চীনে ফের লকডাউন, একদিনে আক্রান্ত আড়াই হাজার
jugantor
চীনে ফের লকডাউন, একদিনে আক্রান্ত আড়াই হাজার

  অনলাইন ডেস্ক  

১০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:০৪:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় দক্ষিণ চীনের গুয়াংঝো প্রদেশে ফের লকডাউন জারি করল শি জিনপিং সরকার।

গুয়াংঝো প্রদেশকে চীনের উৎপাদন কেন্দ্র বলা হয়। সেই জায়গায় আবারও লকডাউন চালু করায় চীনের ধুঁকতে থাকা অর্থনীতি আরও ধাক্কা খাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এক কোটি ৩০ লাখ জনসংখ্যার গুয়াংঝোতে গত ২৪ ঘণ্টায় আড়াই হাজারের ওপর লোকজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর পরেই আকস্মিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় দেশটির সরকার।খবর রয়টার্সের।

ওই প্রদেশের কর্তৃপক্ষ প্রায় পাঁচ লাখ বাসিন্দাকে বাড়ি থেকে বার হতে নিষেধ করেছেন। গণপরিবহণ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে স্কুল এবং কলেজ। গুয়াংঝো থেকে বেজিংসহ অন্যান্য বড় শহরগামী সব বিমান পরিষেবা বাতিল করা হয়েছে।

আক্রান্তের সংখ্যা কমে আসায় এবং মৃত্যু সংখ্যা প্রায় শূন্য হয়ে যাওয়ায় বিশ্বের সব দেশ তাদের কোভিডবিধি শিথিল করে নিয়েছে। যদিও চীন তাদের সিদ্ধান্তে এখনও অনড়।

তারা বিধিনিষেধ শিথিল করতে রাজি নয়। বারবার বিধিনিষেধের ফলে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রায়শই বিবাদ বাধছে সরকারি কর্মকর্তাদের।

প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের নেতৃত্বাধীন কমিউনিস্ট পার্টি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) কোভিডবিধি শিথিল করে নেওয়ার আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে আগেই। করোনা টিকা আমদানি করতেও অস্বীকার করেছে চীনের সরকার।

চীনে ফের লকডাউন, একদিনে আক্রান্ত আড়াই হাজার

 অনলাইন ডেস্ক 
১০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:০৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় দক্ষিণ চীনের গুয়াংঝো প্রদেশে ফের লকডাউন জারি করল শি জিনপিং সরকার।

গুয়াংঝো প্রদেশকে চীনের উৎপাদন কেন্দ্র বলা হয়। সেই জায়গায় আবারও লকডাউন চালু করায় চীনের ধুঁকতে থাকা অর্থনীতি আরও ধাক্কা খাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এক কোটি ৩০ লাখ জনসংখ্যার গুয়াংঝোতে গত ২৪ ঘণ্টায় আড়াই হাজারের ওপর লোকজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর পরেই আকস্মিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয় দেশটির সরকার।খবর রয়টার্সের।

ওই প্রদেশের কর্তৃপক্ষ প্রায় পাঁচ লাখ বাসিন্দাকে বাড়ি থেকে বার হতে নিষেধ করেছেন। গণপরিবহণ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে স্কুল এবং কলেজ। গুয়াংঝো থেকে বেজিংসহ অন্যান্য বড় শহরগামী সব বিমান পরিষেবা বাতিল করা হয়েছে।

আক্রান্তের সংখ্যা কমে আসায় এবং মৃত্যু সংখ্যা প্রায় শূন্য হয়ে যাওয়ায় বিশ্বের সব দেশ তাদের কোভিডবিধি শিথিল করে নিয়েছে। যদিও চীন তাদের সিদ্ধান্তে এখনও অনড়।

তারা বিধিনিষেধ শিথিল করতে রাজি নয়। বারবার বিধিনিষেধের ফলে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রায়শই বিবাদ বাধছে সরকারি কর্মকর্তাদের।

প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের নেতৃত্বাধীন কমিউনিস্ট পার্টি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) কোভিডবিধি শিথিল করে নেওয়ার আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে আগেই। করোনা টিকা আমদানি করতেও অস্বীকার করেছে চীনের সরকার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
২৮ ডিসেম্বর, ২০২২