আম খেলে কি ওজন বাড়ে?
jugantor
আম খেলে কি ওজন বাড়ে?

  লাইফস্টাইল ডেস্ক  

০৯ জুন ২০২১, ১৪:৩৪:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণেভরা আম। রসালো এই ফল কার না পছন্দ? তবে অনেকে মন চাইলেও আম খেতে চান না, ওজন বাড়ার ভয়ে। অনেকে আবার ডায়াবেটিসের ভয়ে আম পরিহার করেন। আসলে কি আম খেলে ওজন বাড়ে?

মৌসুমি ফল আম দেহের নানান রকম পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে। আর মোটা হয়ে যাওয়ার বিষয়টিও ঠিক নয়।

আমে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ও মিনারেল। এটি হজম ক্ষমতা বাড়ায়। সেই সঙ্গে শরীরের বিভিন্ন ধরনের ভিটামিনের ঘাটতি দূর করে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভারতের প্রখ্যাত পুষ্টিবিদ পুজা মাখিজা বলেন, আমে রেয়েছে ভিটামিন এ, সি, কপার এবং ফোলাট। আর চর্বির পরিমাণ মাত্র এক শতাংশ।

আর এই ফল হজম প্রক্রিয়া ঠিক রাখার পাশাপাশি এর ভোজ্য আঁশ হৃদরোগ ও টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।

পুষ্টিবিজ্ঞানীরা জানান, পাকা আমে ক্যারোটিনের মাত্রা বেশি। প্রতি ১০০ গ্রাম আমে ২৭৪০ মাইক্রো গ্রাম ক্যারোটিন থাকে। আম শ্বেতসারের ভালো উৎস। প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা আমে ২০ গ্রাম শ্বেতসার পাওয়া যায়। রয়েছে ১০৭ ক্যালরি, ৩ গ্রাম আঁশ, ২৪ গ্রাম শর্করা। এছাড়া এতে রয়েছে ২৫৭ মি.গ্রা. পটাসিয়াম, ০.২ মি.গ্রা ভিটামিন বি-৬।

এতে ১.৩ গ্রাম আয়রণ, ১৪ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম, ১৬ মি.গ্রা. ফসফরাস, ১৬ মি.গ্রা. ভিটামিন সি, ০.৯ মি.গ্রা. রিভোফ্লেভিন এবং ০.০৮ মি.গ্রা. থায়ামিন থাকে।

এছাড়াও পাকা আমে রয়েছে ভিটামিন বি-১ ও বি-২।

প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা আমে ০.১ মি.গ্রা. ভিটামিন বি-১ ও ০.০৭ মি.গ্রা. বি-২ রয়েছে।

দৈনিক চাহিদার ২৫ শতাংশ ভিটামিন ‘এ’ এবং ৭৬ শতাংশ ভিটামিন ‘সি’ আম থেকে মিলতে পারে।

পাকা আমের উপকারিতা সম্পর্কে পুষ্টিবিদেরা জানান, আমের পুষ্টি উপাদান শরীরের নানাভাবে শক্তি জুগিয়ে ও ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করে মানবদেহ সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

দৈনিক চাহিদার ২৫ শতাংশ ভিটামিন ‘এ পাওয়া যায় আমে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন ‘এ’য়ের গুরুত্ব অপরিসীম। পাশপাশি কিডনি, যকৃত, হৃদপিণ্ড ও অন্যান্য অংগপ্রত্যঙ্গ সুস্থ রাখে সাহায্য করে।

আম খেলে কি ওজন বাড়ে?

 লাইফস্টাইল ডেস্ক 
০৯ জুন ২০২১, ০২:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণে ভরা আম।  রসালো এই ফল কার না পছন্দ? তবে অনেকে মন চাইলেও আম খেতে চান না, ওজন বাড়ার ভয়ে।  অনেকে আবার ডায়াবেটিসের ভয়ে আম পরিহার করেন।  আসলে কি আম খেলে ওজন বাড়ে? 

মৌসুমি ফল আম দেহের নানান রকম পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে। আর মোটা হয়ে যাওয়ার বিষয়টিও ঠিক নয়।

আমে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ও মিনারেল।  এটি হজম ক্ষমতা বাড়ায়।  সেই সঙ্গে শরীরের বিভিন্ন ধরনের ভিটামিনের ঘাটতি দূর করে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভারতের প্রখ্যাত পুষ্টিবিদ পুজা মাখিজা বলেন, আমে রেয়েছে ভিটামিন এ, সি, কপার এবং ফোলাট।  আর চর্বির পরিমাণ মাত্র এক শতাংশ।

আর এই ফল হজম প্রক্রিয়া ঠিক রাখার পাশাপাশি এর ভোজ্য আঁশ হৃদরোগ ও টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।

পুষ্টিবিজ্ঞানীরা জানান, পাকা আমে ক্যারোটিনের মাত্রা বেশি।  প্রতি ১০০ গ্রাম আমে ২৭৪০ মাইক্রো গ্রাম ক্যারোটিন থাকে। আম শ্বেতসারের ভালো উৎস।  প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা আমে ২০ গ্রাম শ্বেতসার পাওয়া যায়।  রয়েছে ১০৭ ক্যালরি, ৩ গ্রাম আঁশ, ২৪ গ্রাম শর্করা।  এছাড়া এতে রয়েছে ২৫৭ মি.গ্রা. পটাসিয়াম, ০.২ মি.গ্রা ভিটামিন বি-৬।

এতে ১.৩ গ্রাম আয়রণ, ১৪ মি.গ্রা. ক্যালসিয়াম, ১৬ মি.গ্রা. ফসফরাস, ১৬ মি.গ্রা. ভিটামিন সি, ০.৯ মি.গ্রা. রিভোফ্লেভিন এবং ০.০৮ মি.গ্রা. থায়ামিন থাকে।

এছাড়াও পাকা আমে রয়েছে ভিটামিন বি-১ ও বি-২।

প্রতি ১০০ গ্রাম পাকা আমে ০.১ মি.গ্রা. ভিটামিন বি-১ ও ০.০৭ মি.গ্রা. বি-২ রয়েছে।

দৈনিক চাহিদার ২৫ শতাংশ ভিটামিন ‘এ’ এবং  ৭৬ শতাংশ ভিটামিন ‘সি’ আম থেকে মিলতে পারে।

পাকা আমের উপকারিতা সম্পর্কে পুষ্টিবিদেরা জানান, আমের পুষ্টি উপাদান শরীরের নানাভাবে শক্তি জুগিয়ে ও ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করে মানবদেহ সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

দৈনিক চাহিদার ২৫ শতাংশ ভিটামিন ‘এ পাওয়া যায় আমে।  রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন ‘এ’য়ের গুরুত্ব অপরিসীম। পাশপাশি কিডনি, যকৃত, হৃদপিণ্ড ও অন্যান্য অংগপ্রত্যঙ্গ সুস্থ রাখে সাহায্য করে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন