চিকিৎসকের সর্বোচ্চ সেবা পেতে কী করবেন?

  ডা. মুহিব্বুর রহমান রাফে ২০ জুন ২০১৮, ২২:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

চিকিৎসকের সর্বোচ্চ সেবা পেতে কী করবেন?
প্রতীকী ছবি

আপনার প্রয়োজন নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসক নাকি সন্তোষজনক চিকিৎসা আগে ফিক্স করে নিন। ছোটখাটো জ্বর, কাশি, মাথাব্যথা, কয়েক দিনের রোগের জন্য এমবিবিএস চিকিৎসকদের দেখান, তারাই যথেষ্ট। অধ্যাপক স্যারদের বার্ডেন করবেন না। প্রয়োজনে তারাই আপনাকে সঠিক চিকিৎসকের কাছে রেফার করবে। নচেৎ এমনও হতে পারে আপনি বিনা বা স্বল্প কারণে অযথা বেশি কষ্ট করছেন।

দুই. পছন্দের বিশেষজ্ঞ সম্পর্কে আগেই খোঁজ নিয়ে যাবেন। এটাই স্মার্টনেস। উনি খুব ব্যস্ত কিনা সেটাও জেনে যাবেন, কারণ সিনিয়ররা ব্যস্ত থাকবেন, এটাই স্বাভাবিক। স্বল্প সময়ে সঠিক চিকিৎসার বিষয়টি মেনে নিয়ে তার চিকিৎসায় আস্থা রাখুন। পরে সময় পেলাম না বলে মন খারাপ করবেন না, আপনার দরকার সুস্থতা।

তিন. সিরিয়াল এগোবার জন্য হাউকাউ করবেন না। মনে রাখবেন বিনয়ী ব্যক্তি সর্বত্র আদরণীয়। রোগী বেশি কষ্টে থাকলে চমৎকার করে অ্যাটেন্ডেন্টকে বলুন বা সোজা চিকিৎসক বরাবর একটি স্লিপ পাঠিয়ে দিন "প্রিয় স্যার, আমার রোগীটি অবস্থা মুমূর্ষু, আপনার সহৃদয় সহযোগিতা কামনা করছি" টাইপ কিছু লিখুন। চিকিৎসকদের ৯৯ শতাংশ নরম দিলের। অনুরোধ গ্রহণ না করলে বুঝবেন তিনি বাকি ১ শতাংশ এর অন্তর্গত, অতএব ধৈর্য ধরুন।

চার. আগে থেকে সুন্দর করে নিজের কথাগুলো গুছিয়ে দুই মিনিটে বলার প্র্যাকটিস করুন। এতে থাকবে আপনার কি কি কষ্ট, সবচেয়ে বেশি কোনটি, কতদিন ধরে? আগের চিকিৎসার ফল, কোনো ওষুধে সমস্যা হচ্ছে কিনা? সব এক লাইন করে। আপনার আগের কোনো পুরাতন রোগ আছে কিনা, যেমন ডায়াবেটিস, প্রেসার, যক্ষা, হাপানি ইত্যাদি। জাস্ট নাম।

পাঁচ. প্রয়োজনীয় কথা বলুন। কোনো পুরাতন কাসুন্দি বা কোন কোন ডা. দেখিয়েছেন, কোন দেশ সফর করেছেন, সেখানের হাসপাতাল চকচকে ছিল কিনা, এসব টেনে আনবেন না। স্মার্টলোক যেমন সবার পছন্দ, স্মার্ট রোগীদের ডাক্তাররা পছন্দ করেন।

ছয়. বিচ্ছু বাচ্চা, অতি পাঙ্কু, পান বিড়ি খাওয়া ভকভকে গন্ধ বা অতি বকবক করা মানুষদের সঙ্গী করলে পৃথিবীর যে কোনো সেবা সার্ভিসের মান পড়ে যায়। সতর্ক থাকুন।

সাত. নারী রোগী অবশ্যই স্বামী বা নারী সঙ্গী নিয়ে যাবেন। তা নাহলে চিকিৎসক আপনাকে দেখতে বাধ্য নন। এটা মেডিকেল এথিক্সের পার্ট। বাচ্চা হলে মা যাওয়াটাই বেস্ট।

আট. চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসকদের বদনাম করবেন না। আপনার চাচা শ্বশুরের নানার খালাতো ভাই যে একজন ডাক্তারের হাজবেন্ড, এসব তথ্য চিকিৎসকের চরম অপছন্দ। গিয়েই কাউকে ফোনে লাগিয়ে, নিন কথা বলুন একটি চরম অভদ্রতা। আগে জানুন, কথা বলতে তার কোনো আপত্তি আছে কিনা?

নয়. পাতি সাংবাদিক বা রাজনীতিবিদ হলে পরিচয় গোপন করুন। তবে ভিআইপি রাজনীতিবিদ, প্রশাসন বা পুলিশের হাই অফিসিয়াল থাকলে রেফারেন্স দিতে পারেন। চিকিৎসকরা নিজেদের জুনিয়র ও জ্ঞাতিভাইদের ওপর ভয়ানক সবল ও ক্ষমতাবান হলেও এসব রেফারেন্সকে যথেষ্ট সমীহ করেন। স্মার্টলি ডিল করলে, কাজ হতে পারে।

দশ. যতবার যাবেন, দেখুক আর নাই দেখুক, সকল পুরাতন কাগজপত্রগুলো নিয়ে যাবেন। ফলোআপের টাইমেও সঙ্গে নেবেন, যদি নিষেধ না থাকে। এক্স-রে/এমআরআই/সিটিস্ক্যানের শুধু রিপোর্ট নয়, বরং ফিল্মও নিয়ে যাবেন। স্মার্ট রোগীরা সবচে নতুন প্রেসক্রিপশন ও পরীক্ষার কাগজ ওপরে রেখে ডেট অনুসারে সাজিয়ে ফাইল করে আনে, সার্ভিসও ভালো পান।

এগারো. আপনার কি হয়েছে, সম্ভাব্য কারণ, পরিণতি কি, সারতে কেমন সময় লাগতে পারে, ব্যয় কেমন হতে পারে, এসব জানতে চাওয়া আপনার অধিকার। তবে সব মিলিয়ে দু-তিন মিনিট সময় নিন। অধিক সময় নেয়াটা পেছনের মুমূর্ষু রোগীদের জন্য কষ্টের কারণ হতে পারে।

বারো. যেভাবে প্রেসক্রিপশন করা, সে নিয়মে ওষুধ সেবন করুন। নিয়ম নিষেধগুলো স্ট্রিকলি ফলো করুন। এতে মহাকল্যাণ থাকে। কারণ চিকিৎসক যা জানেন, সব আপনি জানেন না। ফার্মাসিস্টের কথা শুনে কিছু বদলাবেন না। যে কোনো সন্দেহ বা ওষুধসংক্রান্ত সমস্যায় চিকিৎসককেই নক করুন।

তেরো. যে কোনো সমস্যা অকপটে বলুন। ভুল হলেও সেটা স্বীকার করে বিনীতভাবে বলুন। তথ্য গোপন করা আপনার জন্য বিপদ ডেকে আনতে পারে।

চৌদ্দ. প্রেসক্রিশন হারানো চিকিৎসকের দরবারের কবিরা গুনাহ আর উহাকে মুড়ির প্যাকেটের মতো কোঁকড়ানো সগিরা গুনাহ। প্রয়োজনে ফটোকপি বা মোবাইলে ছবি তুলে মূলটা নিরাপদে রাখুন।

পনেরো. যত সেবা সার্ভিস, কোনোটাই বিনামূল্যে নয়। ভিজিট দেবার মানসিকতা নিয়েই চেম্বারে যান। এটা চিকিৎসকের অধিকার। তার অধিকার না দিয়ে নিজের সুস্থতার চিন্তা করাটা শিশুসুলভ।

ষোলো. দয়া করে ভিজিট নিয়ে বার্গেনিং করবেন না। আপনি ভিজিট দিতে সমস্যা ফিল করলে সরাসরি চিকিৎসককে বলুন। শতকতরা ৯৫ জন চিকিৎসকই অত্যন্ত সুবিবেচক। তবে কারো আপত্তি থাকলে সম্মান করুন, কারণ এটি তার অধিকার। তিনিই ঠিক করবেন, কার জন্য তার অধিকার ছাড়বেন, কাকে ছাড়বেন না? ভিজিট দেয়াকে নিজের জন্য সম্মানহানিকর ভাববেন না। মনে রাখবেন আপনার খরচ হওয়া সামান্য টাকার তুলনায় আপনার সুস্থতার মূল্য কোটি গুণ বেশি দামি।

সতেরো. কাউকে দুর্ব্যবহারকারী; রগচটা, কটূভাষী, অসৎ মনে হলে চিকিৎসক হিসাবে নয়, বরং মানুষ হিসেবে এড়িয়ে চলাই কর্তব্য। মানুষের মাঝে স্বর্গ-নরক, মানুষেতে সুরাসুর। সুতরাং নিজে নিরাপদে থাকুন, অপরজনকেও তার কাছ থেকে নিরাপদ থাকতে বলুন।

আঠারো. একজন চিকিৎসককে দেখাবার পর কোনো কারণ ছাড়াই আরেকজনকে সেটি স্ক্রিনিং করানো চরম বোকামি। পৃথিবীর সব ব্যক্তি তার নিজস্ব মতামত দেবেন। যদি আস্থাই না থাকে, তবে দেখালেন কেন? আর আস্থা থাকলে সেটাকে দুর্বল করবেন কেন?

উনিশ. চিকিৎসা নেয়া সমাপ্ত হলে একটি চমৎকার সমাপনী বাক্য বা একটি হাসি দিন। থ্যাঙ্কস মেসেজ দিন। হতে পারে; আপনি ছিলেন ওই দিনের মনে দাগ কেটে যাওয়া সেরা রোগী। আপনাদের ছোট ছোট এপ্রিসিয়েশন তাকে আরও চমৎকার করে তুলবে।

বিশ. শুধু ব্যবস্থাপত্র বা চিকিৎসা নেয়ার আশা করবেন না। চিকিৎসকের দোয়াও নিন। মনে রাখবেন, আপনার সুস্থতার বিষয়টি অবশ্যই তার দোয়ার সঙ্গেও সম্পর্কিত।

একুশ. কোনো চিকিৎসকই জেনেশুনে ভুল বা অপচিকিৎসা দেন না। এমনকি জানের শত্রু; রোগী হয়ে এলেও উল্টো চিকিৎসা দেন না। সুস্থতার বিষয়টির মালিকও তিনি নন। তিনি কোনো জাদুকর বা ভগবান নন। উনি তার অর্জিত জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা দিয়ে রোগ নির্ণয় ও তদনুসারে ব্যবস্থাপত্র প্রদান করেন। অতএব আস্থা রাখুন, ধৈর্য রাখুন। ঘন ঘন ডাক্তার বদলাবেন না।

বাইশ. চিকিৎসা নেয়ার পূর্বে নামের শেষে অবশ্যই এমবিবিএস বা বিডিএস (ডেন্টাল) দেখে চিকিৎসা নিন। ভালো থাকুন, এ কামনা।

লেখক: ডা. মুহিব্বুর রহমান রাফে

এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য); এমডি (ফাইনাল ইয়ার রেসিডেন্ট) ফিজিক্যাল মেডিসিন অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন বিভাগ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।

কনটেন্ট ক্রেডিট: মেডিভয়েস

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter