রক্তচাপ মাপা কেন গুরুত্বপূর্ণ?
jugantor
রক্তচাপ মাপা কেন গুরুত্বপূর্ণ?

  অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ  

১৭ মে ২০২২, ১০:১৯:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ

পৃথিবীর ৮৭ কোটিরও বেশি মানুষ উচ্চরক্তচাপে ভুগছেন। বিশ্বব্যাপী ৫০ ভাগ লোক জানে না যে তারা মরণঘাতী একটি রোগে ভুগছেন। আর যারা জানে তাদের ৫০ ভাগ ঠিকমতো ওষুধ খান না। আর যারা ওষুধ খান তাদের ৫০ ভাগ নিয়মিত তা কন্ট্রোল করেন না।

অর্থাৎ, ফাইনালি যাদের উচ্চরক্তচাপ আছে, তাদের মধ্যে ১২.৫০ ভাগ লোকের উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে। বাকিদের নিয়ন্ত্রণে নেই। উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে না থাকলে ভয়াবহ পরিণতি হতে পারে।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বিশ্বে প্রতি বছর বিভিন্ন রোগে ৫ কোটির বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। (তবে করোনার কারণে গত দুই বছরে অতিরিক্ত ৬৩ লাখ লোক মারা গিয়েছে। ) এর মধ্যে ১ কোটি ৭০ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে কার্ডিওভাস্কুলারে (হার্ট অ্যাটাক, হার্ট ফেইলুর, ব্রেইন স্ট্রোক, উচ্চরক্তচাপ ও কিডনি ফেইলুর) হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এর মধ্যে ৯৪ লাখ মানুষের মৃত্যু হয় সরাসরি উচ্চরক্তচাপের জন্য। এজন্য উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ খুবই জরুরি।

উচ্চরক্তচাপের কারণে কী কী হতে পারে?

হার্ট অ্যাটাক হতে পারে, হার্টের বিভিন্ন ধরনের অসুখ হতে পারে। ব্রেইন স্ট্রোক হতে পারে, যার কারণে মানুষ প্যারালাইজড হয়ে যায়। পাশাপাশি কিডনি ফেইলুর হতে পারে। আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর রক্তনালীগুলো ডেমেজ হয়ে যেতে পারে। অন্ধত্ববরণ হতে পারে।


কিডনি রোগের সঙ্গে উচ্চরক্তচাপের সম্পর্ক কী? সঠিকভাবে রক্তচাপ মাপতে হয় কীভাবে? ওষুধ ছাড়া উচ্চরক্তচাপ কন্ট্রোলের নিয়ম, উচ্চরক্তচাপ না হওয়ার জন্য করণীয় কী? এসব বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন দেশের প্রখ্যাত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ। বিস্তারিত দেখুনভিডিওতে

রক্তচাপ মাপা কেন গুরুত্বপূর্ণ?

 অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ 
১৭ মে ২০২২, ১০:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ
অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ। ফাইল ছবি

পৃথিবীর ৮৭ কোটিরও বেশি মানুষ উচ্চরক্তচাপে ভুগছেন।  বিশ্বব্যাপী ৫০ ভাগ লোক জানে না যে তারা মরণঘাতী একটি রোগে ভুগছেন। আর যারা জানে তাদের ৫০ ভাগ ঠিকমতো ওষুধ খান না। আর যারা ওষুধ খান তাদের ৫০ ভাগ নিয়মিত তা কন্ট্রোল করেন না। 

অর্থাৎ, ফাইনালি যাদের উচ্চরক্তচাপ আছে, তাদের মধ্যে ১২.৫০ ভাগ লোকের উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে। বাকিদের নিয়ন্ত্রণে নেই। উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে না থাকলে ভয়াবহ পরিণতি হতে পারে। 

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বিশ্বে প্রতি বছর বিভিন্ন রোগে ৫ কোটির বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। (তবে করোনার কারণে গত দুই বছরে অতিরিক্ত ৬৩ লাখ লোক মারা গিয়েছে। ) এর মধ্যে ১ কোটি ৭০ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে কার্ডিওভাস্কুলারে (হার্ট অ্যাটাক, হার্ট ফেইলুর, ব্রেইন স্ট্রোক, উচ্চরক্তচাপ ও কিডনি ফেইলুর) হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এর মধ্যে ৯৪ লাখ মানুষের মৃত্যু হয় সরাসরি উচ্চরক্তচাপের জন্য। এজন্য উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ খুবই জরুরি। 

উচ্চরক্তচাপের কারণে কী কী হতে পারে?

হার্ট অ্যাটাক হতে পারে, হার্টের বিভিন্ন ধরনের অসুখ হতে পারে। ব্রেইন স্ট্রোক হতে পারে, যার কারণে মানুষ প্যারালাইজড হয়ে যায়। পাশাপাশি কিডনি ফেইলুর হতে পারে। আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর রক্তনালীগুলো ডেমেজ হয়ে যেতে পারে। অন্ধত্ববরণ হতে পারে। 


কিডনি রোগের সঙ্গে উচ্চরক্তচাপের সম্পর্ক কী? সঠিকভাবে রক্তচাপ মাপতে হয় কীভাবে? ওষুধ ছাড়া উচ্চরক্তচাপ কন্ট্রোলের নিয়ম, উচ্চরক্তচাপ না হওয়ার জন্য করণীয় কী? এসব বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন দেশের প্রখ্যাত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ। বিস্তারিত দেখুন ভিডিওতে

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন