ই-কমার্সের নামে অর্থ লোপাটের প্রতিবাদে এবি যুব পার্টির মানববন্ধন
jugantor
ই-কমার্সের নামে অর্থ লোপাটের প্রতিবাদে এবি যুব পার্টির মানববন্ধন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:৫০:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ই-কমার্স, এমএলএম বা সমবায়ের নামে গ্রাহকদের ২১ হাজার কোটি টাকা লোপাটের প্রতিবাদে এবং ভুক্তভোগীদের ক্ষতি পূরণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে আমার বাংলাদেশ (এবি) যুব পার্টি।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এসময় বক্তারা বলেন, ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ডেসটিনি, যুবক ও এহসান গ্রুপের মতো প্রতিষ্ঠানের কারণে অসংখ্য মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাই আর্থিক কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে।

এবি যুব পার্টির সমন্বয়ক এবিএম খালিদ হাসানের সভাপতিত্বে ও যুবনেতা ইলিয়াস হোসাইনের পরিচালনায় মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সদস্য সচিব বিএম নাজমুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পার্টির সহকারী সদস্য সচিব আমিনুল ইসলাম, আনোয়ার সাদাত টুটুল ও শাহ আব্দুর রহমান প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএম নাজমুল হক বলেন, আমরা মনে করি- ইভ্যালি বা এহসান গ্রুপের মতো প্রতিষ্ঠান এমনি এমনিই লুটপাটের রাজ্য কায়েম করতে পারেনি। রাজনৈতিক নেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে দেশের মানুষের ধর্মীয় আবেগকে পুঁজি করে তারা এ লুটপাটের রাজ্য কায়েম করেছে। সরকারের কাছে দাবি-দ্রুত সব অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে এবং ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আমিনুল ইসলাম বলেন, রাষ্ট্রের দায়িত্ব নাগরিকদের আর্থিক নিরাপত্তা প্রদান করা। কিন্তু আজ রাষ্ট্র লুটেরাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে। শেয়ারবাজার লুটপাট, ডেসটিনি, ইভ্যালিসহ বিভিন্ন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের নামে লুটপাট। ধর্মকে পুঁজি করে এহসান গ্রুপের লুটপাট। সবই দেশের ভঙ্গুর অর্থনীতির প্রতিচ্ছবি। সভাপতির বক্তব্যে এবিএম খালিদ হাসান বলেন, সরকারের কাছে আমাদের দাবি-অবিলম্বে ভূয়া সব আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে হবে এবং দায়িদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

ই-কমার্সের নামে অর্থ লোপাটের প্রতিবাদে এবি যুব পার্টির মানববন্ধন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ই-কমার্স, এমএলএম বা সমবায়ের নামে গ্রাহকদের ২১ হাজার কোটি টাকা লোপাটের প্রতিবাদে এবং ভুক্তভোগীদের ক্ষতি পূরণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে আমার বাংলাদেশ (এবি) যুব পার্টি। 

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা  হয়। এসময় বক্তারা বলেন, ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ, ডেসটিনি, যুবক ও এহসান গ্রুপের মতো প্রতিষ্ঠানের কারণে অসংখ্য মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাই আর্থিক কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে।

এবি যুব পার্টির সমন্বয়ক এবিএম খালিদ হাসানের সভাপতিত্বে ও যুবনেতা ইলিয়াস হোসাইনের পরিচালনায় মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সদস্য সচিব বিএম নাজমুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পার্টির সহকারী সদস্য সচিব আমিনুল ইসলাম, আনোয়ার সাদাত টুটুল ও শাহ আব্দুর রহমান প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএম নাজমুল হক বলেন, আমরা মনে করি- ইভ্যালি বা এহসান গ্রুপের মতো প্রতিষ্ঠান এমনি এমনিই লুটপাটের রাজ্য কায়েম করতে পারেনি। রাজনৈতিক নেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে দেশের মানুষের ধর্মীয় আবেগকে পুঁজি করে তারা এ লুটপাটের রাজ্য কায়েম করেছে। সরকারের কাছে দাবি-দ্রুত সব অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে এবং ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আমিনুল ইসলাম বলেন, রাষ্ট্রের দায়িত্ব নাগরিকদের আর্থিক নিরাপত্তা প্রদান করা। কিন্তু আজ রাষ্ট্র লুটেরাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে। শেয়ারবাজার লুটপাট, ডেসটিনি, ইভ্যালিসহ বিভিন্ন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের নামে লুটপাট। ধর্মকে পুঁজি করে এহসান গ্রুপের লুটপাট। সবই দেশের ভঙ্গুর অর্থনীতির প্রতিচ্ছবি। সভাপতির বক্তব্যে এবিএম খালিদ হাসান বলেন, সরকারের কাছে আমাদের দাবি-অবিলম্বে ভূয়া সব আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে হবে এবং দায়িদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন