আমানতে কোন ব্যাংকে কত সুদ
jugantor
আমানতে কোন ব্যাংকে কত সুদ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৫ অক্টোবর ২০২০, ২০:১৭:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

কষ্টার্জিত অর্থ কোন ব্যাংকে রাখলে একটু বেশি মুনাফা পাওয়া যাবে তার খোঁজে থাকেন আমানতকারীরা। সর্বনিম্ন তিন মাস থেকে তিন বছর বা তারও বেশি সময়ের জন্য ব্যাংকগুলোতে আমানত রাখার সুযোগ রয়েছে। আমানতের বিপরীতে যে সুদ দেয়, তার নাম ফিক্সড ডিপোজিট রেট বা স্থায়ী আমানতে সুদের হার (এফডিআর)।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গত সেপ্টেম্বরের তথ্যে দেখা যায়, ৫৯টি ব্যাংকের সুদহার এক রকম নয়। বিভিন্ন মেয়াদে সর্বনিম্ন ২ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ পর্যন্ত এফডিআরে সুদ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, দেশে তিনটি বিশেষায়িতসহ মোট ৯টি সরকারি ব্যাংক রয়েছে। ব্যাংকগুলো আমানতের বিভিন্ন মেয়াদে সাড়ে ৪ থেকে ৬ শতাংশ সুদ অফার করছে। এর মধ্যে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদ দিচ্ছে আমানতকারীদের। ব্যাংকটি তিন মাস থেকে এক বছরের কম সময়ের সুদ ৪ দশমিক ৫০ থেকে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ, এক বছর থেকে তার বেশি সময়ের সুদ ৫ দশমিক ৭৫ থেকে ৭ শতাংশ এবং তিন বছর বা তার বেশি সময়ের সুদ ৬ থেকে ৯ শতাংশ পর্যন্ত দিচ্ছে।

এছাড়া সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল), বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (বিকেবি) ও প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের (পিকেবি) সুদ ৫ দশমিক ৫০ থেকে ৬ শতাংশ পর্যন্ত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে আরও দেখা যায়, দেশের বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে চতুর্থ প্রজন্মের পদ্মা (সাবেক ফারমার্স) ব্যাংক। ব্যাংকটি তিন থেকে ছয় মাসের কম সময়ের সুদ ৭ শতাংশ, ছয় মাস থেকে এক বছরের কম সময়ের জন্য ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ এবং এক বছর থেকে তার বেশি সময়ের জন্য আমানতের সুদ দিচ্ছে সাড়ে ৭ শতাংশ।

দীর্ঘমেয়াদী আমানতের সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে ঢাকা ব্যাংক। ব্যাংকটি তিন বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য আমানতে সুদ দিচ্ছে ৮ দশমিক ২৪ শতাংশ। তিন বছরের কম সময়ের এফডিআরে ব্যাংকটির সুদহার সাড়ে ৫ থেকে ৬ দশমিক ৫০ শতাংশ।

তিন মাস থেকে তিন বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য সাউথবাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক (এসএবিসি) ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ থেকে সাড়ে ৮ শতাংশ পর্যন্ত সুদ দিচ্ছে। দুই বছরের বেশি সময়ের আমানতে পূবালী ব্যাংক দিচ্ছে সাড়ে ৬ থেকে ৮ শতাংশ সুদ। এক বছর পর্যন্ত এফডিআরে সাড়ে ৭ শতাংশ সুদ দিচ্ছে মেঘনা ব্যাংক।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড আমানতের মুনাফা দিচ্ছে সাড়ে ৫ থেকে সাড়ে ৭ শতাংশ পর্যন্ত। দীর্ঘমেয়াদী আমানতে সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ সুদ দিচ্ছে দি সিটি ব্যাংক।

এছাড়া বেশিরভাগ বেসরকারি ব্যাংকেরই এফডিআরে সুদহার ৫ থেকে ৬ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বিদেশি ব্যাংকের মধ্যে তিন বছর থেকে তার বেশি সময়ের জন্য সবচেয়ে বেশি ৯ শতাংশ সুদ দিচ্ছে ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান।

কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলনের সুদ সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ। আর সবচেয়ে কম সুদ এইচএসবিসির। ব্যাংকটির আমানতের সুদহার এক শতাংশের নিচে। এক বছরমেয়াদী আমানতে হাবিব ব্যাংক দিচ্ছে সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ সুদ। তবে এক বছরের ওপরে এফডিআরে ব্যাংকটির সুদহার ৬ শতাংশ। এছাড়া আল ফালাহ, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড, উরি এবং স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ায় সুদের হার ১ দশমিক ২০ থকে ৬ শতাংশ পর্যন্ত।

আমানতে কোন ব্যাংকে কত সুদ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কষ্টার্জিত অর্থ কোন ব্যাংকে রাখলে একটু বেশি মুনাফা পাওয়া যাবে তার খোঁজে থাকেন আমানতকারীরা। সর্বনিম্ন তিন মাস থেকে তিন বছর বা তারও বেশি সময়ের জন্য ব্যাংকগুলোতে আমানত রাখার সুযোগ রয়েছে। আমানতের বিপরীতে যে সুদ দেয়, তার নাম ফিক্সড ডিপোজিট রেট বা স্থায়ী আমানতে সুদের হার (এফডিআর)।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গত সেপ্টেম্বরের তথ্যে দেখা যায়, ৫৯টি ব্যাংকের সুদহার এক রকম নয়। বিভিন্ন মেয়াদে সর্বনিম্ন ২ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ পর্যন্ত এফডিআরে সুদ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, দেশে তিনটি বিশেষায়িতসহ মোট ৯টি সরকারি ব্যাংক রয়েছে। ব্যাংকগুলো আমানতের বিভিন্ন মেয়াদে সাড়ে ৪ থেকে ৬ শতাংশ সুদ অফার করছে। এর মধ্যে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদ দিচ্ছে আমানতকারীদের। ব্যাংকটি তিন মাস থেকে এক বছরের কম সময়ের সুদ ৪ দশমিক ৫০ থেকে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ, এক বছর থেকে তার বেশি সময়ের সুদ ৫ দশমিক ৭৫ থেকে ৭ শতাংশ এবং তিন বছর বা তার বেশি সময়ের সুদ ৬ থেকে ৯ শতাংশ পর্যন্ত দিচ্ছে।

এছাড়া সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল), বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (বিকেবি) ও প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের (পিকেবি) সুদ ৫ দশমিক ৫০ থেকে ৬ শতাংশ পর্যন্ত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে আরও দেখা যায়, দেশের বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে চতুর্থ প্রজন্মের পদ্মা (সাবেক ফারমার্স) ব্যাংক। ব্যাংকটি তিন থেকে ছয় মাসের কম সময়ের সুদ ৭ শতাংশ, ছয় মাস থেকে এক বছরের কম সময়ের জন্য ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ এবং এক বছর থেকে তার বেশি সময়ের জন্য আমানতের সুদ দিচ্ছে সাড়ে ৭ শতাংশ।

দীর্ঘমেয়াদী আমানতের সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে ঢাকা ব্যাংক। ব্যাংকটি তিন বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য আমানতে সুদ দিচ্ছে ৮ দশমিক ২৪ শতাংশ। তিন বছরের কম সময়ের এফডিআরে ব্যাংকটির সুদহার সাড়ে ৫ থেকে ৬ দশমিক ৫০ শতাংশ।

তিন মাস থেকে তিন বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য সাউথবাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক (এসএবিসি) ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ থেকে সাড়ে ৮ শতাংশ পর্যন্ত সুদ দিচ্ছে। দুই বছরের বেশি সময়ের আমানতে পূবালী ব্যাংক দিচ্ছে সাড়ে ৬ থেকে ৮ শতাংশ সুদ। এক বছর পর্যন্ত এফডিআরে সাড়ে ৭ শতাংশ সুদ দিচ্ছে মেঘনা ব্যাংক।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড আমানতের মুনাফা দিচ্ছে সাড়ে ৫ থেকে সাড়ে ৭ শতাংশ পর্যন্ত। দীর্ঘমেয়াদী আমানতে সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ সুদ দিচ্ছে দি সিটি ব্যাংক।

এছাড়া বেশিরভাগ বেসরকারি ব্যাংকেরই এফডিআরে সুদহার ৫ থেকে ৬ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বিদেশি ব্যাংকের মধ্যে তিন বছর থেকে তার বেশি সময়ের জন্য সবচেয়ে বেশি ৯ শতাংশ সুদ দিচ্ছে ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান।

কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলনের সুদ সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ। আর সবচেয়ে কম সুদ এইচএসবিসির। ব্যাংকটির আমানতের সুদহার এক শতাংশের নিচে। এক বছরমেয়াদী আমানতে হাবিব ব্যাংক দিচ্ছে সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ সুদ। তবে এক বছরের ওপরে এফডিআরে ব্যাংকটির সুদহার ৬ শতাংশ। এছাড়া আল ফালাহ, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড, উরি এবং স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ায় সুদের হার ১ দশমিক ২০  থকে ৬ শতাংশ পর্যন্ত।