়নি। তাই চতুর্থ ডোজের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাচ্ছে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে ২৯ কোটি ৮৬ লাখ ২৪ হাজার ডোজ টিকা দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৭৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ, দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৭৩ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং বুস্টার ডোজ নিয়েছেন মাত্র ২৭ শতাংশ মানুষ।

বার বার তাগাদা, বিশেষ ক্যাম্পেইন করার পরও অনেক মানুষ টিকাদানে খুব-একটা সাড়া দিচ্ছেন না। এখনো কয়েক কোটি মানুষ টিকার বাইরে রয়েছেন। এ অবস্থায় দেশে মজুত প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের টিকার মেয়াদ আগামী মাসেই শেষ হয়ে যাচ্ছে।

সরকারের তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। দেশের ৮০ ভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলেও কয়েক কোটি মানুষ এখনো টিকার বাইরে। তাই বুধবার সারা দেশে শেষবারের মতো সপ্তাহব্যাপী গণটিকা ক্যাম্পেইন শুরু করছে সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত গণটিকা ক্যাম্পেইন চলবে।

টিকার প্রথম-দ্বিতীয় ডোজ বন্ধের সময় জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আগামী ৩ অক্টোবরের পর আর করোনার ১ম ও ২য় ডোজ টিকা দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালক অধ্যা্পক ডা. আবুল বাশার খুরশীদ আলম। কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, ওই সময়ের পর মজুদ টিকার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্যা অধিদপ্তরের নতুন ভবন সভাকক্ষে টিকা ক্যাম্পেইন  বিষয়ে এক জরুরি প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালক।  

এ সময় তিনি বলেন, চতুর্থ ডোজ দেওয়ার বিষয়ে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন এখনো পাওয়া যায়নি। তাই চতুর্থ ডোজের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাচ্ছে না।  

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে ২৯ কোটি ৮৬ লাখ ২৪ হাজার ডোজ টিকা দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৭৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ, দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৭৩ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং বুস্টার ডোজ নিয়েছেন মাত্র ২৭ শতাংশ মানুষ।

বার বার তাগাদা, বিশেষ ক্যাম্পেইন করার পরও অনেক মানুষ টিকাদানে খুব-একটা সাড়া দিচ্ছেন না। এখনো কয়েক কোটি মানুষ টিকার বাইরে রয়েছেন। এ অবস্থায় দেশে মজুত প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের টিকার মেয়াদ আগামী মাসেই শেষ হয়ে যাচ্ছে। 

সরকারের তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। দেশের ৮০ ভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলেও কয়েক কোটি মানুষ এখনো টিকার বাইরে। তাই বুধবার সারা দেশে শেষবারের মতো সপ্তাহব্যাপী গণটিকা ক্যাম্পেইন শুরু করছে সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত গণটিকা ক্যাম্পেইন চলবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন